অলৌকিক ভাবে বেঁচে থাকা এম এ মান্নান এবার দেশের পরিকল্পনার দায়িত্বে

বিশেষ প্রতিনিধি: ১৯৬৬ সালে হেলিকপ্টারে করে রাজশাহীতে যাচ্ছিলেন এম এ মান্নান।
ফরিদপুরে গিয়ে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে ২৪ যাত্রীর মধ্যে ২৩ জন মারা যান। অলৌকিকভাবে একমাত্র বেঁচে যান তিনি। এরকম অনেক অলৌকিক সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে যাওয়া এম এ মান্নান পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন।গতকাল পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন।
সুনামগঞ্জের হাওর ব্যাষ্টিত দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ডুংরিয়া গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সন্তান এম এ মান্নান এর বাবা ছিলেন মৌলভী আরফান আলী।
শৈশবে গ্রামের বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করে মামার বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার ধারণে চলে যান তিনি সেখানে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেন। মামা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি হয়ে আলমপুর চলে গেলে তাঁর সঙ্গে তিনিও চলে আসেন এবং আলমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পাঠশালা সমাপ্ত করেন। এসময় তাঁর বাবা মারা যান। ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হন সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ে। সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত এই স্কুলেই পড়াশুনা করেন। এসময় সহপাঠী এক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিনি জানতে পান ‘পিএফ স্কুল আছারগোদায় মেধাবী শিক্ষার্থী নেওয়া হবে’।
সহপাঠিদের সাথে ফরম আনতে তিনি সিলেট যান। ওখানে যাওয়ার পরে একজন অফিসারের (বাঙালি) সাথে দেখা করে ফরম সংগ্রহ করে পূরণ করে তা জমা দেন
দুই মাস পরে চিঠি এলো সিলেট এমসি কলেজে গিয়ে লিখিত পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে
পাস করেন। এক মাস পর চট্টগ্রামে গিয়ে মৌখিক এবং সাইকোলজিক্যাল পরীক্ষা দেন। সিলেট থেকে একমাত্র তিনি উত্তীর্ণ হন। সেখান থেকে ও লেভেল পাশ করে দেশে এসে পিসিএস ও সিএসপি পরীক্ষা দেন। দুই পরীক্ষাতেই ভালো ফলাফল করেন। সিএসপিতে পূর্ব পাকিস্তানে প্রথম হন। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে সরকারী চাকরিতে যোগ দেন।দীর্ঘ চাকুরী জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্হানে চাকুরী করে যুগ্ম সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নির্বাচন কমিশনে দায়িত্ব পালনের কারনে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।২০০০ সালে বিএনপি নির্বাচন কমিশন থেকে তাকে প্রত্যাহার করে। ২০০৩ সালে বিসিকের চেয়ারম্যান হিসেবে অবসরে যান। ২০০৫ সালে আবদুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর উপ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে আলোচনায় চলে আসেন। অল্পভোটে চারদলীয় জোট প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে আওয়ামী লীগে যোগ দেন।২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে প্রথম বারের মতো সাংসদ নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ ডন এর সাথে লড়াই করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আবারো জয়লাভ করে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রীর দায়িত্ব পান।
পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে এম এ মান্নান বলেন,দেশের সুবিধা বঞ্চিত পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠী কে এগিয়ে নেয়ার পাশাপাশি জনকল্যানে কাজ করা হবে পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের প্রত্যয়।

তিনি বলেন,হাওর অঞ্চলের সুবিধা বঞ্চিত
গ্রাম থেকে ওঠে নিম্মবৃত্ত পরিবারের সন্তান পাকিস্তানের শ্রেষ্ঠ স্কুলে পড়াশুনা করে বের হয়ে আসাও একটা মিরাক্যল।’
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় বেঁচে থাকা অলৌকিক ঘটনা উল্লেখ করে বলেন,
এটা আমার জীবনের সবচেয়ে বড় ঘটনা। দুর্ঘটনার পর ঢাকার হলি ফ্যামেলি হাসপাতালে আমাকে ভর্তি করা হয়। পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর মোনায়েম খান দেখতে আসলেন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রথম আমার ছবিসহ খবর বের হয়।

এমএ মান্নান বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তার কন্যার সাথে কাজ করতে পেরে আনন্দিত।

এমএ মান্নাননের স্ত্রী জুলেখা মান্নান ঢাকার হলিক্রস কলেজের অবসর প্রাপ্ত অধ্যাপক। তাঁর দুই ছেলে- মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে ডা. সারাহ্ আফরিন মান্নান যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। স্বামী প্রকৌশলী। ছেলে লন্ডন স্কুলে অব ইকোনমিক্স থেকে অর্থনীতিতে পাস করে একটি ব্যাংকের পরিচালকের দায়িত্বে আছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন, সভাপতি চাঁন মিয়া, সেক্রেটারী সাহারুল

» জগন্নাথপুর ক্রিকেট এসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় সৈয়দপুর ইয়াংম্যান ক্রিকেট ক্লাবকে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ

» সামাদ আজাদের ৯৭ তম জন্মবার্ষিকী তাঁর জন্মভূমি জগন্নাথপুরে পালিত

» জগন্নাথপুরে ঘোড়দৌড় সম্পন্ন: মায়ের আদেশকে হারিয়ে রাজমুকুট চ্যাম্পিয়ান, উৎসুক মানুষের ঢল

» যে ১০ ক্যাটাগরির আবেদনকারী কানাডার যেতে পারবে সহজে

» কাদেরকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বললেন ফখরুল

» ১২ বছর দল না করলে উপজেলায় মনোনয়ন দেবে না আ. লীগ

» জগন্নাথপুরে ভারতীয় নিষিদ্ধ বিড়িসহ র‌্যাবের হাতে আটক-১

» সবার সাথে বন্ধুত্বসুলভ সম্পর্ক রেখেই আমরা চলতে চাই: ড.মোমেন

» সংসদ নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ ও বির্তকিত: টিআইবি

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

অলৌকিক ভাবে বেঁচে থাকা এম এ মান্নান এবার দেশের পরিকল্পনার দায়িত্বে

বিশেষ প্রতিনিধি: ১৯৬৬ সালে হেলিকপ্টারে করে রাজশাহীতে যাচ্ছিলেন এম এ মান্নান।
ফরিদপুরে গিয়ে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে ২৪ যাত্রীর মধ্যে ২৩ জন মারা যান। অলৌকিকভাবে একমাত্র বেঁচে যান তিনি। এরকম অনেক অলৌকিক সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে যাওয়া এম এ মান্নান পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন।গতকাল পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন।
সুনামগঞ্জের হাওর ব্যাষ্টিত দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ডুংরিয়া গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সন্তান এম এ মান্নান এর বাবা ছিলেন মৌলভী আরফান আলী।
শৈশবে গ্রামের বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করে মামার বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার ধারণে চলে যান তিনি সেখানে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেন। মামা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি হয়ে আলমপুর চলে গেলে তাঁর সঙ্গে তিনিও চলে আসেন এবং আলমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পাঠশালা সমাপ্ত করেন। এসময় তাঁর বাবা মারা যান। ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হন সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ে। সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত এই স্কুলেই পড়াশুনা করেন। এসময় সহপাঠী এক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিনি জানতে পান ‘পিএফ স্কুল আছারগোদায় মেধাবী শিক্ষার্থী নেওয়া হবে’।
সহপাঠিদের সাথে ফরম আনতে তিনি সিলেট যান। ওখানে যাওয়ার পরে একজন অফিসারের (বাঙালি) সাথে দেখা করে ফরম সংগ্রহ করে পূরণ করে তা জমা দেন
দুই মাস পরে চিঠি এলো সিলেট এমসি কলেজে গিয়ে লিখিত পরীক্ষা দিয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে
পাস করেন। এক মাস পর চট্টগ্রামে গিয়ে মৌখিক এবং সাইকোলজিক্যাল পরীক্ষা দেন। সিলেট থেকে একমাত্র তিনি উত্তীর্ণ হন। সেখান থেকে ও লেভেল পাশ করে দেশে এসে পিসিএস ও সিএসপি পরীক্ষা দেন। দুই পরীক্ষাতেই ভালো ফলাফল করেন। সিএসপিতে পূর্ব পাকিস্তানে প্রথম হন। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে সরকারী চাকরিতে যোগ দেন।দীর্ঘ চাকুরী জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্হানে চাকুরী করে যুগ্ম সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নির্বাচন কমিশনে দায়িত্ব পালনের কারনে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।২০০০ সালে বিএনপি নির্বাচন কমিশন থেকে তাকে প্রত্যাহার করে। ২০০৩ সালে বিসিকের চেয়ারম্যান হিসেবে অবসরে যান। ২০০৫ সালে আবদুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর উপ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে আলোচনায় চলে আসেন। অল্পভোটে চারদলীয় জোট প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে আওয়ামী লীগে যোগ দেন।২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে প্রথম বারের মতো সাংসদ নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ ডন এর সাথে লড়াই করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আবারো জয়লাভ করে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রীর দায়িত্ব পান।
পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে এম এ মান্নান বলেন,দেশের সুবিধা বঞ্চিত পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠী কে এগিয়ে নেয়ার পাশাপাশি জনকল্যানে কাজ করা হবে পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের প্রত্যয়।

তিনি বলেন,হাওর অঞ্চলের সুবিধা বঞ্চিত
গ্রাম থেকে ওঠে নিম্মবৃত্ত পরিবারের সন্তান পাকিস্তানের শ্রেষ্ঠ স্কুলে পড়াশুনা করে বের হয়ে আসাও একটা মিরাক্যল।’
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় বেঁচে থাকা অলৌকিক ঘটনা উল্লেখ করে বলেন,
এটা আমার জীবনের সবচেয়ে বড় ঘটনা। দুর্ঘটনার পর ঢাকার হলি ফ্যামেলি হাসপাতালে আমাকে ভর্তি করা হয়। পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর মোনায়েম খান দেখতে আসলেন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রথম আমার ছবিসহ খবর বের হয়।

এমএ মান্নান বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তার কন্যার সাথে কাজ করতে পেরে আনন্দিত।

এমএ মান্নাননের স্ত্রী জুলেখা মান্নান ঢাকার হলিক্রস কলেজের অবসর প্রাপ্ত অধ্যাপক। তাঁর দুই ছেলে- মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে ডা. সারাহ্ আফরিন মান্নান যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। স্বামী প্রকৌশলী। ছেলে লন্ডন স্কুলে অব ইকোনমিক্স থেকে অর্থনীতিতে পাস করে একটি ব্যাংকের পরিচালকের দায়িত্বে আছেন।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।