সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ

৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রকে আসামী করে চার্জশিট করায় জগন্নাথপুর থানার এসআই অভিজিৎ কে প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি গঠন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৭ জুন, ২০১৭
  • ৪৫ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্র দূর্জয় আচার্য্য। পুলিশের কাজে বাধা এবং পুলিশকে আঘাত করে গুরুতর আহত করায় একটি মামলার অভিযোগপত্রে আসামি ছোট্ট এই শিশুর বয়স ২৪ বছর উল্লেখ করে চার্জশিট দাখিল করায় বুধবার বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জগন্নাথপুর থানার এসআই অভিজিৎ সিংহকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
ঘটনায় ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। একই সঙ্গে ঘটনার তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলার জগন্নাথপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অভিজিৎ সিংহকে তাঁর দায়িত্ব থেকে সরিয়ে পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ ঘটনার তদন্তে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সঞ্জয় সরকারকে প্রধান এবং সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার তাপস রঞ্জন ঘোষ এবং কোর্ট পরির্দশক মো. জালাল উদ্দিনকে সদস্য করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৬ জুলাই সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌর শহরে রথযাত্রা অনুষ্ঠানে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন আহত হন। এ ঘটনায় থানায় দুটি মামলা হয়। এর মধ্যে জগন্নাথপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অনির্বাণ বিশ্বাস বাদী হয়ে পুলিশের কাজে বাধা দেওয়া এবং হামলা করে গুরুতর আহত করার অভিযোগে সাতজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। পরে এই মামলার তদন্ত করেন থানার এসআই অভিজিৎ সিংহ। তিনি গত ২০ মার্চ আদালতে ১৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন। এতে ছাতক পৌরশহরের বাঘবাড়ি এলাকার বাসিন্দা ইসকন ছাতক উপজেলার সাধারন সম্পাদক জীবন আচার্য্য পুত্র দূর্জয় আর্চায্যকে আসামী করা হয়। দূর্জয় ছাতক পৌর শহরের বাঘবাড়ি মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্র।
তদন্ত কর্মকর্তা অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন, তিনি দায়িত্ব পাওয়ার পর প্রকাশ্যে ও গোপনে মামলাটি তদন্ত করেছেন। সব আসামির নাম, ঠিকানা যাচাই-বাছাই করেছেন। গ্রেপ্তারের চেষ্টা করেছেন।

গতকাল মঙ্গলবার ছাতক উপজেলা থেকে মা-বাবার সঙ্গে সুনামগঞ্জ শহরে এসে জামিন নিয়েছে শিশুটি। সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সাইফুর রহমান মজুমদার শিশুর জামিন মঞ্জুর করেন এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে আগামী ১৫ জুন আদালতে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখা প্রদানের আদেশ দেন।
আদালত প্রাঙ্গণে শিশুটির বাবা বলেন, তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি সংগঠনের স্থানীয় নেতা। সংগঠনের জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার আমন্ত্রণে ওই দিন তিনি স্ত্রী-সন্তানসহ সেখানে রথযাত্রায় যোগ দিতে যান। কিন্তু রথযাত্রা শুরু হলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এরপর তাঁরা ছাতকে চলে আসেন। ১৫ দিন আগে জগন্নাথপুর থেকে তাঁকে জানানো হয়, পুলিশের মামলায় তাঁর ছেলেকে আসামি করা হয়েছে।

শিশুটির বাবা বলেন, ‘কারা কেন সেদিন মারামারি করল, আমরা এর কিছুই জানি না। এখন জানলাম, আমার ছেলে পুলিশকে মারছে। অথচ সে নিজেই ইটের আঘাতে আহত হয়েছিল সেদিন।’ শিশুটির মা বলেন, ‘পুলিশ এই কাজটা কীভাবে করল। তারা কি কোনো খোঁজখবর না করেই কোর্টে রিপোর্ট দেয়?’
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই অভিজিৎ সিংহ বিষয়টি শুনে নিজেই অবাক হন। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বুধবার বিকেলে বলেন খুবই টেনশনে আছি। পরে কথা বলবো বলে তিনি মুঠোফোনের লাইন কেটে দেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24