বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১১:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল

অবিশ্বাস্য জয় !

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৫ মে, ২০১৭
  • ৭৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: এর চেয়ে নাটকীয়ভাবে শেষ হতে পারত না মিসবাহ-উল হকের ক্যারিয়ার। পাকিস্তানের ইতিহাস যে অধিনায়ক মিসবাহকে আজীবন মনে রাখবে, তা কিনা ঠিক হলো শেষ ৬ বল বাকি থাকতে! শেষ বিকেলে একের পর এক নাটকের জন্ম দিতে দিতে শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানকেই জয়ী বানিয়ে দিয়েছে ডমিনিকা টেস্ট। আর এই জয়ে মিসবাহ হয়ে গেলেন প্রথম পাকিস্তানি অধিনায়ক, ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে যিনি টেস্ট সিরিজের ট্রফি নিয়ে ঘরে ফিরতে পারছেন। ১৯৫৮ সাল থেকে এই একটা ট্রফি অধরাই ছিল পাকিস্তানের।

ম্যাচ শেষে মিসবাহ আর ইউনিস খানকে কাঁধে তুলে নিয়েছেন সতীর্থরা। অধরা ট্রফিটাতে চুমু এঁকে মিসবাহ দিয়েছেন বিদায়ী ভাষণ। আর তাতে বলেছেন, ‌‘পরম করুণাময় আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই যা কিছু আমি পেয়েছি, আমার ক্যারিয়ারজুড়ে যা কিছু সাফল্য, এমনভাবে শেষ হওয়া; এর চেয়ে বেশি কিছু কল্পনা করাও কঠিন।’
১৯৫৮ সালে পাকিস্তানের প্রথম ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরটাই জন্ম দিয়েছিল অনেক নাটকীয় ঘটনার। ব্রিজটাউনে সফরের প্রথম টেস্টে ৯৭০ মিনিট ব্যাটিং করেছিলেন হানিফ মোহাম্মদ, যা এখনো দীর্ঘতম ইনিংসের রেকর্ড হয়ে আছে। সিরিজের তৃতীয় টেস্টে গ্যারি সোবার্স খেলেছিলেন ৩৬৫ রানের ইনিংস। ব্রায়ান লারা পরে যে রেকর্ডটা ভেঙে দেন।
অনেক কিছুই হয়েছে, শুধু একটা জিনিস হয়নি। কী এক জাদুটোনায় পাকিস্তান কিছুতেই ক্যারিবীয় সফরে টেস্ট সিরিজ জিততে পারছিল না। অনেকবারই সম্ভাবনা জাগিয়ে শেষ পর্যন্ত হতাশ হয়ে ফিরেছে। কাল তো মনে হচ্ছিল সেই জাদুচক্রে আবারও পড়ে গেছে পাকিস্তান। পাকিস্তান জয়ের একদম কাছে যায়, তখনই এমন কিছু ঘটে, মনে হয় অদৃশ্য আড়াল থেকে কেউ কলকাঠি নাড়ছে। সে-ই ঠিক করে রেখেছে, পাকিস্তান জিতবে না! মাঠে যত কিছুই ঘটুক না কেন!
রোস্টন চেজ একপ্রান্ত আগলে রেখেছিলেন অপরাজিত সেঞ্চুরি করে, এক তিনিই জীবন পেয়েছেন তিনবার। একবার আউট হয়ে সাজঘরে ফেরার পথ থেকে আবারও উইকেটে এসেছেন তৃতীয় আম্পায়ারের নো বল ঘোষণা বাঁচিয়ে দিয়েছে বলে! কী বলবেন একে!
শেষ দুই সঙ্গীকে নিয়েই চেজ ভালোমতো পার করে দিচ্ছিলেন শেষ সেশনটা। এমনকি বিশু ফেরার পরও শ্যানন গ্যাব্রিয়েল অন্য প্রান্তে নির্ভরতা দিচ্ছিলেন। একবার স্লিপে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে গেছেন অবশ্য। আরেকবার আম্পায়ার আউট দিলে রিভিউ নিয়ে বাঁচলেন। শেষ উইকেটটা পেতে পেতেও যখন পাচ্ছে না পাকিস্তান, সেই সময় গ্যাব্রিয়েল স্টাম্পের বাইরের বল টেনে খেলতে গিয়ে হয়ে গেলেন প্লেড অন! বোল্ড, অলআউট ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দিনের খেলা তখন মাত্র এক ওভার বাকি। শেষ বলটা গ্যাব্রিয়েল ঠেকাতে পারলেন শেষ ওভারটা সামলানোর ভার পেতেন ৩৬৬ মিনিট ধরে উইকেটে থাকা চেজ!
শেষ বয়সে নাটকীয় পুনর্জন্মের ক্যারিয়ারটা মিসবাহ শেষ করলেন সিনেমার শেষ দৃশ্যের মতোই। নানা উত্থান-পতন শেষে নায়ক-নায়িকার মধুর মিলন যেন! এই ঘোর থেকে বের হতে অনেক সময় লাগবে মিসবাহ। তাঁর মতো শান্ত, স্থৈর্য নিয়ে কথা বলা নিপাট ভদ্রলোক মানুষটিও রোমাঞ্চে কাঁপছিলেন। বললেন, ‘এটা স্রেফ অবিশ্বাস্য! শেষ সেশনে এত ঘটনা ঘটছিল! একের পর এক ক্যাচ পড়ছিল, আবেদন, আউট হয়েও নো বলে বেঁচে যাওয়া। একসময় তো মনেই হচ্ছিল আমরা হয়তো জিতব না!’
নিজের বিদায়ী ভাষণে বলেছেন, ‘নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে আমি তৃপ্ত। আর কী শেষটাই না হলো! এর চেয়ে ভালোভাবে শেষ হতে পারত না। দল, সতীর্থ সবাইকে ধন্যবাদ জানাই তারা যেভাবে আমাকে আর ইউনিসকে বিদায় জানাল। ইউনিসকেও স্পেশাল ধন্যবাদ, ওর পরবর্তী জীবনের জন্য শুভকামনা। ওর সঙ্গে এ ছিল আমার দারুণ দীর্ঘ এক যাত্রা।’
যে যাত্রার শেষটা হলো ‘হ্যাপি এন্ডিং’ দিয়ে। ঠিক যেন সিনেমার শেষ দৃশ্য! সূত্র: এএফপি, ক্রিকইনফো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24