1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১০:১২ অপরাহ্ন

সৌদিতে আটকে রেখে নারীকে নির্যাতন, জগন্নাথপুরে মায়ের অপেক্ষায় কাঁদছে দুই শিশুকন‌্যা

  • Update Time : সোমবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১১২৮ Time View

জগন্নাথপুরের দুই সন্তানের এক জননী সৌদিতে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে ওই নারীর দেশে থাকা দুই শিশু কন্যা কাদঁছে তাদের মায়ের জন্য। আর অপেক্ষার প্রহর গুনছে তাঁরা কবে মাকে দেখতে পাবে।
গতকাল রবিবার এবিষয়ে জগন্নাথপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম মাসুমের নিকট লিখিতভাবে মেয়েকে দেশে ফিরে আনতে সহায়তা চেয়ে মেয়ের বাবা আবেদন করেছেন।
আবেদনপত্র থেকে জানা যায়, জগন্নাথপুরের ফয়েজ উদ্দিনের মেয়ে দুই সন্তানের জননী স্বামীর মৃতে্যুর পর অভাব অনটনে সংসার চালাচ্ছিলেন। ২০১৯ সালের ১৫ নভেম্বর চিলাউড়া গ্রামের মৃত তেরা মিয়া ও মোহন মিয়া দালালের সহায়তায় ঢাকা মাহি বিজনেস লিমিটেড এবং সবুজ ইন্টারনেশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সবুজ মিয়ার মাধ্যমে ২০১৯ সালে ১৫ নভেম্বর সৌদি আরবের রিয়াদে কাজের কর্মী হিসেবে পাঠানো হয়। সেখানে তাঁর ওপর অমানবিক নির্যাতন চলছিল। পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেয়া হচ্ছে না। প্রায় এক মাস আগে ওই নারী কৌশলে সৌদি থেকে তাঁর বাবাকে ফোন দিয়ে নির্যাতনের কথা জানায়। নির্যাতনের বিভিন্ন চিহ্ন ডিভিও কলের মাধ্যমে বাবাকে দেখান। বিষয়টি দালাল মোহন মিয়াকে মেয়ের বাবা জানালে মোহন জানায় তাকে ৫০ হাজার টাকা না দিলে তিনি তাঁর মেয়েকে দেশে আনতে পারবেন না।
এদিকে সৌদিতে আটকে থাকা ওই নারীর দুই শিশু তাদের মায়ের জন্য কাঁদছে। কবে ফিরবে তাদের মা তাও জানে না তারা। বড় মেয়ে নাইমা বেগম (৭) আর ছোট মেয়ে জারা বেগম (৩)। নাইমা বেগম জানায়, শুনেছি আমার মা বিদেশে আছেন। মায়ের জন্য কান্না আসে। আমার ছোট বোন মা মা বলে কাঁদে। কবে আসবেন আমার মা মা, এ বলেই সে কান্নায় ভেঙে পড়ে।

সৌদিতে নির্যাতনের শিকার ওই নারীর বাবা ফয়েজ উদ্দিন জানান, স্বামী মারা যাওয়ার সময় আমার মেয়ে অভাব অনটনে পড়ে। দালালের প্ররোচনায় পড়ে আমার মেয়ে তাঁর দুই সন্তানকে আমার কাজে রেখে সৌদিতে চলে যায়। সেখানে তাঁর ওপর অমানবিক নির্যাতন করা হচ্ছে। আমি একাধিকবার দালাল মোহনকে বলেছি আমার মেয়েকে দেশে ফিরিয়ে আনতে। কিন্তুু সে উল্টো আমার কাজে টাকা চায়। মোহনের নিকট আমার মেয়ের কাজের প্রায় এক লাখ টাকা রয়েছে। তিনি বলেন আমি আমার মেয়েকে চাই। প্রশাসনের লোকজন আন্তরিক হলো আমি আমার মেয়েকে ফিরে পাবো।
এব্যাপারে মোহন মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, আবেদনপত্র পেয়েছি। আমরা ব্যবস্থা গ্রহণে আন্তরিক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

google.com, pub-1669374237730295, DIRECT, f08c47fec0942fa0
এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com