হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় এক চিকিৎসক ও শিক্ষক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন নারীসহ চারজন। শুক্রবার সকাল ১০টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।  নিহত চিকিৎসক জগন্নাথপুর পৌর এলাকার বাসুদেব বাড়ি আবাসিক এলাকার জামাতা। জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী প্রজেশ দের মেয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক পূর্না দে এর স্বামী।

হবিগঞ্জ থানা সূত্রে জানা যায়, একটি সিএনজি অটোরিকশায় কয়েকজন যাত্রী হবিগঞ্জ থেকে শায়েস্তাগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

পথিমধ্যে কলিমনগর মোড়ে পৌঁছালে বিপরীতমুখী একটি পিকআপের সঙ্গে অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার দিপংকর পোদ্দার (২৯)। তিনি হবিগঞ্জের  মাধবপুর উপজেলার ছাতিয়ান গ্রামের চন্দন পোদ্দারের ছেলে। দুই বছর আগে বিয়ে করেন জগন্নাথপুরের মেয়ে পূর্না দে কে।

অপর নিহত ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার ছিপান গ্রামের স্কুলশিক্ষক জিলহাস উদ্দিন (৫৪)।আহত হন হবিগঞ্জ শহরে কুরেশনগর আবাসিক এলাকার নজরুল ইসলাম (৫৯), তার স্ত্রী মমতাজ বেগম (৫৪), শহরতলির বহুলা এলাকার স্বপন (৩০) ও  গফরগাঁও উপজেলার মশাকলি গ্রামের কাওছার (১৭)।

জানা যায়, নিহত দিপংকর পোদ্দার বৃহস্পতিবার রাতে হাসপাতালে তার দায়িত্ব শেষ করেন। সকালে শায়েস্তাগঞ্জে অপেক্ষারত অসুস্থ মাকে নিয়ে সিলেটে যাওয়ার কথা ছিল তার। তার ভাই জানান, ৭/৮ মাস আগে তিনি সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। তার স্ত্রী প্রণতি পূর্ণা একজন চিকিৎসক।

দুই বছর আগে বিয়ে করেন দিপংকর। অর্চা নামে নয় মাসের এক শিশু কন্যা রয়েছে তাদের। ডা. দিপংকর পোদ্দারের একমাত্র বোন সুস্মিতা পোদ্দারও সিলেটের একটি বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে মা হাসপাতালের বারান্দায় বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন।অন্যদিকে স্বামী হারিয়ে স্ত্রী পুর্ণা কন্যাকে নিয়ে বিলাপ করতে দেখে অনেকেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। নিহতদের স্বজনদের কান্নায় হাসপাতালের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে।

শায়েস্তাগঞ্জ থানার ওসি অজয় চন্দ্র দেব জানান, নিহত শিক্ষক জিলহাস উদ্দিনের ছেলে আবু হানিফ বানিয়াচং থানার একজন কনস্টেবল। ছেলেকে দেখতে তিনি বানিয়াচং গিয়েছিলেন। শুক্রবার বাড়িতে ফেরার জন্য রওনা হয়েছিলেন তিনি। মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনায় জগন্নাথপুরে শোকের ছায়া নেমে আসে।