সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

৩৭ বছর পর পরিবারের সাথে দেখা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৫
  • ২৯ Time View

আমিরুল ইসলাম চৌধুরী এহিয়া সিলেট থেকে:: ৩৭ বছর পর পরিবারের সাথে দেখা এ যেন এক অন্যরকম আমেজ। ১৯৭৮ সালে জামালপুর জেলার সদর উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাউনিয়া গ্রাম থেকে হারিয়ে গিয়েছিলেন ফজলু মিয়া । এরপর দীর্ঘ ২২ বছর বিনা অপরাধে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারেই কাটিয়েছেন। অবশেষে সেই ফজলুর সন্ধান পেয়েছেন তার স্বজনরা। শনিবার ফজলুর মা-সহ স্বজনরা সিলেটে এসেছেন তাকে নিয়ে যেতে।
স্বজনরা জানিয়েছেন, জামালপুর জেলার সদর উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাউনিয়া গ্রামের বাসিন্দা ১৯৭৮ সালে হারিয়ে গিয়েছিলেন। তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি। এক পর্যায়ে তারা ফজলুর সন্ধান আর পাওয়া যাবে না বলে মনে করেছিলেন। কিন্তু সম্প্রতি বিনা দোষে ফজলু মিয়া নামের এক ব্যক্তি সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছে এমন সংবাদ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমগুলোতে প্রকাশ পায়। ওই সংবাদ প্রকাশের পর নজরে আসে জামালপুর জেলার সদর উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাউনিয়া গ্রামে থাকা তার আত্মীয়স্বজনের।এক পর্যায়ে তারা ফজলু মিয়ার সাথে দেখা করতে এবং তাকে নিজেদের কাছে ফিরিয়ে নিতে আগ্রহী হয়ে জামালপুরের জেলা প্রশাসক মো. সাহাবুদ্দিন খানের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি একসময় সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ছিলেন। সিলেটে তার জানাশোনা থাকায় তিনি পরিচিতজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।
পাশাপাশি তিনি এ বিষয়টি জামালপুরে নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) জ্যোতিশ্বর পালকে অবহিত করেন। তার বাড়ি সিলেটের কুমারপাড়ায়। পূজোর ছুটিতে এসে জ্যোতিশ্বর তেতলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওসমান আলীসহ অন্যান্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।
এরই প্রেক্ষিতে শনিবার রাতে জামালপুর থেকে সিলেট তেতলি ইউপি অফিসে ছুটে আসেন ফজলু মিয়ার মাতা মজিরুন বেওয়া। তার সঙ্গে এসেছেন ফজলুর চার মামা- আবদুল হালিম, আবদুল গণি, আবদুর রাজ্জাক ও মফিজ উদ্দিন এবং একমাত্র বোন হামিদা বেগম।
তেতলি ইউনিয়ন পরিষদে মিলন ঘটে মা-ছেলে ও অন্যদের। এসময় আবেগঘন এক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সবার চোখ বেয়ে ঝরতে থাকে আনন্দ অশ্রু। নিজের নাড়ি ছেঁড়া সন্তানকে চিনতে ভুল হয়নি মজিরন বেওয়ার। যে মায়ের গর্ভে জন্ম, সেই মাকে চিনতে ভুল হয়নি ফজলুরও।
পূজার ছুটিতে সিলেটে থাকা জামালপুরের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) জ্যোতিশ্বর পাল বলেন, ‘ফজলু মিয়ার মা, বোন ও মামারা তাকে শনাক্ত করেছেন। তারা নিশ্চিত হয়েছেন যে এই ফজলুই তাদের হারিয়ে যাওয়া ফজলু। ফজলু মিয়াও তার মা, মামা ও বোনকে চিনতে পেরেছেন।তিনি জানান, ফজলু মিয়াকে এখনই সিলেট থেকে ফিরিয়ে নেয়া হচ্ছে না। তিনি আদালতের জামিনে রয়েছেন। তাকে আদালতের মাধ্যমেই জামালপুরে ফিরিয়ে নেয়া হবে। প্রসঙ্গত, কোনো অপরাধ না করেও ২২ বছর সিলেট কারাগারে বন্দি জীবন কাটে ফজলু মিয়ার। দু’বার আদালত নিরপরাধ ফজলুকে মুক্তির আদেশ দিলেও প্রকৃত অভিভাবকের অভাবে মুক্তি দিতে পারেনি কারা কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি ফজলু মিয়াকে নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশ হলে ফজলু মিয়ার একসময়ের সহপাঠি সিলেটের দক্ষিণ সুরমার তেতলি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ওয়ার্ড মেম্বার কামাল উদ্দিন রাসেল ফজলুর জামিনের ব্যবস্থা করেন। গত ১৪ অক্টোবর আদালতে হাজিরার ১৯৮তম দিবসে জামিনে মুক্তি পান ফজলু মিয়া। ১৯৯৩ সালের ১১ জুলাই সিলেট মহানগরীর কোর্টপয়েন্ট থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় ফজলু মিয়াকে আটক করে পুলিশ। পরে মানসিক স্বাস্থ্য আইনের ১৩ ধারায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। পরিবারের লোকজন ৩৭ বছর পর ফজলুকে কাছে পেয়ে আনন্দে উদ্ধেলিতহয়ে পড়েন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24