1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন

সব প্রভাতে তিনি ছিলেন

  • Update Time : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০২০
  • ৫২ Time View

উজ্জ্বল মেহেদী
আজকের কাগজ দিয়ে জাতীয় গণমাধ্যমে আবেদ ভাইয়ের সাংবাদিকতার শুরু। সাবেরীন ভাই (সাব্রী সাবেরীন) ও পিংকুদার (রণেন্দু তালুকদার পিংকু) পর তিনি প্রতিনিধিত্ব করছিলেন। পাশাপাশি স্থানীয় পত্রিকা ‘সুনামগঞ্জ সংবাদ’-এর যাত্রার শুরু থেকে খেলার খবর লিখতেন। সেই সঙ্গে ক্রীড়াঙ্গনেও ব্যস্ত থাকতেন। ছিলেন স্কাউট সংগঠকও। রোভার স্কাউটদের সঙ্গে সখ্যতা ছিল। এরই সুবাদে সাংবাদিকতার বাইরে সবিশেষ পরিচিতি ছিল তাঁর।
আমরা যখন সাংবাদিকতায় আসি, আবেদ ভাই তখন ব্যস্ত সাংবাদিক। তাঁকে আমরা বড় ভাইয়ের চোখে দেখতাম, কাজে-অকাজে সাক্ষাৎ হলে সালাম বিনিময় হতো। সালাম দিলে খুশি হতেন, না দিলে আড় চোখে চাইতেন। এই সারল্যের দুটো দিকই আমরা ভীষণ উপভোগ করতাম। কিন্তু কখনো অসম্মান প্রকাশ করতাম না।
সাংবাদিকতায় গভীর থেকে কিছু বের করে আনতে চাইলে কয়েকটি সূত্র ভর করে চলতে হয়। এ্ই সব সূত্রের একটি হলো, ‘প্রশ্ন করা, সন্দেহ করা’। যত প্রশ্ন, যত সন্দেহ, তত বের হয়ে আসবে তথ্য। সুনামগঞ্জে সাংবাদিকতার সময়ে আবেদ ভাইয়ের একের পর এক প্রশ্ন আর সন্দেহ, কখনো কখনো বিড়ম্বনা তৈরি করত। কিন্তু আমার অনুভূতিতে আঘাত হানত না। বরং সমৃদ্ধ হতো সাংবাদিকতা-অভিজ্ঞতার ভান্ডার।
সুনামগঞ্জ ছেড়ে সিলেট আসার পর যোগাযোগ নেই বললে চলে। তবে খবর রাখতাম। আবেদ ভাই সেই আজকের কাগজ, সুনামগঞ্জের সংবাদ-এর মতো দিনমান ব্যস্ত। সংবাদ সংগ্রহের সব প্রভাতে তিনি থাকতেন। পরিবর্তনের ধারায় নিজেকে প্রতিনিয়ত বদলানোর চেষ্টা ছিল। স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক, সুনামগঞ্জে বেসরকারি টেলিভিশন আরটিভির স্টাফ রিপোর্টার ছিলেন। নিজের সম্পাদিত পত্রিকা বের হতো, দুর্যোগের ঘনঘটায় টেলিভিশনে আপ্লুত হৃদয়ে ত্রস্ত উচ্চারণে নিজেকে উজাড় করে দিয়ে খবর পাঠ করতেন। টেলিভিশনে যা ‘লাইভ’ সম্প্রচার হতো।
এই বন্যায় হাঁটু পানিতে নেমেও আবেদ ভাইকে ‘লাইভ’ দিতে দেখা গেছে। টেলিভিশনে সম্প্রচার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পথচলতি মানুষও জড়ো হয়ে নিজেকে দেখানোর সুযোগ পেতেন। বন্যার পানি চলে যাওয়ার আগেই বিদায় নিতে হলো তাঁকে। বড় অসময়ে আর অকালে এই চলে যাওয়া। সাক্ষী থাকল বন্যার পানি।
করোনার এই করুনকালে একেকটি মৃত্যু যেন পরিসংখ্যান। এরমধ্যে আকস্মিক কিংবা অন্য কোনো উপসর্গে মৃত্যু বেশি বিদ্ধ করে। আমার সিনিয়র বন্ধু জহুর ফোন দিয়ে আকস্মিক মৃত্যুর খবরটা কাতর কণ্ঠে জানালেন। এরপর খলিলের ম্যাসেজ পেলাম। থ বনে গেলাম।
স্কুলজীবনে দুই বছরের সিনিয়র বন্ধু জহুরও স্কাউট করতেন। কলেজে পড়ার সময় জহুর এইচএসসিতে দুই বছর ড্রপ দিয়ে ক্লাসমেট-ভজন বন্ধু হন। আবেদ ভাইকে মান্য করা জহুরের সঙ্গে সেখান থেকেই। এরপর তো সাংবাদিকতার জন্য সহকর্মী আবেদ ভাই-ও। সুনামগঞ্জ সংবাদে যখন কাজ করতাম, পাশাপাশি টেবিল ছিল দুজনের। চালচলনে ভীষণ রকম পেশাদারিত্ব ছিল। সাংবাদিকতাকেও লালন আরেক আভিজাত্য ছিল।
সময়টা স্বাভাবিক থাকলে জানাজা-দাফনে শরিক না হয়ে পারতাম না। সময়ই আটকে দিল। হৃদয়ের শোক-কাতরতায় বুক তড়পানিও কমল না। তড়পাচ্ছি আর ভাবছি, এই সুনামগঞ্জ শহরে হৃদয়ের অসুখ ক্রমেই বাড়ছে। প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ থাকে না। ঘুমের মধ্যে আক্রান্ত হয়ে বিদায় নিতে হয় ঘুমের ঘোরে।
মনে পড়ে, মিসবাহ ভাই (সাংসদ পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ) যখন আক্রান্ত হয়েছিলেন, তাঁর ব্যাপক পরিচিতির কারণে শহরের চেনা-জানা সব মানুষের বুকে চিন চিন ব্যথা করছিল। লুকিয়ে লুকিয়ে অনেককে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতেও দেখা গিয়েছিল। এরপর মিসবাহ ভাইয়ের সুস্থতার খবরে অটো-উপসম হয়। শহরের বুক থেকে যেন ব্যথার পাহাড় সেই যাত্রায় দূর হয়েছিল।
ব্যথা দূর হলে আঘাত ভুলে যাই আমরা। মিসবাহ ভাই সম্ভবত ভুলেননি। সংসদে ঘুরে ফিরে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের দুরাবস্থার কথা তুলে ধরেছেন। কিছু প্রাপ্তিযোগও হয়েছে। এই হাসপাতালে যদি হৃদরোগ বোঝার প্রাথমিক চিকিৎসার উপাত্ত থাকত, হাতের নাগালে যদি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকতেন, তাহলে হৃদয়ের অসুখ অন্তত আগেই ধরা যেত। ধরতে পারছি না বলে আক্রান্ত হওয়ার পর মৃত্যু ছাড়া যেন আর কোনো পথ নেই আমাদের সামনে।
হাওর-নদী-পাহাড় প্রকৃতিতে সমৃদ্ধ শহর সুনামগঞ্জ। প্রকৃতিতে সুখী এই শহরে হৃদয়ের অসুখে কাবু হতে হয় বারবার। খবরের সন্ধানে সদা সক্রিয় একজন আবেদ মাহমুদ চৌধুরীর অকাল মৃত্যুর খবর প্রমাণ করল আমরা কতটা কাবু।
লেখক : উজ্জ্বল মেহেদী, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক ও সিলেট অফিসপ্রধান।

(সৌজন্যে সুনামগঞ্জের খবর)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

google.com, pub-1669374237730295, DIRECT, f08c47fec0942fa0
এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com