1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন

যাকাত বন্টনের খাতসমূহ-অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল মুক্তাদির খান

  • Update Time : বুধবার, ১৩ মে, ২০২০
  • ৪৫১ Time View

স্বাধীন,জ্ঞানসম্পন্ন,প্রাপ্তবয়স্ক মুসলিম নর_নারী যখন নিসাব পরিমাণ সম্পদের পূর্ণ মালিক হয় এবং তার উপর একবছর অতিক্রান্ত হয়,তখন ঐ ব্যক্তির সম্পদের উপর যাকাত ফরয হয়ে যায়।

অর্থসম্পদ যতই হোক না কেন,তার বন্টনব্যবস্থা অবশ্যই উত্তম কৌশল ও নীতি এবং নির্ভুল পদ্ধতিতে না হলে তা থেকে কাঙ্ক্ষিত সুফল লাভ করা যায় না। বন্টন নীতির ভ্রান্তির কারণেই বর্তমান পৃথিবীতে মানুষে মানুষে আকাশছোঁয়া বৈষম্য ও বিরোধ বিদ্যমান।

ইসলামে যাকাত বন্টনের খাত ৮টি।যেমন কোরআনে পাকে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া-তায়ালা ইরশাদ করেনঃ
انما الصدقت للفقرآء والمسکین والعملین علیھا والمٶلّفة قلوبھم وفی الرقاب والغرمین وفی سبیل الله وابن السبیل۔فریضة من الله۔والله علیم حکیم۔
“অবশ্যই যাকাত পাবে তারা যারা ফকির, মিসিকিন,যাকাত আদায় ও বন্টনে নিযুক্ত কর্মচারী,কাফেরদের মন জয়ের জন্য।ঋণগ্রস্ত,আল্লাহ’র পথে জিহাদকারী ও মুসাফিরদের জন্য।এইটা আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত ফরজ।আর আল্লাহ সর্বজ্ঞ ও প্রজ্ঞাময়”[সূরা তাওবা-৬০]

নিচে এ আট খাতের সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেওয়া হলোঃ

১,(الفقیر)ফকিরঃ ইমাম আবু হানিফা(র) এর মতে ফকির হলো,
من له شیٸ قلیل۔
যার সামান্য সম্পদ আছে তবে নেসাব পরিমান সম্পদের মালিক সে নয়।
অর্থাৎ,যে উপার্জনে অক্ষম কিন্তু মানুষের কাছে ভিক্ষা প্রার্থনা করে না।

২,(المسکین)মিসকিনঃ যার অর্থ অতি দরিদ্রজন,নিঃস্ব ব্যক্তি।
ইমাম আবু হানিফার মতে,
من لا شیٸ له۔
মিসকিন হলো যার কিছুই নেই,একবেলা খাবারের সামর্থও নেই।

৩,(العامل)যাকাত আদায় ও বন্টনে নিয়োজিত কর্মচারীঃ
যারা যাকাত আদায়কারী,সংরক্ষণকারী,পাহারাদার,লেখক,হিসাবরক্ষক এবং বণ্টনকারী এদের সবাইকে বেতন হিসাবে যাকাত প্রদান করা যায়।রাসূলুল্লাহ(সাঃ) বলেন,
ارضوا مصدقیکم۔
“তোমরা যাকাত আদায়কারীকে সন্তুষ্ট করে দেবে।

৪,(مٶلفة القلوب)কাফেরদের মন জয়ের জন্যঃ অর্থাৎ যারা ইসলাম কবুল করতে আগ্রহী বা নওমুসলিমদের ইসলামের ওপর সুপ্রতিষ্ঠিত রাখার জন্য আর্থিক সাহায্য হিসাবে যাকাত প্রদান করা যাবে।রাসুলুল্লাহ(স)-এর হাদিস,
قد أفلح من اسلم۔ورزق کفافا۔
“যে ব্যক্তির ইসলাম গ্রহনের সৌভাগ্য হয়েছে,তাকে প্রয়োজন পরিমাণ রিজিক(নওমুসলিম হিসাবে যাকাত)দেওয়া হয়েছে।

ইমাম জুহরী বলেন, “যে ইহুদি বা খ্রিস্টান ইসলাম গ্রহন করবে,সেই এর মধ্যে গণ্য হবে।

৫,(الرقاب)দাসমুক্তিঃ দাসমুক্তির জন্য যাকাত প্রদান করা যাবে।যেহেতু বর্তমান সময়ে দাসপ্রথার প্রচলন নেই তাই এই খাতে যাকাত দেওয়ার সুযোগ আমাদের নেই।তাই এই খাতটি রহিত।

৬,(الغارمون)ঋণ পরিশোধে অক্ষম ঋণগ্রস্ত ব্যক্তিঃ
ইমাম আবু হানিফা(র)-এর মতে যার উপর ঋণ চেপে বসেছে,কিন্তু ঐ সময় সে নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক নয়।তাই তাকে যাকাত দেওয়া যাবে।তবে কেউ যদি অসৎ কাজে বা অপব্যয়ের কারণে ঋণভারাক্রান্ত হয়,তবে তাকে যাকাত দেওয়া যাবে না।

৭,(فی سبیل الله)আল্লাহর পথে জিহাদকারী,
আল্লাহর নির্দেশিত পথে প্রত্যেক কল্যাণকর কাজে,দ্বীন ইসলামের প্রচার ও প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে যত কাজ করা সম্ভব সেসব ক্ষেত্রে যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে।যেসব কাজ দ্বারা আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা যায় সেসব কাজই এর অন্তর্ভুক্ত।

৮,(المسافر)মুসাফিরঃ ঐ মুসাফিরকে যাকাত দেওয়া যাবে যে মুসাফিরের সফর খরচ শেষ হয়ে গেছে,তার দেশে পেরার মত সামর্থ নাই।এতে মুসাফির লোকটি ধনী হোক বা গরীব হোক।তবে সে সফর পাপের কাজ বা অনূরুপ কিছু হলে তাকে যাকাত দেওয়া যাবে না।

যাকাত এমন একটি অর্থনৈতিক ব্যবস্থা,যা অনুসরণ করলে সমাজের বেকার ও শ্রমজ়ীবী মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব।

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা আমাদের সবাইকে নির্দিষ্ট খাত মুতাবেক যাকাত দেওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক- অধ্যক্ষ, মিয়ার বাজার হযরত শাহচান্দ শাহকালু ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা। বিশ্বনাথ, সিলেট।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com