বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন

হাওর ডুবানো ঠিকাদার এবার সড়কের কাজ ফেলে রেখে কষ্ট দিচ্ছে জগন্নাথপুরবাসীকে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ জুন, ২০১৭
  • ৬৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি;: জগন্নাথপুরে প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন ম্লান করতে একটি সড়কের কাজ অসমাপ্ত রেখে জনগনকে অবর্ননীয় দুর্ভোগে কষ্ট দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে হাওরের বোরো ফসল ডুবানো এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। এনিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলাবাসীর ক্ষোভের অন্ত নেই। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক ও আইনগত জটিলতার কারণে দুর্ভোগ থেকে রেহাই মিলছে জগন্নাথপুরবাসীর।
উপজেলাবাসী জানান, জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের নেতৃত্বে জগন্নাথপুরের শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়িত হচ্ছে। কিন্তু সুযোগসন্ধানী কিছু রাজনৈতিক ঠিকাদারের কারণে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড ম্লান করতে দিনের পর দিন সড়কের কাজ অসমাপ্ত রেখে মানুষদেরকে কষ্ট দেয়া হচ্ছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের নির্দেশে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কে ১৩ কিলোমিটার অংশে চার কোটি টাকার সংষ্কার কাজ চলছে। কিন্তু ঠিকাদার ধীরগতিতে রাস্তার কাজ করে জনগনকে দুর্ভোগ দিচ্ছে।
অপরদিকে ভবেরবাজর-নয়াবন্দর- গোয়ালাবাজার সড়কের ১১ কিলোমিটার অংশে চার কোটি ২০ লাখ টাকার কাজের ঠিকাদারী পায় সজিব রঞ্জন দাশ এর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ওই ঠিকাদার জগন্নাথপুরের নলুয়া ও মইয়ার হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজের বরাদ্দ নিয়ে সময়মতো কাজ না করায় হাওর তলিয়ে যায়।

জগন্নাথপুরের হাওর ডুবির খলনায়ক ঠিকাদার সজিব রঞ্জন দাশের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এবার জগন্নাথপুরের মানুষকে ভবেরবাজর নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজার সড়কে কাজ না করে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে ফেলে দিয়েছে।
জানা গেছে, সজিব রঞ্জন দাশের ব্যবসায়িক অংশিদার (সাব কন্ট্রাকটর)জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সদস্য সৈয়দ মাসুম আহমদ কাজ নিয়ে কিছু কাজ করে অধিকাংশ কাজ ফেলে রেখেছেন।
২০১৬ সালের ১৩ জুনের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও ওই সময়ে কাজ শেষ হয় মাত্র ৩৫ শতাংশ। তাও আবার নিয়ম অনুয়ায়ী ৫০০ মিটার ভাঙ্গার পর ৫০০মিটারের কাজ শেষ করে আরো নতুন ৫০০ মিটার ভাঙ্গার কথা থাকলেও মেশিনের টাকা বাচাতে পুরো সড়কের অংশ ভেঙ্গে রেখেছেন।
এলজিইডির ওই প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান জানান,আমরা চারবার ঠিকাদারকে তাগিদপত্র দিয়ে কাজ শেষ করানোর চেষ্ঠা করে ৩৫ শতাংশ থেকে ৪২ শতাংশ কাজ করিয়েছিলাম। গত বছরের অক্টোবর মাসে চুক্তি বাতিলের চিঠি দিলে ঠিকাদার ২০১৬ সালেল ১৭ নভেম্বর হাইকোর্টের শরনাপন্ন হয়ে কাজের মেয়াদ বাড়ানোর জন্য রিট পিটিশন দায়ের করেন। যার প্রেক্ষিতে ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে দেয়া হয়। ওই সময়ে আরো কিছু কাজ করেন। পরবর্তীতে আরো তিন মাস সময়বৃদ্ধির আবেদন করেন। আদালত আরো তিন মাসের সময়বাড়িয়ে দেন। যারসময়সীমা উত্তীর্ণ হয় চলতি বছরের ৩০মে। ওই সময়ে কাজের বিল উত্তোলন করেন ১ কোটি ৯৭ লাখ ৯২ হাজার ৫৪২ টাকা।
কিন্তু আদালতের সময়সীমা ও নির্দেশনার সময় পেরিয়ে গেলেও ঠিকাদার কাজ ফেলে এলাকার লাখো মানুষকে জনদুর্ভোগে ফেলে রেখেছেন।
এলাকাবাসী অভিযোগ উক্ত ঠিকাদার সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক নুরুল হুদা মুকুট ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপলের ঘনিষ্টজন ও ব্যবসায়িক অংশিদার হওয়ায় শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে ইচ্ছে করে কাজ ফেলে রেখেছেন। কারণ সুনামগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতির দু.বলয় রয়েছে। এক বলয়ে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানসহ সকল সংসদ সদস্য। অপর বলয়ে জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মতিউর রহমানসহ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট রয়েছেন।
শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারণে মান্নান বলয়ের বিরোধীতাকারীরা সড়কের কাজ ফেলে জনগনকে কষ্ট দিচ্ছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক উক্ত সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী জুবেদ খান বলেন, সড়কটির কারণে ক্ষমতাসীন দলের একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে এখন আমাদের লজ্জা হয়। রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সড়কটির কাজ ফেলে ঠিকাদাররা জনগনকে দুর্ভোগে ফেলেছেন। দ্রুত সড়কটির কাজ শেষ করতে এলজিইডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকে আশু পদক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

আশারকান্দি ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান জাবেদ আহমদ বলেন, ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজর-কাঠালখাইড় সড়কের দুর্ভোগের কথা বর্ণনা করার ভাষা নেই। যাকাতের টাকা দিয়ে সড়কে কিছু সংস্কার কাজ করে চলাচলের ব্যবস্থা করা হলেও তা অপ্রতুল হওয়ায় সড়কটি সবধরনের যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বড় যানবাহন চলাচল অনেকদিন ধরে বন্ধ। সিএনজিও চলাচল করতে চায় না। এখনও গর্তে হাটু পানি রয়েছে।
এবিষয়ে সাবকন্ট্রাক্টর সৈয়দ মাসুম আহমদ বলেন, কাজ নিয়ে কোন রাজনীতি নয়। দরপত্রের সঙ্গে কাজের কোন মিল নেই। কাজ শুরু করার সময় সড়কের ক্ষতি হয়েছে। সড়কের ধরন পরিবর্তন হয়েছে। বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব বিষয়ের প্রমানপত্র অফিসে জমা আছে। আমি যেটুকু কাজ করেছি ওই কাজের বিল না দিয়ে কাজ বাতিলের চিঠি দেয়ায় আদালতের শরনাপন্ন হলে আদালত থেকে সময় পাই। ওই প্রাপ্ত সময়ের মধ্যে কাজ করি। এরপর বৃষ্টি হওয়ায় আর কাজ করাতে পারিনি।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, সড়কটির কাজ শেষ করতে ঠিকাদারকে অনেক আকুতি মিনতি করেছি। তিনি নিজেও উক্ত সড়ক নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছেন বলে জানান। এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী সড়কের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছেন বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24