1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন
Title :
করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ নিয়ে ভয়ের কিছু নেই জনস্বার্থে পুলিশের এসআই’র প্রচার- অন্য এলাকা থেকে এলে থাকতে হবে হোম কোয়ারেন্টিনে জগন্নাথপুরে স্বেচ্ছায় এবার গন্ধবপুর গ্রাম লকডাউন নতুন র‌্যাব মহাপরিচালক সুনামগঞ্জের শাল্লার আব্দুল্লাহ আল মামুন করোনা:দেশেও আরো ৩জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৫৪ সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে একটি গ্রাম লকডাউন মৃত্যুপুরী যুক্তরাষ্ট্র, ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ১৯৭০ জনের মৃত্যু র‌্যাবের নতুন ডিজি সুনামগঞ্জের সন্তান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন র‌্যাব প্রধান হচ্ছেন সুনামগঞ্জের শাল্লার আব্দুল্লাহ আল মামুন করোনাভাইরাস যেন নতুন এক ওলাওঠা-মুক্তাদীর অাহমদ মুক্তা

১৪ ফেব্রুয়ারি অন্যরকম ভাবনা।

  • Update Time : রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১১৯ Time View
লিখার শুরুতেই একটা ছোট কৈফিয়ত দিতে চাই।
সংস্কৃতিমনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী, কঠোর পরিশ্রমী ও জনবান্ধব একজন সরকারি কর্মকর্তা জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মাহফুজুল আলম মাসুম।  ১৪ই ফেব্রুয়ারি তিনি তাঁর ফেসবুকে ইংগিতপূর্ণ একটি অসাধারণ স্ট্যাটাস দেন। আমার এই লেখার প্রেরণা তাঁর সেই স্ট্যাটাস।
১৪ ফেব্রুয়ারি বাংগালী প্রজন্মের জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ দিন। আমি খুব সচেতন ভাবেই বাংগালী প্রজন্ম শব্দটি ব্যবহার করেছি। যদিও ৫২ এর ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আমাদের বাংগালী জাতীয়তাবাদের যাত্রা শুরু কিন্তু তারপরও আজ পর্যন্ত আমরা একটি পরিপূর্ণ বাংগালী প্রজন্ম গড়ে তুলতে পারিনি। সে অন্য প্রসংংগ। অন্য কোন সময় আলোচনা করা যাবে।
আমি মূলতঃ ১৪ ফেব্রুয়ারি নিয়ে কিছুটা আলোকপাত করতে চাই।
১৪ই ফেব্রুয়ারি কর্পোরেট কালচারের পণ্যের দিন না হয়ে জীবনবোধের চেতনাকে শানিত করার প্রক্রিয়ার দিন হতে পারতো। হতে পারেনি প্রতিক্রিয়াশীল চেতনার অধিকারী শফিক রেহমানের কারনে। ভ্যালেন্টাইন্স ডে কে তিনি এই বাংলায় ভালবাসা দিবস হিসাবে প্রচার ও জনপ্রিয় করার পেছনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। বাজার অর্থনীতির এ যুগে কর্পোরেট পৃষ্টপোষকতায় খুব সহজেই যে দিনটি চেতনা শানিত করার প্রক্রিয়ার দিন হতে পারতো কিন্তু তা না হয়ে বানিজ্যের পণ্য বিক্রির দিনে পরিনত হলো। আমি বলছিনা এ দিনে ভালবাসার অনুভূতি মানুষের মাঝে ক্রিয়াশীল থাকেনা। তা থাকে। তবে দিনটি উদযাপনকে কেন্দ্র করে বানিজ্যও চলে।
অথচ এই ১৪ই ফেব্রুয়ারি হতে পারতো নতুন যুগ নির্মাণের স্মারক দিন। বস্তুত পক্ষে মুক্তিযুদ্ধ উত্তর ১৯৮৩ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারির আন্দোলনই বাংলাদেশের প্রথম গণআন্দোলন।
১৯৮৩ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারি স্বৈরশাসক এরশাদের নির্দেশে শিক্ষানীতি বিরোধী ছাত্র/ছাত্রীদের মিছিলে পুলিশের গুলিতে  জাফর, জয়নাল, দিপালী সাহা, আইয়ূব ও ফারুক সহ মোট দশজন ছাত্র/ছাত্রী নিহত হয়। আহত হয় অগুনতি।
১৯৮২ সালের ২৪শে মার্চ বুধবার এরশাদ রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করেন। ক্ষমতা দখলের পরই এরশাদ শিক্ষাংগন ও শিক্ষা ব্যবস্থার উপর আঘাত হানেন। ক্ষমতা গ্রহণের ৪মাসের মাথায় তিনি ঘোষণা করেন সরকার একটি নতুন শিক্ষানীতি প্রনয়ণ করবে।
তার এই ঘোষণার পরপরই তার শিক্ষামন্ত্রী ডঃ মজিদ খান ২৩শে সেপ্টেম্বর ৮২ সালে একটি নতুন শিক্ষানীতির প্রস্তাব পেশ করেন।
নতুন এই শিক্ষানীতিতে প্রথম শ্রেণী থেকেই আরবি ও দ্বিতীয় শ্রেণী থেকেই ইংরেজি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়। আরো একটি বিষয় ছিল উচ্চশিক্ষা। উচ্চশিক্ষা অর্জনের শর্ত ছিল ৫০শতাংশ ব্যয়ভার শিক্ষার্থীদের বহন করতে হবে।
এদিকে এরশাদ ৮৩ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকে দেশের ১৪২ টি থানার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোয় বাধ্যতামূলক আরবি শিক্ষার আদেশ দেন।
এর প্রতিবাদে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ঘোষণা করে, ” শিক্ষানীতিতে প্রাথমিক শিক্ষায় অতিরিক্ত দুটি বিদেশি ভাষা বাধ্যতামূলক করিয়া মূলত বাংলা ভাষাকেই আঘাত করা হইয়াছে। শিক্ষা সংস্কারের নামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা জীবনে এক অরাজক ও নৈরাজ্যজনক অবস্থার সৃষ্টি হইতেছে এবং শিক্ষাকে উচ্চ শ্রেণির ব্যয় বহুল বিনিয়োগ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা চলিতেছে।” তাই এই গনবিরোধী
শিক্ষানীতি বাতিলের দাবীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজার হাজার ছাত্র ছাত্রী মিছিল সহ স্মারকলিপি দিতে সচিবালয়ের দিকে ধাবিত হয়। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও এই আন্দোলনে একাত্মতা ঘোষণা করে এবং আন্দোলনে অংশ নেয়।
মিছিলটি যখন হাইকোর্ট এলাকায় পৌঁছেছে তখন মিছিলের উপর পুলিশ ঝাপিয়ে পড়ে। রচিত হয় বর্বরোচিত হত্যাকান্ড। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে এর আগে কখনো কোন প্রতিবাদী মিছিলে এক সাথে এত ছাত্র ছাত্রী নিহত  হয়নি।
একটি অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও সার্বজনীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সেদিন শুধু ঢাকার রাজপথ নয় ফাগুনের পলাশ -শিমুল রক্তাক্ত হয়েছিল তারুণ্যের দ্রোহী রক্তের স্রোতধারায়।
অথচ দ্রোহের সেই রক্তাক্ত মধ্য ফেব্রুয়ারি আজ হারিয়ে গেছে ভালবাসা দিবসের উত্তাল আবেগে। এ বড় দুঃখ জাগানিয়া উদযাপন।
পরিশেষে জনাব মাহফুজুল আলম মাসুমের ফেসবুক স্ট্যাটাসের হৃদয়স্পর্শী শেষ বাক্যটি দিয়েই এই লিখা শেষ করতে চাই-
“তাল মিলিয়ে চলি, নতুন যুগ নির্মাণ করতে আমরা অক্ষম।”
মনোরঞ্জন তালুকদার
সহকারী অধ্যাপক
জগন্নাথপুরসরকারি কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Customized By BreakingNews