মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় সিলেটের নুরুল নিহত

৩১ বছর পর জানা গেল বাদি নিজেই খুনী

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ৮৭ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পরিকল্পিতভাবে দিনমজুর নূর মোহাম্মদকে হত্যা করা হয়। ৩১ বছর পর এই হত্যারহস্য উদ্‌ঘাটন করে পুলিশের বিশেষ সংস্থা পিবিআই।

তদন্তে সেই সঙ্গে বেরিয়ে আসে হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যের কুশীলব। এই কুশীলব আর কেউ নয়, স্বয়ং গ্রাম্য মাতব্বর হত্যা মামলার বাদী মাজেদ আলী জোয়ার্দার। যদিও মাজেদ আলী আর বেঁচে নেই।
স্পর্শকাতর এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ১০ জনকে শনাক্ত করে এরই মধ্যে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পিবিআই। পিবিআইপ্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তদন্তে নূর মোহাম্মদের হত্যাকারীদের শনাক্ত করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আটজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে মাজেদ আলীসহ দুজন বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছে। অন্যরাও বর্তমানে বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ।

দীর্ঘ তদন্তের পর অপরাধীরা শনাক্ত হওয়ায় নিহত নূর মোহাম্মদের পরিবার আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছে।

নিহত নূর মোহাম্মদের ছেলে আমীরুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে বাবাকে ওরা হত্যা করে। সেই রাতে মাজেদ আলী জোয়ার্দার আমার সামনেই বাবাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরদিন মাজেদ জোয়ার্দারের বাড়ির ২০০ গজের মধ্যে বাবার লাশ পাওয়া যায়। মাজেদ জোয়ার্দার বলছিল আমার বাবাকে আলতাফ জোয়ার্দারের লোকেরা খুন করেছিল। যদিও সব সময় আমার সন্দেহ ছিল তার দিকে। ’
পিবিআইয়ের তদন্তে বেরিয়ে আসে, গ্রাম্য বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মামলার বাদী মাজেদ আলী নিজেই তার সহযোগীদের নিয়ে নূর মোহাম্মদকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। কুষ্টিয়া সদর থানার বংশীতলা গ্রামে ৩১ বছর আগে এক সন্ধ্যায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

পিবিআইয়ের তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দরিদ্র পরিবারের সন্তান ছিলেন দিনমজুর নূর মোহাম্মদ। কুষ্টিয়া সদর থানার বংশীতলা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন তিনি। দারিদ্র্যের কারণে একসময় তিনি একই এলাকায় তাঁর শ্বশুরবাড়িতে বাস করতে শুরু করেন। ওই গ্রামে মাজেদ আলী জোয়ার্দার ও আলতাফ মোল্লা নামে দুজন মাতব্বর ছিল। এলাকায় তাদের কথাই ছিল শেষ কথা। মাজেদ আলীর বাড়িতে দিনমজুর হিসেবে কাজ করতেন নূর মোহাম্মদ। ১৯৮৭ সালের জুন মাসের এক সন্ধ্যায় কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে মাজেদ আলী ও তার সহযোগীরা পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ছুরি মেরে তাঁকে হত্যা করে। এ ঘটনার পরদিন ১৯৮৭ সালের ২৫ জুন কুষ্টিয়া সদর থানায় বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করে মাজেদ আলী জোয়ার্দার। মামলা নম্বর ২৬। মামলায় আসামি করা হয় গ্রামের আরেক মাতব্বর আলতাফসহ ১৩ জনকে। এরপর শুরু হয় হত্যাকাণ্ড রহস্যভেদের দিনগণনা। এরই মধ্যে পার হয়ে যায় ৩১ বছর।

থানা পুলিশের পর সিআইডি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইয়ের তদন্তের পরই জানা গেল বাদী নিজেই হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছিল।

পিবিআইপ্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার এ ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, ‘খুনের পর মামলা হয়েছে, মামলার তদন্তও ঘুরেছে একাধিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থার সদস্যের হাতে। তিন দশকেরও বেশি সময় লেগেছে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনে। ’

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদস্যদের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, মামলার বাদী ও তার সহযোগীরা মিলে খুন করেছে নূর মোহাম্মদকে। ছুরি মেরেছে মাজেদ আলী জোয়ার্দার নিজে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ১০ জনের সম্মিলিত অংশগ্রহণে হত্যা করা হয় তাঁকে।

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24