বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন

২৭০ চাল কলের ২৬৪ টি এবার চাল দেবার চুক্তি করেনি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২ জুন, ২০১৭
  • ৬৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: বোরো ধানের জেলা হিসাবে খ্যাত সুনামগঞ্জে হাওর ডুবির কারণে এবার ১১ উপজেলার ২৭০ টি চাল কলের মধ্যে ২৬৪ টি চাল কলই এবার জেলা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চাল দেবার চুক্তি করেনি। বুধবার চুক্তির সময়সীমা শেষ হওয়া পর্যন্ত পুরো জেলায় মাত্র ৬ টি মিল আতপ সিদ্ধ মিলিয়ে ১৯০ মে.টন চাল দেবার চুক্তি করেছে। অথচ. জেলায় চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৬ হাজার ৯০১ মে.টন। অবশ্য এই ৬ চাল কল মালিকরাই ইচ্ছে করলে ৬ হাজার ৯০১ মে.টন চালই সরবরাহ করতে পারবেন বলে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। যেসব চাল কল মালিকরা এবার চাল দেবার জন্য চুক্তি করেননি তারা আগামী দুই বছর সরকারি খাদ্য গোদামে চাল সরবরাহ করতে পারবেন না বলে সরকার নির্দেশনা দিয়েছেন। এদিকে, চাল কল মালিকরা বলছেন, সুনামগঞ্জের কোন কৃষকের বিক্রি করার মতো এক ছটাক ধানও এবার নেই। অন্য জেলা থেকে ধান এনে বিক্রি করলে লোকসান গুণতে হবে। এজন্য চাল দেবার চুক্তি করেননি তারা।
খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সুনামগঞ্জের ১১ উপজেলার মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩৬, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৪২, দোয়ারাবাজারে ২৭, ছাতকে ২১, জগন্নাথপুরে ২৬, দিরাইয়ে ৪৬, শাল্লায় ৩, ধর্মপাশায় ২, জামালগঞ্জে ৩৪, বিশ্বম্ভরপুরে ১৫ এবং তাহিরপুরে ১৭ টি চাল কল রয়েছে।
খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী ৩১ মে’র মধ্যে জেলা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চাল দেবার চুক্তি সম্পাদন করার কথা চাল কল মালিকদের। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের খাদ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী এবার আতপ ৩৩ টাকা কেজিতে এবং সিদ্ধ চাল ৩৪ টাকা কেজিতে কেনা হবে। সুনামগঞ্জে আতপ কেনার লক্ষ্যমাত্রা ৬ হাজার ৩৬৭ মে.টন এবং সিদ্ধ ৫৩৪ মে.টন।
জেলা খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, অন্যান্য বছর জেলার ১৭০ টি চাল কল মিলই চাল দেবার জন্য প্রতিযোগিতা করে চুক্তি করে। এবার চুক্তির শেষ সময় ৩১ মে (বুধবার) পর্যন্ত মাত্র ৬ টি চাল কল চুক্তি করেছে। এরা হলো- জগন্নাথপুর উপজেলার মেসার্স একতা অটো রাইস মিল ৩৩ মে.টন, মেসার্স নিউ একতা রাইস মিল ৩৩ মে.টন, মেসার্স ইয়াসমিন অটো রাইস মিল ৩১ মে.টন এবং একই উপজেলার রানীগঞ্জ এলএসডি’র মেসার্স জিলু মিয়া ২২ মে.টন ও দিরাই উপজেলার হিফজুল রহমান এন্ড সন্স ৩২ মে.টন। অন্য চাল কল মালিকরা আগামী ২ বছরের ৪ মৌসুমে চাল দিতে পারবেন না জেনেও জেলা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চাল দেবার চুক্তি করেননি।
খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন,‘সুনামগঞ্জে খাদ্য বিভাগের রেকর্ড অনুযায়ী, এবারই প্রথম মিল মালিকদের সঙ্গে উল্টো যোগাযোগ করেও চাল কেনা যাচ্ছে না।’
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মল্লিকপুরের মেসার্স রাসেল সেমি অটো রাইস মিলের মালিক রাসেল আহমদ এ প্রসঙ্গে বললেন,‘সুনামগঞ্জের কোন কৃষকের কাছ থেকে কেনার মতো এক ছটাক ধানও এবার নেই। অন্য জেলা জেলা থেকে ধান কিনে সুনামগঞ্জে এনে ভাঙানোর পর ৪২ থেকে ৪৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হবে। অথচ. সরকারের ক্রয় মূল্য করা হয়েছে ৩৩-৩৪ টাকা। এই দামে চাল দেওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব হবে না বলেই আমরা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তি করিনি। একই মন্তব্য করলেন, মল্লিকপুরের মেসার্স যমুনা সেমি অটো রাইস মিলের পরিচালক মো. মিলন মিয়া।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. জাকারিয়া মোস্তফা বলেন,‘আমরা সুনামগঞ্জের চাল কল মালিকদের প্রত্যেকের সঙ্গে কথা বলেছি। অনেককে অফিসে দাওয়াত করে এনে সভা করেছি। বলেছি আপনারা অতীতে অনেক বছরই ব্যবসা করেছেন। এবার কিছুটা ভর্তুকি দিয়ে হলেও সরকারকে সহযোগিতা করুন। যারা সরকারি দলের সঙ্গে যুক্ত তাঁদের কাছেও অনুনয় বিনয় করেছি। কিন্তু ৬ জন মিলার ছাড়া অন্যরা চাল দেবার চুক্তি করতে রাজি হননি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24