1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন

স্বাগত২০২১

  • Update Time : শুক্রবার, ১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৭২ Time View

আহমাদ সেলিম::
বদলে গেছে বিশ্ব। একটি ভাইরাস পঙ্গু করে দিয়েছে মানুুষের জীবনঘনিষ্টতা, বিশ্ব অর্থনীতি। সকল শ্রেণি-পেশার প্রহর কাটছে চরম বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে। আর সেই ভাইরাসের নাম করোনা মহামারি। বলা যায়, ২০২০ বছরটি ছিলো চরম নিষ্ঠুর। এই নিষ্ঠুরতার ভেতর দিয়ে আমরা আরেকটি নতুন বছরে পদার্পণ করছি। শুধু বাংলাদেশ নয়, নতুন বছরের কাছে বিশ্বের প্রতিটি মানুষের আশা, পৃথিবী করোনামুক্ত হবে, নতুন বছরে থেমে যাবে সব বিষাদ, শান্ত হবে ধরিত্রী। বিদায় ২০২০, স্বাগত ২০২১।
চরম অনিশ্চয়তার বছর ছিলো ২০২০। সেই বছরের অধিকাংশ দিন ছিলো কান্নাভেজা। ঘরে ঘরে ছিলো আর্তনাদ, উৎকন্ঠা। পৃথিবীর এমন দেশ পাওয়া যাবেনা, যে দেশে করোনা কারো ক্ষতি করেনি। পৃথিবীর অন্যসব দেশের মতো বাংলাদেশও অনেক মানুষকে হারিয়েছে। ইতালির লোম্বার্দি শহর করোনার প্রাদুর্ভাবে শ্মশানে পরিণত হয়। শহরটির মেয়র ওরলান্দো গোলদি গত মার্চে বলেছিলেন, ‘যুদ্ধের চেয়ে খারাপ অবস্থা’। পরবর্তীতে আমরা দেশে দেশে ইতালির মতো চিত্র দেখেছি। দেখেছি মানুষের হাহাকার। যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে আর দেখা যায়নি। আমরা এই নিষ্ঠুর গল্পের পরিবর্তন প্রত্যাশা করছি ২০২১ সালে। আমাদের বুক ভরা আশা, শত বাধা প্রতিকূলতার মধ্যে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ, সবহারা মানুষ ঘুরে দাঁড়াবে, জেগে উঠছে নি:স্ব মানুষগুলোর জীবনের চর। আমরা বিশ্বাস করি, করোনার কারণে আর কোনো শিশু এতিম হবেনা। আর কোনো সংসার অভিভাবক হারা হবেনা। আজকের ভোরটি হবে সম্ভাবনার, আজকের আলো হবে আশীর্বাদের।
ইতিহাসের অন্যতম প্রাণঘাতি মহামারি করোনা। প্লেগ বিশ্বের মোট জনসংখ্যার এক-চতুর্থাংশকে নিশ্চিহৃ করে ফেলে। আর ১৯১৮-১৯ সাল পর্যন্ত স্প্যানিশ ফ্লুতে মারা যান অন্তত ৫ কোটি মানুষ। ৩ কোটি ৩০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে এইডসে। কিন্তু চীনের উহান শহর থেকে সূত্রপাত হওয়া করোনা হচ্ছে আরো যন্ত্রণাদায়ক। করোনা খুবই করুণ, বেদনাদায়ক। সবচেয়ে বেদনাদায়ক বিষয় হচ্ছে, মারা যাওয়া ব্যক্তিকে শেষবারের মতো দেখার সুযোগও পায়নি অনেক পরিবার।
করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে পৃথিবীর নানা দেশে লকডাউন আরোপ করা হয়। বন্ধ করে দেওয়া হয় মানুষের চলাচলের সুযোগ। এ কারণে গরিব মানুষের সংখ্যা আরও বেড়েছে, গরিবেরা আরও গরিব হয়েছে। ১০০ কোটির বেশি শিশু স্কুলে যেতে পারেনি। তবে বছর শেষে আশা হিসেবে দেখা দিয়েছে করোনার টিকা। ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশে টিকাদান শুরু হয়েছে। সেই পথ ধরে শিগগিরই বাংলাদেশেও টিকাদান শুরু হবে, বাংলাদেশও করোনামুক্ত হবে। প্রতিটি মানুষ নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখবে। ২০২১ বছরে এর চেয়ে বড় কোনো চাওয়া নেই।
করোনা ছাড়াও ২০২০ বছরটা আরো অনেক আলোচিত, বহু লোমহর্ষক ঘটনার সাক্ষী। সিলেটের এম.সি কলেজ হোস্টেলে স্বামীকে আটকে রেখে নববধূকে ধর্ষণের ঘটনাটি ছিলো আলোচনার টেবিলে। বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে তরুণ রায়হানের মৃত্যুটি প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বিবেকবান মানুষকে। করোনার মতো কঠিন সময়ে যখন দেশে দেশে মানবতার কিছু দৃষ্টান্ত পাথর হৃদয়কে নাড়া দিয়েছে, সেই সময়েও আমাদের দেশের দুর্নীতি তার নিজস্ব গতিতেই চলেছে। মানবতার সংকটকালে অনেকেই লোভ সামলাতে পারেনি। ঘটেছে রিজেন্ট ও সাহেদ কেলেঙ্কারি, উচ্চমূল্যে সুরক্ষাসামগ্রী কেনার মতো ঘটনা। যা ক্ষত-বিক্ষত করেছে সমস্ত জাতিকে। আবার অন্যদিকে একজন ভিক্ষুকের সারাজীবনের সঞ্চিত লক্ষাধিক টাকা করোনায় বিপর্যস্ত অসহায় মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দেবার মতো ঘটনাও আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে।
অন্য সবার মতো সাংবাদিকতার জন্যেও ২০২০ ছিলো একটি শোচনীয় বছর। জাতিসংঘের বিজ্ঞান, শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর হিসাবে ২০২০ বছরে ৫৯ জন গণমাধ্যমকর্মী নিহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে চারজন নারীও আছেন। বাংলাদেশও বাদ যায়নি, প্রাণ দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিক ইলিয়াস হোসেন। এই হিসাব ২৩ ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত।
করোনাকালে নানা নিষ্ঠুরতার মধ্যেও কিছু ভালো খবর আমাদের নতুন করে বাঁচার, নতুন স্বপ্নে হাঁটার প্রেরণা দেয়। জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা দিয়েছে। এর আগে বিশ্বব্যাংক নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। আইসিটি থেকে স্যাটেলাইট বিশ্বে উত্তরন তথ্যপ্রযুক্তি ও জ্ঞানভিত্তিক বিশ্বব্যবস্থায় মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সুযোগ উন্মোচিত করেছে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নিজস্ব অর্থায়নে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটারের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর বাস্তবায়ন। যা আমাদের নিয়ে গেছে অনন্য উচ্চতায়।
অন্যদিকে সরকারের তাৎপর্যপূর্ণ উন্নয়ন সাফল্য ও প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বস্বীকৃতি প্রশংসার দাবি রাখে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের সেরা পাঁচজন নীতিবান নেতার একজন, বিশ্বের ৫০ জন মহান নেতার মধ্যে দশম। বিশ্বের শীর্ষ ১০০ চিন্তাবিদের তালিকায় রয়েছেন তিনি।
এটা চরম সত্য যে, করোনা ভাইরাস গোটা পৃথিবীকে নতুন এক বাস্তবতায় দাঁড় করিয়েছে। সেই বাস্তবতার ভেতর দিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে, স্বপ্ন দেখতে হবে, গাইতে হবে জীবনের জয়গান। একই সাথে মনে রাখতে হবে, করোনা সহজে যাবার নয়। করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়ার পরও কোনো মানুষ আবার যে করোনায় আক্রান্ত হবেনা, তারও কোনো স্পষ্ট বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে না। এজন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ গবেষকরা মাস্ককে টিকার চেয়েও শক্তিশালী হিসেবে গণ্য করছেন। সেই বাস্তবতায় মাস্ক এবং স্বাস্থবিধি মানার ব্যাপারে আমাদের উদাসীন হবার উপায় নেই। সবমিলিয়ে নতুন বছরের কাছে আমাদের প্রত্যাশা অনেক। অনেক স্বপ্ন গোটা বিশ্বের। আমরা বিশ্বাস করি, নতুন বছরে বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবে। আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আবার মুখর হবে। শিল্প কারখানা, চা-শ্রমিক থেকে শুরু করে মাঠের কৃষক সবাই ঘুরে দাঁড়াবেন। আমরা আরো মানবিক হবো, নতুন করে সমবেত কন্ঠে উচ্চারণ করবো-‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’।(সিলেটের ডাক থেকে সংগৃহীত)

facebook

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: