1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন

অবিভক্ত বাংলার সর্ববৃহৎ মসজিদ

  • Update Time : শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৩৫ Time View

বর্তমান ভারতের বাংলাভাষী মুসলমানদের সর্ববৃহৎ উপাসনালয় কলকাতার নাখোদা মসজিদ। মোগল সম্রাট আকবরের সমাধির আদলে লাল বেলে পাথর আর আধুনিক স্থাপত্য শৈলীতে তৈরি এই মসজিদই অবিভক্ত বাংলার সবচেয়ে বড় মসজিদ ছিল। ১৯২৬ সালের ১১ সেপ্টেম্বর কলকাতার জাকারিয়া স্ট্রিটের সংযোগস্থলে নির্মাণকাজ শুরু হয় এই মসজিদের। কচ্ছের মেনন সম্প্রদায়ের নেতা সমুদ্র বণিক আব্দুর রহমান ওসমান নিজের উপার্জিত অর্থ থেকে তত্কালীন সময়ে ১৫ লাখ টাকা নির্মাণ খরচ বহন করেছিলেন এই মসজিদের জন্য, যার বর্তমান বাজারমূল্য কয়েক শ কোটি টাকার মতো।

ফারসি ভাষায় নাখোদা শব্দের অর্থ জাহাজের ক্যাপ্টেন বা যিনি জাহাজযোগে মালপত্র আমদানি-রপ্তানির কাজ করেন। আব্দুর রহমান ওসমান সমুদ্রসংশ্লিষ্ট কর্ম ও বাণিজ্যে জীবিকা নির্বাহ করতেন। তাই তাঁরই নামানুসারে এই মসজিদের নামকরণ হয় নাখোদা মসজিদ।

মেনন সম্প্রদায় কলকাতায় বসবাস শুরু করে ১৮২০ সালের দিকে। তারা বেশির ভাগ জাহাজ, চিনি ও অন্যান্য ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়ে বিশেষ প্রতিপত্তি ও বিপুল বিত্তশালী হয়ে ওঠে। দিনে দিনে তারা কলকাতা শহরের শিক্ষা-সংস্কৃতি ও স্থাপত্যের সঙ্গে একাত্ম হয়ে তিল তিল করে গড়ে তোলে আধুনিক কলকাতার নানা রূপ-বৈচিত্র্য। তাদের অবদানেরই সাক্ষী এই নাখোদা মসজিদ।

মুসলমানদের হাতে তিলে তিলে গড়ে ওঠা ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী আধুনিক কলকাতার অনন্য শৈল্পিক স্থাপত্য এই নাখোদা মসজিদের নির্মাণকাজ শেষ হয় ১৯৪২ সালে। তত্কালীন সময়ের সর্ববৃহৎ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ম্যাকিনটোশ বার্ন কম্পানি বিহারের তোলেপুর থেকে গ্রানাইট পাথর এনে ইন্দো-সেরাসেনিক পদ্ধতিতে সম্পাদন করে এই সুবিশাল নির্মাণযজ্ঞ। শ্বেতপাথরে গড়া মসজিদের ভেতরের অংশ তাজমহলের কথা মনে করিয়ে দেয়। মসজিদের প্রধান ফটক বানানো হয়েছে মোগল সম্রাট আকবরের পৃষ্ঠপোষকতায় নির্মিত ফতেপুর সিক্রির বুলন্দ দরওয়াজার আদলে।

১০০ ফুট উচ্চতার ২৫টি ছোট মিনার, ১৫০ ফুট উচ্চতার দুটি বড় মিনারসহ দুর্লভ গ্রানাইট পাথর দিয়ে নির্মিত সুবিশাল দ্বিতল চাতালে সজ্জিত হয়েছে এই মসজিদ। মূল ভবনে একসঙ্গে ১৫ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারে। ঈদের দিনে চাতালগুলোর ভরপুর সমাগমে লাখের সংখ্যা ছাড়িয়ে যায়।

নাখোদা মসজিদ স্থাপত্যের দিক থেকে এক বিস্ময়কর সৃষ্টি। সূক্ষ্ম অলংকরণ, শৈল্পিক কল্পনার এক অনন্য নিদর্শন। সাদা মার্বেলের দেয়াল, বেলজিয়াম কাচ, বিশাল নামাজের জায়গা, দাঁড়িয়ে থাকা পুরনো কাঠের ঘড়ি। এ যেন দেয়ালের ভাঁজে ভাঁজে মুসলিম ঐতিহ্য ও ইতিহাসের গন্ধ। মসজিদের মেঝে, দেয়াল ও গগনছোঁয়া মিনারগুলো যেন মাথা উঁচু করে আধুনিক ভারত বিনির্মাণে মুসলিম কৃতিত্ব আর অবদানের ঘোষণা দিচ্ছে।

ভারত সরকার ২০০৮ সালে মসজিদটিকে হেরিটেজ বিল্ডিংয়ের মর্যাদা দিয়েছে। বর্তমানে এটি শুধু মুসলমানদের উপাসনালয়ই নয়, পর্যটকদের কাছেও এটি অন্যতম একটি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। এই মসজিদকে কেন্দ্র করে আশপাশে গড়ে উঠেছে বেশ কয়েকটি অনন্য মার্কেট। সেগুলোতে এমন কিছু পণ্য বেচাকেনা হয়, যা সাধারণত অন্য কোথাও পাওয়া যায় না।

কলকাতার নাখোদা মসজিদসহ প্রাচীন মুসলিম স্থাপনাগুলো আধুনিক ভারত বিনির্মাণে মুসলমানদের অবদানের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

লেখক : মুফতি সাইফুল ইসলাম,প্রাবন্ধিক, অনুবাদক ও মুহাদ্দিস।

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com