1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন

বিষাক্ত-বিশ ও আমাদের যাতনা- আমিনুল হক সিপন

  • Update Time : শুক্রবার, ১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৬৩ Time View

২০২০ সাল। শতাব্দীর একটি বিষাক্ত বছর। কোনো বছরকে  বরণ করার সময় আমরা কেউই ভাবিনা যে, বছরটি মানব জাতির জন্য কতটা যন্ত্রনাদায়ক হবে বা কতটুকু কল্যাণকর হবে। তবুও আলোর প্রত্যাশায় পেছনের সব জীর্ণ-শীর্ণতা ফেলে নতুনকে বরণ করে নিতে হয়। নতুবা প্রকৃতির নিয়মানুবর্তিতা নীতি তার সিদ্ধানে অটল রবে। ।

কে জানতো, সদ্য পেছনে ফেলা ২০২০ সনে অদৃশ্য এক বেদনায় নীল হয়ে যাবে সমগ্র পৃথিবী, পুরো মানুবজাতি? কোভিড-১৯ এর বিষাক্ত ছোবলে তখন আমরা হারিয়ে ফেলবো আমাদের প্রিয়জনদের, অর্থনীতি সংকটের দিকে ধাবিত হবে পুরো ধরা?  ২০২০ সালে করোনার প্রকোপে দীর্ঘ লকডাউন, বিশ্ব অর্থনীতি মন্দাভাব। সেসময় দীর্ঘমেয়াদি  বন্যার কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়ে জনদুর্ভোগ সহ নানা সংকট ও ছিল। এমনকি অসংখ্য লোকদের ব্যক্তিগত সমস্যার মধ্যে ও করোনায় আমরা হারিয়েছি দেশবরেণ্য অনেক গুণীজন,কৃতিব্যক্তি, আত্মীয়-স্বজন এবং আপনজনদের। স্রষ্টার রহমতে আমরা অনেকে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছি।  এসময় স্রষ্টা তুলে নিয়েছেন আমাদের দেশবরেণ্য আলেম-ওলামা ও পীর মাশায়েক অনেককে। যা ইতিপূর্বে ঘটেনি। বিভিন্ন কারণে ২০২০ সাল মহাকালের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।
এইতো, ২০২০ সালে করোনা ভাইরাস থামিয়ে দিয়েছিল বিশ্ব অর্থনীতির চাকা। করোনার  ভয়াবহ থাবায় উন্নত ও আধুনিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্রগুলোরও চরম বিপর্যস্ত অবস্থা দেখেছি আমরা। প্রতিদিন করোনার কাছে হার মেনে বিশ্বের উন্নত দেশ গুলোর হাজার হাজার জীবনপ্রদীপ নিভে যায়। বলা যায়, ২০২০ সাল আমাদের জন্য অভিশাপ।  বছরের অধিকাংশ সময় পৃথিবীবাসির জীবন কাটে দুঃচিন্তা ও আতঙ্কের মধ্যে। অত্যান্ত ছোঁয়াছে এই ভাইরাসটি যখন একটি অঞ্চলে ধরা পড়ে; তখন কেউই ভাবেনি যে, খুব অল্প সময়ে পৃথিবীকে গ্রাস করে ফেলবে। যা অদ্যাবধি অব্যাহত আছে। পৃথিবী থেকে কবে নিমূল হবে এবং আমরা কবে পুরোদমে স্বাভাবিক জীবন পাবো- তাও কারো জানা নেই। হ্যাঁ, হতে পারে এটি আঘাতপ্রাপ্ত পৃথিবীর দীর্ঘশ্বাস। পৃথিবীর এই দীর্ঘশ্বাস হয়তো আমাদের কৃতকর্মের ফল। পৃথিবীর নিয়ন্ত্রক ক্ষুব্ধ- তাই হতে পারে এ কারনে নানাবিধ বিষে ভরপুর ২০২০ সাল। সারা পৃথিবীর মতো বাংলাদেশে ও একদিকে অদৃশ্য কোভিড- ১৯ এ উদ্বেগ আতংক; আর অন্যদিকে দীর্ঘমেয়াদী লকডাউনে বন্ধ হয়ে যায় দেশের কল-কারখানা, ব্যাপক ধ্বস নামে পোশাকশিল্পে। ব্যবসায়ী,শ্রমজীবী সহ দৈনন্দিন আয়ে যারা জীবন-জীবিকা নির্বাহ করেন- তাদের কঠিন দূর্ভোগ। এমনিতে আয় নেই। মরার উপর খাঁড়ার ঘা। প্রতিমাসে ভাড়াটিয়াদের বাড়ি ভাড়া গুনতে হয়। দোকানদারদের দোকান ভাড়া না দিয়ে উপায় নেই। পেছনের সংকট ও ব্যবসায় মন্দাভাবের কারণে অসংখ্য দোকানদাররা এখনও দোকান ভাড়া যোগান দিতে হিমশিম খাচ্ছেন। অনেকের চাকরি ছুটে যায়। এমতাবস্থায় এমন মানবেতর জীবন নিয়ে অগনিত লোকজন শহর ছেড়ে গ্রামে চলে যান। শিক্ষার্থীরা আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে সরকার বন্ধ করে দেয় দেশের শিক্ষালয়।যা অদ্যাবধি কার্যকর রয়েছে। করোনার প্রভাবে পরিবারগুলোর আয় কমে যাওয়ায় বেকারত্ব ওই সময়ে দশ গুণ বেড়ে যায়। আড়াই শতাংশ বেকারত্ব হার পৌঁছে দাঁড়ায় ২২ দশমিক ৩৯ শতাংশ। অর্থনীতি খুলতে শুরু করায় গেল বছরের জুলাই থেকে বেকার পরিস্থিতির উন্নতি হয়। সেপ্টেম্বরে এসে বেকারত্বের হার আবার ৪ শতাংশে নেমে আসে। এত দ্রুত বেকার পরিস্থিতির উন্নতি হওয়া নিয়ে প্রশ্ন আছে। কারণ করোনার প্রথম তিন-চার মাস যত বেকার হয়েছেন, তাঁদের অনেকেই এখনো কাজ পাননি। চাকরির বাজার এখনো আগের পর্যায়ে ফিরে আসেনি।
পিপিআরসি ও বিআইজিডি গবেষণায় বলা হয়েছে, করোনার প্রথম দিকে অর্থাৎ এপ্রিল-জুন মাসে ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দীর্ঘ মেয়াদে ছুটি ও লকডাউনের প্রভাবে গত এপ্রিল মাসে গরিব মানুষের আয় ৭৫ শতাংশ কমেছে। আর গরিব হওয়ার ঝুঁকিতে থাকা মানুষের আয় ৬৫ শতাংশ কমেছে।
তাইতো অনেকে এই নিদারুণ বেদনার সালকে ‘বিষ’ বলে আখ্যায়িত করছেন।
চলতি অক্টোবরে প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের আরেক সাউথ এশিয়া ইকোনমিক ফোকাস প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাকালে বাংলাদেশে গরিব লোকের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। দারিদ্র্য হার সাড়ে ১২ শতাংশ থেকে বেড়ে ২২ শতাংশ হয়েছে। যাঁরা দৈনিক ১ দশমিক ৯০ ডলার আয় করতে পারেন না, তাঁদের দরিদ্র হিসেবে ধরে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাময়িক হিসাবে, বিদায়ী অর্থবছরে (২০১৯-২০) ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে বলে জানিয়েছে। চলতি অর্থবছরে ৮ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরেছে সরকার। এমন অবস্থায় সব দাতা সংস্থাই বলছে, এত প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব নয়। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) করোনায় মানুষের আয়-ব্যয়ে কী ধরনের প্রভাব পড়েছে, তা জানতে গত সেপ্টেম্বরে একটি জরিপ করেছে। সেই জরিপে দেখা গেছে, করোনায় আয় কমেছে ২০ শতাংশ। করোনার আগে গত মার্চে প্রতি পরিবারে মাসিক গড় আয় ছিল ১৯ হাজার ৪২৫ টাকা। অর্থনীতির চাকা মন্থর গতিতে চলার পাশাপাশি
করোনার নীল ছোঁয়ায় কত প্রিয়জনকে ভারী নিঃশ্বাস নিয়ে মৃত্যু যন্ত্রনা আমরা কেউ কেউ খুব কাছ থেকে দেখেছি। অথচ অদৃশ্য এই ঘাতক মহামারীর ভয়ে  ভালবাসার হাত বাড়াতে পারিনি। মুহ্যমান মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে দেখেছি মৃত্যুর সেই করুন দৃশ্য। ২১শে ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত সংকলিত তথ্য অনুযায়ী পৃথিবী ব্যাপী এই ভাইরাসে সংক্রমিতের সংখ্যা ৭ কোটি ৬৮ লক্ষ আর মৃতের সংখ্যা ১৭ লক্ষের ও অধিক।  শ্বাসতন্ত্র ও ফুসফুস আক্রমণকারী এই ভাইরাস পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে কেড়ে নিয়েছে বহু জীবন, বহু মানুষ দীর্ঘমেয়াদী শারীরিক জটিলতার শিকার হয়ে এখনও এই রোগের সাথে যুদ্ধ করছেন। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, চীনের উহানে গত বছরের ডিসেম্বরে করোনা ভাইরাসের আবির্ভাবের পর এ পর্যন্ত এটি অন্তত ১৭ বার মিউটেশনের মাধ্যমে নিজেকে পরিবর্তন করেছে। অতি সম্প্রতি ভাইরাসটির নতুন এবং আরও বেশি সংক্রামক আরেকটি জাত আত্মপ্রকাশ করার পর নতুন করে দেশে দেশে উদ্বেগ ছড়িয়েছে। ইতিপূর্বে পৃথিবীতে অনেক মহামারী হানা দিয়েছিল; কিন্তু করোনা মহামারীর কারণে মৃত্যুহার,জনদূর্ভোগ ও অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের রেকর্ড ভঙ্গ করে দিয়েছে।
বলা হচ্ছে, ঊনিশশো তিরিশের দশকে যে বিশ্ব মহামন্দা পরিস্থিতি (যা গ্রেট ডিপ্রেশন নামে পরিচিত) তৈরি হয়েছিল, তার পর এই প্রথম করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে আবার বড় রকমের ধ্স নেমেছে। অনেকের ধারণা, মহামারি হয়তো নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে, কিন্তু বিশ্ব অর্থনীতির যে মারাত্মক ক্ষতি এর মধ্যে হয়ে গেছে, তা কাটাতে বহু বছর লেগে যাবে। মোট কথা, বিশ্ব অর্থনীতির মেরুদন্ড ভেঙে দিয়েছে করোনা ভাইরাস। অর্থনীতির স্বাভাবিক প্রবাহ বন্ধ হয়েছে। মানুষের চলাচল ব্যাহত হয়েছে। অনেক মানুষ কর্মহীন হয়েছে। কাজের সুযোগ ও পরিধি সংকুচিত হয়েছে। অনেক মানুষকে বেকারত্বের জ্বালা সহ্য করতে হচ্ছে, হবে।
সমগ্র পৃথিবীতে আবার ও চলছে করোনার দ্বিতীয় তান্ডবলীলা। প্রতিদিন দেশে দেশে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। আরো লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর সাড়ি।
এই ক্ষান্তিলগ্নে প্রভূ পৃথিবী থেকে উঠিয়ে নিলেন দেশের অসংখ্য বুজুর্গ আলেম-ওলামা ও পীর মাশায়েখকে। যা আমাদের জন্য অশনি সংকেত। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য-আল্লামা শাহ আহমদ শফী,আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী,তাবলিগের প্রবীণ মুরব্বি মাওলানা মোজাম্মেল হক,আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ,আল্লামা আবদুল মোমিন ,আল্লামা শাহ তৈয়ব, আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী,আল্লামা শাহ মুহাম্মদ ইদ্রিস,মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী , মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারী,অধ্যক্ষ গোলাম সারোয়ার সাঈদী প্রমুখ।
২০২০ যে দুর্যোগ চাপিয়ে দিয়ে বিদায় নিচ্ছে, ২০২১ তা কতটুকু সামলে উঠতে পারবে, সেটাই দেখার বিষয়।  অতঃপর  সুপ্রভাত ২০২১, শুভ নববর্ষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: