1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন

বিজয় দিবসের ভাবনা

  • Update Time : বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১২৫ Time View

২০২০ খ্রীষ্টাব্দের ১৬ ডিসেম্বর আমাদের স্বাধীনতার ৪৯ তম বর্ষ। ২০২১ খ্রীষ্টব্দ হচ্ছে আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব পালন করার বছর। ২০২০ এ আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ পালন করছি। যদিও কভিট ১৯ অতিমারির কারনে নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যদিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, বাঙ্গালী জাতিসত্বা ও জাতিরাষ্ট্র নির্মাণের প্রধান পুরুষ, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপনে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনা থাকলেও সেই উৎসাহ ও উদ্দীপনার মাধ্যমে পালন করা সম্ভব হয়নি বিশ্বব্যাপী চলমান স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অতিমারি কভিট ১৯ এর কারনে। বরঞ্চ বছর শেষে  এক অনভিপ্রেত বির্তকের সৃষ্টি করেছে কিছু উগ্রপন্থীরা  বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণকে কেন্দ্র করে। এই প্রেক্ষাপটে বিজয় দিবসের তাৎপর্য ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষিত ও ভবিষ্যতের করনীয় নিয়ে নতুন করে ভাবা উচিৎ। 

বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত কিন্তু ব্যাপক জনগোষ্ঠীর কাছে অপরিচিত একটি শব্দ হচ্ছে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’আমি ব্যক্তিগত ভাবে শিক্ষিত, অশিক্ষিত, রাজনৈতিক কর্মী ও নেতা  সহ সমাজের নানা স্তরের মানুষের সাথে আলোচনা  করে দেখেছি হয় তারা বিষয়টা সম্পর্কে কোন ধারণাই রাখেন না, আর যারা কিছুটা ধারণা রাখেন- তাদের কাছেও   ধারণাটা স্পষ্ট নয়। এই যদি হয় বাস্তবতা, তবে সে সমাজে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন কি একটি দুরূহ কাজ নয়? আর এই চেতনা বাস্তবায়নে যাদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করার কথা ছিল সেই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সুশীল সমাজের নানা রকম সীমাবদ্ধতা,   আপোষকামিতা ও ব্যক্তিগত স্বার্থপরতার কারনে সেই কাজটি যথাযথ ভাবে করেননি বলেই ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’ আজও আমাদের সমাজে একটি স্লোগান হিসেবেই থেকে গেছে। এই দায় কার আজ আর আমরা সেই বির্তকে যেতে চাই না। বির্তক আর বিভক্তিতে আমাদের সমাজ এমনিতেই এক নাজুক অবস্থায় পৌঁছে গেছে। অথচ এমনটি হবার কথা ছিলনা। কথাছিল যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশ হবে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, মানবিক মর্যাদা সম্পন্ন, বৈষম্যহীন, সাম্য ভিত্তিক একটি মানবিক রাষ্ট্র। আর এই চেতনাই হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। 

আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের ঘোষণাপত্রে স্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে-

“……………..সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী বাংলাদেশের জনগণ নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রতি যে ম্যান্ডেট দিয়েছেন সে ম্যান্ডেট মোতাবেক আমরা, নির্বাচিত প্রতিনিধিরা, আমাদের সমবায়ে গণপরিষদ গঠন করে পারষ্পরিক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশকে একটি সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্র ঘোষণা করছি এবং এর দ্বারা পূর্বাহ্নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা অনুমোদন করছি; ……………………..”

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন দেশের হাল ধরেই এই চেতনা বাস্তবায়নের জন্য এক সর্বব্যাপী পরিকল্পনা  গ্রহণ করলেন। যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো ৭২ সালের সংবিধান। সংবিধানের মূলনীতি ও ঘোষণা পত্রে তার সুস্পষ্ট উল্লেখ আছে –

“আমরা বাংলাদেশের জনগণ, ১৯৭১ খ্রীস্টাব্দের মার্চ মাসের ২৬ তারিখে স্বাধীনতার ঘোষণা করিয়া জাতীয় মুক্তির জন্য ঐতিহাসিক সংগ্রামের মাধ্যমে স্বাধীন ও সার্বভৌম  গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত করিয়াছি;আমরা অঙ্গীকার  করিতেছি যে, যে সকল মহান আদর্শ আমাদের বীর জণগণকে জাতীয় স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধে আত্মনিয়োগ ও বীর শহীদদিগকে প্রাণোৎসর্গ করিতে উদবুদ্ধ করিয়াছিল – জাতীয়তাবাদ , সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতার সেই সকল আদর্শ এই সংবিধানের মূল নীতি হইবে;…………..”

একটি অসাম্প্রদায়িক, মানবিক মর্যাদা সম্পন্ন,বৈষম্যহীন ও সাম্যভিত্তিক মানবিক রাষ্ট্রের অবয়ব হচ্ছে সে রাষ্ট্রের সংবিধান। কারন সংবিধানের মাধ্যমেই রাষ্ট্রের অভিপ্রায় ব্যক্ত হয়। ইহাতেই বিধৃত ও ঘোষিত হয় রাষ্ট্রের লক্ষ্য সমূহ।

তাই ১৯৭২ সালের সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি উল্লেখ পূর্বক বলা হয়, ” জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা – এই নীতিসমূহ এবং তৎসহ এই নীতিসমূহ হইতে উদ্ভূত এই ভাগে বর্ণিত অন্য সকল নীতি রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি বলিয়া পরিগণিত হইবে।”

অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় মূলনীতির ভিত্তি হবে উপরে উল্লেখিত ৪টি মূলনীতি। সংবিধানে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা থাকার পরও যে রাষ্ট্রীয় মূলনীতিটি নিয়ে সবচে বেশী রাজনীতি করা হয়েছে এবং সরল ধর্মপ্রাণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্ত ছড়ানো হয়েছে তা হচ্ছে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’নিয়ে। অথচ সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতার ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে-

” ধর্মনিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা। – ধর্মনিরপেক্ষতা নীতি বাস্তবায়নের জন্য 

(ক) সর্ব প্রকার সাম্প্রদায়িকতা,

(খ) রাষ্ট্র কর্তৃক কোন ধর্মকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান,

(গ) রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ধর্মীয় অপব্যবহার, 

(ঘ) কোন বিশেষ ধর্ম পালনকারী ব্যক্তির প্রতি বৈষম্য বা তাহার উপর নিপীড়ন, বিলোপ করা হইবে।

উপরোক্ত বক্তব্যের কোথাও ধর্মহীনতা বা ধর্মপালনে কোন বাধা নিষেধ আরোপ করা হয়নি বরঞ্চ প্রতিটি মানুষ যাতে স্বাধীন ভাবে নিজের মত ধর্মকর্ম পালন করতে পারে তার নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। অথচ হীন রাজনৈতিক স্বার্থে ধর্মনিরপেক্ষতাকে ধর্মহীনতা বলে প্রচার চালিয়ে ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষকে এখনো বিভ্রান্ত করার নিরন্তর অপচেষ্টা চলছে। এমনকি সংবিধানের ৪১ (১) (ক) উপধারায় বলা হয়েছে, ” প্রত্যেক নাগরিকের যে কোন ধর্ম  অবলম্বন, পালন বা প্রচারের অধিকার রহিয়াছে;” এ থেকেই বুঝা যায় ৭২ সালের সংবিধানে ধর্ম পালনের কি  অবাধ স্বাধীনতা দেয়া হয়েছিল।

শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারনে যাতে কেউ ধর্মকে ব্যবহার করতে না পারে সে ব্যাপারে রাষ্ট্র যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে উল্লেখ করেছে। তার কারন হচ্ছে পাকিস্তানের চব্বিশ বছর বাঙ্গালীদের শোষণ ও শাসন করা হয়েছে ধর্মের নামে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় ধর্মকে ব্যবহার করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে। তাই ধর্ম নিয়ে ভবিষ্যতে স্বাধীন বাংলাদেশে যাতে কেউ কোন অপকর্ম করতে না পারে তাই এই বিধানের অবতারণা।

ধর্ম নিতান্তই ব্যক্তির একান্ত বিশ্বাস ও চর্চ্চার বিষয়। তাইতো বলা হয়, ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার। যেদিন রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে আলাদা করা হয়েছে সেদিন থেকেই রাষ্ট্র চিন্তায় আধুনিক কালের যাত্রা শুরু। আর তাইতো একটি আধুনিক ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ নির্মাণের জন্য অতীতের ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করার তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে বঙ্গবন্ধু ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করেন।

কিন্তু জাতি হিসেবে আমাদের দুভার্গ্য এই যে, ১৯৭৫ খ্রীষ্টাব্দে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকেও হত্যা করা হয়। শুরু হয় বাংলাদেশের পশ্চাৎপদ পথচলা। পাকিস্তানি ভাবধারায় রাষ্ট্রের ইসলামীকরণ। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ডের পর পরই বাংলাদেশ বেতার হয়ে যায় পাকিস্তানি আদলে রেডিও বাংলাদেশ, জাতীয় স্লোগান জয় বাংলার স্থান দখল করে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্তদের মুক্তি দেয়া হয় কারাগার থেকে, ধর্মীয় রাজনীতি করার সুযোগ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। সেখান থেকেই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটির সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিনত হবার পথে যাত্রা শুরু করে। সংবিধানে বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম যুক্ত করে সে প্রক্রিয়াকে আরো বেগবান করে তোলা হয়।অথচ এর কোন প্রয়োজনই ছিলনা। সংবিধানে এই দুটো ধারা সংযোজনের মাধ্যমে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কি উপকার করা হয়েছে জানিনা তবে ধর্মকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের হীন চক্রান্তের লক্ষ্য স্পষ্ট হয়েছে মাত্র। এই ধারা গুলো সংযোজনের পূর্বে তারা যেমন মুসলমান ছিলেন এগুলো সংযোজনের পরও তারা তেমনি মুসলমান আছেন৭৫ এর ১৫ই আগষ্টের পর  থেকে  ৯০এর ডিসেম্বর পর্যন্ত যারাই রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলেন তাদের সবাই সম্মিলিত ভাবে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে রাষ্ট্রের ইসলামী করনের এই ধারাকে পৃষ্টপোষোকতা করেছেন নানা ভাবে তাদের রাজনৈতিক স্বার্থে। ফলশ্রুতিতে রাষ্ট্রের অসাম্প্রদায়িক অবয়ব অনেকাংশে অস্পষ্ট হয়ে পড়ে এবং সাম্প্রদায়িক চরিত্র বিপুল আবেগে সমাজের নানা স্তরে ছড়িয়ে পড়ে। ক্রমান্বয়ে বাঙ্গালীর চিরায়ত সংস্কৃতির নানা অনুষঙ্গ সমাজ থেকে বিতাড়িত হয়ে  যায় বা দূর্বল হয়ে পড়ে। এমনকি যে সুফিবাদের মাধ্যমে এই বাংলায় ইসলামের আবির্ভাব ও প্রভাব বিস্তার তারও অনেক বিধি বিধান নানা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে। যাত্রাগান আজ আমাদের সমাজে নিষিদ্ধ এক সংস্কৃতি । অথচ এই যাত্রা গানই ছিল বাঙ্গালীর হাজার বছরের সংস্কৃতি এক অন্যতম অনুসর্গ। বাউল গানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিরুদ্ধচারণ। বোমা ফোটে রমনার বটমূলের ১বৈশাখের অনুষ্ঠানে। বাংলা নববর্ষ উৎযাপিত হয় রাষ্ট্রীয় প্রহরায়। চারুকলার শুভা যাত্রার বিরুদ্ধে সোচ্ছার সমাজের এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। একে একে বাঙ্গালী সংস্কৃতির নানা উপাদান, উপকরণ আর উপাচারে নানা আঘাতে আজ ক্ষত বিক্ষত ও রক্তাত। অথচ বাঙ্গালীত্ব ও মুসলমানিত্ব দুটোই সমান সত্য। এই দুইয়ের মধ্যে কোন বিরোধ নেই। এই প্রসঙ্গে ড.মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ একটি উক্তি স্মরণ করা যেতে পারে।     ১৯৪৮ সালে পূর্ব পাকিস্তান সাহিত্য সম্মেলনের মূল সভাপতির ভাষণে তিনি বলেন, ‘আমরা হিন্দু বা মুসলমান যেমন সত্য, তার চেয়ে বেশি সত্য আমরা বাঙালী। এটি কোনো আদর্শের কথা নয়; এটি একটি বাস্তব কথা। মা প্রকৃতি নিজের হাতে আমাদের চেহারায় ও ভাষায় বাঙালিত্বের এমন ছাপ মেরে দিয়েছেন যে তা মালা-তিলক-টিকি-তে কিংবা টুপি-লুঙ্গি-দাড়িতে ঢাকবার জো টি নেই।’ 

কিন্তু আমাদের এখানে বাঙ্গালী  সংস্কৃতির উপর আঘাত ক্রমান্বয়ে তীব্র থেকে তীব্রতর হয়েছে রাজনৈতিক নেতৃত্বের পৃষ্ঠপোষকতায় বা আপোষকামিতায়, বুদ্ধিজীবি ও সংস্কৃতি কর্মীদের ভীরুতায়। অথচ প্রবল বৈরী পরিবেশেও পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী যখন রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধ করতে চেয়েছে বাঙ্গালী তখন কেবল তার প্রতিবাদই করেনি বিপুল উৎসাহে, প্রবল প্রতিবাদে দ্বিগুন আগ্রহে তা পালনও করেছে। কিন্তু আজকের বাংলাদেশের চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। আজ মৌলবাদী চিন্তার পাশে মুক্তচিন্তা বড় অসহায়। এই অসহায়ত্ব এসেছে ব্লগার হত্যা থেকে শুরু করে বিজ্ঞান মনস্ক অভিজিত, সাহসী লেখক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হুমাহুন আজাদের হত্যাকান্ডের হাত ধরে। 

ভয় ও আপোষকামিতার এই সুযোগে মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি ও তাদের উত্তর প্রজন্ম আজ এতটাই বেপোরোয়া হয়ে উঠেছে যে, বঙ্গবন্ধুর প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশে তাঁর ভাস্কর্য স্থাপনের শুধু বিরোধিতাই করছেনা, ভাস্কর্য নির্মিত হলে বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দেবার হুমকি দেবার পাশাপাশি তাঁর ভাস্কর্য ভেঙ্গেও ফেলছে। কি বিচিত্র এই দেশ! 

এই দেশে বার বার ধর্মকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। এ দেশের সহজ সরল মানুষের ধর্মের প্রতি অবিচল বিশ্বাসকে পূঁজি করে এক শ্রেণির  ধর্মব্যবসায়ীরা ধর্মকে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করেছে।

ইদানিং স্বরূপে ও স্বভাবে এই তথাকথিত ব্যক্তিরা ধর্মের নামে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য সমাজে  বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত আছে। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙ্গার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের অস্তিত্বের উপরই আঘাত হেনেছে। তাই আজ সময় এসেছে বাঙ্গালী সংস্কৃতির ধারাকে বেগবান করার, যে সুফিবাদের  মাধ্যমে এ দেশে ইসলামের আবির্ভাব ও প্রভাব বিস্তার,  ইসলাম ধর্মের সেই অনন্য সার্বজনীন সৌন্দর্য ও মহত্বকে ব্যাপকভাবে প্রচার করার, শান্তি ও মানবতার ধর্ম ইসলামের মৌলিক দর্শন প্রচারের মাধ্যমে স্বার্থন্বেষীদের হাত থেকে ইসলাম ধর্মকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের রাহু মুক্ত করার সাথে সাথে সামাজিক আন্দোলনে   সর্বস্তরের মানুষের সক্রিয় অংশ গ্রহণের মাধ্যমে  একটি অসাম্প্রদায়িক, বৈষম্যহীন  মানবিক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে বাংলাদেশ বিনির্মান করার আন্দোলনকে বেগবান করা  আজকের বিজয় দিবসে এটাই হোক আমাদের শপথ।

তাহলেই কেবলমাত্র ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে নিহত, আহত ও বীরঙ্গনাদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা নিবেদন অর্থবহ হবে।

মনোরঞ্জন তালুকদার

সহকারী অধ্যাপক

জগন্নাথপুর সরকারি কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: