1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন

ইসলাম ও সমাজ, নারীর প্রতি দায়বদ্ধতা

  • Update Time : শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩৮ Time View

ইসলামে বাস্তবিক অর্থেই মানুষ ও মানবতার জন্য সব ধরনের শান্তি ও নিরাপত্তার ফল্কগ্দুধারা সর্বদা প্রবহমান রয়েছে। ইসলামের এই শান্তি ও নিরাপত্তা নরনারী নির্বিশেষে সবার জন্যই প্রযোজ্য। এটি এমন নয় যে, এই শান্তি ও নিরাপত্তার চাদরে শুধু পুরুষরাই নিজেদের আবৃত রাখবে, বরং সমাজের অবিচ্ছেদ্য অংশ নারীরাও সমভাবে ইসলাম প্রদর্শিত এই শান্তি ও নিরাপত্তার অংশীদার; নারীর গুরুত্ব, নিরাপত্তা ও শান্তিকে পাশ কাটিয়ে ইসলামী জীবন বিধান কল্পনাও করা যায় না। ইতিহাসে নারীর এক ভয়াবহ দুঃসময়ে ইসলাম তার পাশে দাঁড়িয়েছে, পাশবিকতার গভীর গর্তের ভেতর থেকে নারীকে উদ্ধার করে রানীর মর্যাদা দিয়েছে; মায়ের অবস্থান বোঝাতে প্রতিটি সন্তানের জন্য বেহেশতকে মমতাময়ীর পদতলে রয়েছে বলে ঘোষণা করেছে। অবহেলিত ও নির্যাতিত নারীকে ব্যক্তিগত, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও মর্যাদাগত অধিকার দিয়েছে ইসলাম। সম্প্রতি দেশে নারী নিগ্রহ ও ধর্ষণের ঘটনায় বিষয়টি আবারও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এসেছে; এমতাবস্থায় মুসলিমপ্রধান দেশ হিসেবে ইসলাম প্রদর্শিত নারীর সম্মান ও মর্যাদার বিষয়টি আমলে নিলেই বরং চলমান দুঃসহ চিত্রাবলির অবসান ঘটবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

ইসলাম নারীকে বিভিন্ন পর্যায়ে মর্যাদা প্রদান করেছে। কখনও কন্যা, কখনও স্ত্রী, আবার কখনও মা হিসেবে তাকে গুরুত্ব ও সম্মানের উচ্চাসন দিয়েছে। যেই যুগে কোনো পরিবারে কন্যাসন্তানের জন্মকে কুলক্ষণ ও আভিজাত্যের পরিপন্থি মনে করা হতো, প্রচলিত অন্ধ বিশ্বাস আর কুসংস্কারের কারণে কন্যাসন্তানকে জীবন্ত কবর দেওয়া হতো, সেই অমানিশার ঘনঘোর অন্ধকারাচ্ছন্নতায় ইসলাম ঘোষণা করেছিল, ‘যদি কারও প্রথমে কন্যাসন্তান জন্মলাভ করে, তবে সে আল্লাহর জান্নাতে চলে যাবে।’ কন্যাসন্তানের জন্মগ্রহণ সেই পরিবারের সৌভাগ্য নিয়ে আসে। তাই তাকে অবজ্ঞা, অবহেলা বা অমর্যাদা নয়; বরং পুত্রসন্তানের চেয়েও ইসলাম কন্যাসন্তানের প্রতি যে অধিক গুরুত্ব, মমত্ব ও দায়বদ্ধতা প্রদর্শন করেছে, উপরিউক্ত ঘোষণায় তাই স্পষ্ট হয়ে ওঠে। কন্যাসন্তানকে অপয়া, অলক্ষুণে ও মান-ইজ্জতের পরিপন্থি মনে করে যেই সমাজ তাদের নিত্য-নিগ্রহে ব্যতিব্যস্ত ছিল, ইসলাম সেই অমানবিক ও জঘন্য প্রথা নিষিদ্ধ করে কন্যাশিশুকে পরিবার, সমাজ ও দেশের বরকতের প্রতীক হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছিল।

মহানবী (সা.) ঘোষণা করেছিলেন, ‘তোমাদের কারও যদি কন্যাসন্তান ভূমিষ্ঠ হয় আর সে যদি তাকে সঠিক লালন-পালন করে, আদব শিক্ষা দেয় আর সৎ পাত্রস্থ করে, তবে সেই কন্যার পিতা আর আমি মোহাম্মদ (সা.) কেয়ামতের দিন বেহেশতের মধ্যে পাশাপাশি অবস্থান করব।’ কন্যাশিশুর ব্যাপারে এত মর্যাদাপূর্ণ কথা ইসলামে বিবৃত থাকার পরেও আজ কেন তাদের ওপর পাশবিক নির্যাতনের মহড়া চলছে! এটি এজন্যই চলছে যে, আমরা আজ ইসলামের নির্দেশনা থেকে অনেক দূরে সরে গিয়েছি; নতুবা কন্যাশিশুরা নিরাপদ থাকত।

ইসলামে স্ত্রীর মর্যাদা স্বীকৃত। পবিত্র কোরআনে এসেছে- ‘হুন্না লিবাসুল্লাকুম ওয়া আন্তুম লিবাসুল্লাহুন্না’ অর্থাৎ তোমরা (পুরুষরা) তাদের পোশাক-পরিচ্ছদস্বরূপ আর তারা তোমাদের জন্যও অনুরূপ। একে অন্যের পরিপূরক, কেউ কারও চাইতে মর্যাদার দিক থেকে ভিন্নতর কিছু নয়। বরং পুরুষদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে নারীর সব প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর জন্য; নিজেরা যা খাবে, যা পরবে তার অনুরূপ স্ত্রীদের জন্যও বরাদ্দ করতে হবে। সংসারের, জীবনের সব ক্ষেত্রেই এই নির্দেশনা কার্যকর থাকবে। একজন স্ত্রী তার স্বামীর চারিত্রিক সনদের সর্বোচ্চ মূল্যায়নকারী। মহানবী (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে সে ব্যক্তিই উত্তম যে তার স্ত্রীর কাছে উত্তম ব্যক্তি! এ ক্ষেত্রে রাসুল (সা.) কোনো ব্যক্তির উত্তম হওয়ার মানদণ্ড হিসেবে স্ত্রীর মূল্যায়নকেই প্রাধান্য দিয়েছেন, যার পরিপ্রেক্ষিতে নারীর মর্যাদা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গেছে।

নারী এক সময় মাতৃত্বের মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়। আর তখনই সম্মান, মর্যাদা ও অবস্থানের দিক থেকে একজন নারী হয়ে যায় অপ্রতিদ্বন্দ্বী। মায়ের মর্যাদার সঙ্গে আর কোনো কিছুর তুলনা হয় না। মহান আল্লাহ সৃজিত ও অজস্র নেয়ামতে ভরপুর জান্নাতসমূহ তখন সন্তানের জন্য মায়ের পদতলে স্থান নেয়। এ পর্যায়ে এসে মহানবী (সা.) অকুণ্ঠ চিত্তে ঘোষণা দেন- ‘আল জান্নাতু তাহতা আকদামিল উম্মাহাত’ অর্থাৎ মায়ের পায়ের তলায় সন্তানের জন্য আল্লাহর জান্নাত রয়েছে। রাসুল (সা.)-কে জিজ্ঞেস করা হলো, কার সেবায় আত্মনিয়োগ করব? তিনি বলেন, তোমার মায়ের সেবায়। আবার জিজ্ঞেস করা হলো, তারপরে কার? একই উত্তর, তোমার মায়ের। তৃতীয়বারের জিজ্ঞেসেও যথারীতি দয়াল নবীর উত্তর, তোমার মায়ের সেবা করো। চতুর্থবার তিনি বললেন, তারপর তোমার বাবার খেদমত করো। তার মানে হলো, বাবার চাইতে মায়ের গুরুত্ব কম করে হলেও তিন গুণ বেশি। মা হচ্ছেন সন্তানের জন্য পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ অনুগ্রহ, নিরাপদ আশ্রয়স্থল এবং অকৃত্রিম মমত্ববোধ ও ভালোবাসার অবিনশ্বর খনি। ইসলাম নারীকে মা হিসেবে যে সর্বোন্নত মর্যাদা দিয়েছে তার কোনো তুলনা নেই। সেজন্যে প্রিয় নবী (সা.) বলেছেন- যে ব্যক্তি তার মা-বাবা দু’জনকে বা তাদের কোনো একজনকে তার জীবদ্দশায় পেল এবং তার সেবা ও ভালোবাসার মাধ্যমে অর্জিত সন্তুষ্টির পরিপ্রেক্ষিতে নিজের অনুকূলে আল্লাহর জান্নাতের নিশ্চয়তা বিধান করতে পারল না, সে ধ্বংস হয়ে যাক।

আজ সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত নারী-নিগ্রহের মধ্য দিয়ে আমরা জাতিগতভাবে নিজেদের ধ্বংসের মুখে নিক্ষেপ করছি। দেশীয় পরিমণ্ডল অতিক্রম করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে বিনষ্ট হচ্ছে। এ থেকে উত্তরণে ইসলাম নির্দেশিত পন্থায় নারীর অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে পারলেই চলমান সংকটের প্রয়াণ ঘটতে পারে। নারীর প্রতি কোনোরূপ বৈষম্য এবং নারীকে অসম্মান কোনোক্রমেই মানবিক মূল্যবোধ ও সুস্থ সংস্কৃতির পরিপূরক নয়; বরং ‘অর্ধেক তাহার করিয়াছে নারী অর্ধেক তাহার নর’। বিশ্বসভ্যতার গোড়াপত্তনে নারীর যে সক্রিয় অংশগ্রহণ ও অবদান তার প্রতি যথাযথ মূল্যায়ন, গুরুত্ব ও দায়বদ্ধতা থেকে সামগ্রিক সৃষ্টিকে আরও অনুপম মাধুর্যে সৌন্দর্যমণ্ডিত করাই আমাদের পরম কর্তব্য।

 

লেখক:-ড. মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন

অধ্যাপক,ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সৌজন্যে সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com