1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

মহানবীর (সা.) শ্রেষ্ঠত্ব ও মর্যাদা

  • Update Time : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১২৬ Time View

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব। মহান আল্লাহ তার আপন ইচ্ছায় কুল কায়েনাত তথা গোটা সৃষ্টিলোক সৃষ্টি করলেন। এই সমগ্র সৃষ্টির মাঝে মানুষকে তার প্রতিনিধিত্বের মর্যাদা দান করলেন; মানুষকে ঘোষণা করলেন আশরাফুল মাখলুকাত তথা সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ হিসেবে। আর এই শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি মানুষের মধ্যে সর্বোত্তম, সর্বোন্নত ও সর্বশ্রেষ্ঠ মর্যাদা দিলেন তারই পেয়ারা হাবিব বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.)-কে। মহান আল্লাহ গোটা সৃষ্টিলোকের মাঝে তাকে দিলেন অনন্য উচ্চতা, অকল্পনীয় শ্রেষ্ঠত্ব। আমাদের আদি পিতা আদম (আ.)-এর তওবা কবুলের শর্ত ছিলেন তিনি, জান্নাতে বা আরশে মহান প্রভুর নামের সঙ্গে যার বরকতমণ্ডিত নাম সম্মানের সঙ্গে উৎকীর্ণ রয়েছে তিনিই হলেন আল্লাহতায়ালার পরম বন্ধু, প্রিয় নবী ও রাসুল মুহাম্মদ (সা.)। তার সম্মান, মর্যাদা ও সৌন্দর্যের দ্যুতি সব ভাষা-বর্ণনার ঊর্ধ্বে। দুনিয়া-বিখ্যাত কবিরা যখন তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন, তাদের কেউই সেই প্রশংসার কিনার দেখতে পাননি, প্রশংসার দিগন্তে পরিতৃপ্তির যবনিকা টানতে পারেননি; পরিশেষে আত্মসমর্পণ করেছেন। কলম ভেঙে ফেলার কথা বলেছেন, কাগজ টুকরো টুকরো করে ফেলার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। এসবের মূল কারণ একটাই। আর তা হলো, তারা কোনোদিন মহানবী (সা.)-এর যোগ্য প্রশংসা করে কোনো পরিণতি টানতে সক্ষম হবেন না; তার অভূতপূর্ব সৌন্দর্যের ব্যাখ্যা-বর্ণনায়ও কোনো ইতি টানতে পারবেন না।

জগদ্বিখ্যাত সুফি কবি ফরিদুদ্দিন আত্তার বলেছেন, তিনি হচ্ছেন উভয় জাহানের সর্দার এবং রাসুলগণের মধ্যে সর্বশেষ, যদিও তিনি পৃথিবীতে এসেছেন সবার শেষে কিন্তু তিনিই ছিলেন সৃষ্টিকুলের প্রথম গৌরবোজ্জ্বল মহিমা। আরেকজন কবি রাসুলের শ্রেষ্ঠত্ব ও মর্যাদার প্রশংসা করে আর কুলাতে না পেরে পরিশেষে একবাক্যে বলেছেন, আল্লাহর পরে যদি তাবত সৃষ্টি-জগতে কেউ মহান থেকে থাকে তাহলে অতি সংক্ষেপে বলতে গেলে সেই মহানত্বের অপূর্ব নিদর্শন হচ্ছেন আপনি মহানবী (সা.)। পারস্যের মানবতাবাদী কবি ও সমাজতাত্ত্বিক সাদি শিরাজি বলেছেন, চাঁদ লজ্জাবনত মুহাম্মদ (সা.)-এর সৌন্দর্যের কাছে, বিশাল সার্ভ বৃক্ষও পারে না অতিক্রম করতে মহানবী (সা.)-এর বিশালত্ব, তার সুমহান মর্যাদার সামনে মহাকাশও অতি তুচ্ছ আর বাস্তবিকই শ্রেষ্ঠত্ব ও মহত্ত্বের সব দৃষ্টিকোণ থেকে তিনি পরিপূর্ণ। তাই মহানবীর (সা.) শানে আযিমে সাদি গেয়েছেন তার জীবনের শ্রেষ্ঠ নাত ‘বালাগাল উলা বিকামালিহি কাশাফাদ্দুজা বিজামালিহি হাসুনাত জামিউ খিসালিহি সাল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি’। অর্থাৎ, মানবতার শীর্ষে তুমি হলে উপনীত, রূপের ছটায় দূর করলে আঁধার ছিল যত, সকল গুণের সমাবেশে চরিত্র মহান, তুমি ও তোমার বংশ ‘পরে অজস্র সালাম।
মহানবী (সা.) স্বয়ং বলেছেন, তোমাদের মধ্যে সে ব্যক্তিই উত্তম, যার চরিত্র-মাধুরী সর্বাপেক্ষা উত্তম। মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব ও মহত্ত্বের এই মাপকাঠিতে মহানবী (সা.) শতভাগ উত্তীর্ণ ছিলেন। তার চারিত্রিক-মাধুর্য ও ব্যক্তিসত্তার উন্নত গুণাবলি সম্বন্ধে পৃথিবীর মানুষেরা আর কী বা মূল্যায়ন করবে, স্বয়ং পৃথিবীর স্রষ্টা তার সর্বোন্নত চরিত্রের প্রশংসা করেছেন, সনদ দিয়েছেন। মহান আল্লাহ বলেন, হে রাসুল! আপনি সর্বোৎকৃষ্ট চরিত্রের ওপরে প্রতিষ্ঠিত আছেন। সুতরাং মানবীয় গুণাবলির সব দিক থেকে মহানবী (সা.) ছিলেন সর্বশ্রেষ্ঠ। তাই মর্যাদাগত অবস্থানের দিক থেকেও মহান আল্লাহ তাকে নজিরবিহীন সম্মাননা দান করেছেন। অকপটে মহান আল্লাহ তার প্রিয় হাবিবের ফরমাবরদারি সম্বন্ধে ঘোষণা দিয়েছেন, তোমাদের রাসুল যা কিছু নিয়ে এসেছেন, জীবন পরিচালনার তাগিদে সেগুলো আঁকড়ে ধরো; আর বাস্তব জীবনে যেসব করতে নিষেধ করেছেন, সেগুলো থেকে নিজেদের বিরত রাখো। একজন মহামানবকে কতটুকু ক্ষমতায়িত করেছেন আরশের অধিপতি স্বয়ং আল্লাহপাক, তা উপরোক্ত আয়াতের মাধ্যমে অনুধাবন করা যায়। মহানবী (সা.) যে বিষয়ে ইতিবাচক ইশারা করেছেন তা উম্মতের জন্য ফরজ হয়ে গেছে। যে বিষয়ে নিষেধ করেছেন, তা উম্মতের জন্য হারামে পরিণত হয়েছে। কোনো বিষয়ে মহান আল্লাহর দরবারে হাত তুলেছেন, তা সঙ্গে সঙ্গেই দরবারে এলাহিতে মকবুল হয়ে গেছে। এমনকি নামাজের মধ্যে তারই আকাঙ্ক্ষার বাস্তবায়ন করতে গিয়ে মহান আল্লাহ কেবলা পরিবর্তনের মতো ঐতিহাসিক ঘটনারও মঞ্চায়ন করে দিয়েছেন। অবিশ্বাসীদের নানা অপ্রাসঙ্গিক কথায় যখন তার মন খারাপ হয়ে যেত, তখনই তিনি পারলৌকিক জীবনের সুপেয় পানির প্রবহমান ঝর্ণাধারা ‘কাউসার’ প্রাপ্তির সুসংবাদ লাভ করেছেন। তার সমালোচকদের নির্বংশ করে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। প্রকারান্তরে মহানবী (সা.)-এর যশ-খ্যাতি পৃথিবীতে ক্রমশ আরও প্রসার ঘটবে, নব আলোকে ‘তারিফে নবুবি’ বিকশিত হবে এবং তার নাম গোটা বিশ্বময় সম্মানের সঙ্গে ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হবে। বাস্তবে তাই হচ্ছে। এমন কোনো মুহূর্ত নেই যখন পৃথিবীর কোথাও না কোথাও এই আওয়াজ ভেসে আসছে না- ‘আশহাদু আন্না মুহাম্মাদার রাসুলুল্লাহ’। অর্থাৎ, আজানের ধ্বনিতে মহানবী (সা.)-এর নবুয়ত ও রেসালতের অমোঘ ঘোষণা সর্বদা সব স্থানে ঘোষিত হচ্ছে। এ যেন মহান আল্লাহর বাণীর বাস্তব প্রতিফলন আমরা দেখতে পাচ্ছি, যেখানে বলা হয়েছে- হে রাসুল! আমি আপনার প্রশংসার দিগন্তকে উন্মোচিত করে দেব; গোটা পৃথিবী আপনার প্রশংসায় ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হবে। বস্তুত সেই মহামানবের সর্বোন্নত অবস্থান, মর্যাদাগত শ্রেষ্ঠত্ব আর সৃষ্টিলোকের জন্য তার রেখে যাওয়া জীবনাদর্শ বিশ্ব-ইতিহাসের পাতা থেকে কখনোই মুছে ফেলা সম্ভব নয়। বরং এ ধরনের প্রতিটা অপপ্রয়াসের পর আবারও নতুন করে, ভিন্ন আলোকে, স্বতন্ত্র পরিক্রমায়, মানব সভ্যতার প্রয়োজনেই তাকে আবশ্যক- এ চিরন্তন বাস্তবতা দৃঢ়ভাবে অনুভূত হবে ইনশাআল্লাহ্‌।

লেখক-ড. মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন

অধ্যাপক,
ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সৌজন্যে সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: