বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি

আজ বিয়ানীবাজার পৌরসভার নির্বাচন,লড়াই হবে ত্রিমুখি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৯৫ Time View

বিয়ানীবাজার সংবাদদাতা :: বিয়ানীবাজার পৌরসভার বহুল প্রত্যাশীত নির্বাচন আগামীকাল। রাত পোহালেই ভোট দিবেন ভোটাররা। ১৮.১৭ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের পৌরসভার মোট ভোটার ২৫ হাজার ২৪ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১২ হাজার ৪শ’৩ জন এবং মহিলা ভোটার ১২ হাজার ৫শ’ ৯৪ জন। পুরুষের চেয়ে ১৪৬ জন মহিলা ভোটার বেশী এখানে। পৌরসভার প্রথম এই নির্বাচনে বিয়ানীবাজার পৌরসভার মানুষ দর্ঘি ১৭ বৎসর পর পাচ্ছেন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি।

পৌরসভার প্রথম এ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের মেয়র পদ প্রার্থী মো. আব্দুস শুকুর, বিএনপি মনোনীত আবু নাসের পিন্টু, বর্তমান প্রশাসক জগ প্রতিকের সতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী মো. তফজ্জুল হোসেন, জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত সতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী মাওলানা জমির হোসেন, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব, জাসদ সমর্থিত শমসের আলম, সতন্ত্র নারিকেল গাছ প্রতিকের প্রার্থী মো. বদরুল হক ও আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী আমান উদ্দিন। এই ৮জন প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এরমধ্যে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমান উদ্দিন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মো. আব্দুস শুকুরকে সমর্থন জানিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

এদিকে বহুল প্রত্যাশীত এই নির্বাচনে বিয়ানীবাজারের তরুণ ও সচেতন মহল পরিবর্তন চাইলেও বয়স্ক ও বহিরাগতদের কথা নেই পরিবর্তনের আভাস। অভিমত জানিয়ে তরুণ ভোটার সালেহ আহমদ শাহিন, ওয়াহিদুর রহমান, আবিদ হেসেন জাবেদ, ফয়েজ আহমদ, জিহান আহমদ, সাইনুল আবেদীনের মত তরুণ ভোটাররা বলছেন, আমরা পরিবর্তন চাই। আমরা নোংরা ও আবর্জনার মধ্যে বসবাস করতে আর চাই না। আমাদের বলতেও এখন লজ্জা লাগে আমরা বিয়ানীবাজার পৌরসভার বাসিন্দা। আমরা এই গ্লানি মুছতে চাই। আমরা পৌরসভার উন্নয়ন চাই। তারা বলেন, আধুনিক ও পরিচ্ছন্ন পৌরসভা যিনি গঠন করতে পারবেন আমরা থাকেই বেঁছে নেবো।

আর মো. রফিক উদ্দিন, জুয়েল আহমদ, নুরুল ইসলাম শিপু’র মতে, বর্তমান প্রশাসক একজন বিজ্ঞ মানুষ। বিগত সময়ে বিভিন্ন কারণে তিনি কাজ করতে পারেন নি, এবার নির্বাচিত হলে তিনি তাঁর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বিয়ানীবাজার পৌরসভাকে আধুনিক করতে পারবেন। ধারণা করা হচ্ছে, শেষমেষ নির্বাচনী ত্রিমুখী লড়াই হবে আওয়ামীলীগের আব্দুস শুকুরের নৌকা, বিএনপি’র আবু নাসের পিন্টুর ধানের শীষ ও জগ প্রতিকের সতন্ত্র তফজ্জুল হোসেন’র মধ্যে। তবে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব ও জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত মাওলানা জমির হোসেনও দেখাতে পারেন চমক।

আর প্রার্থীরা বলছেন, আমরা নির্বাচিত হলে পৌরসভাকে একটি আধুনিক ,পরিচ্ছন্ন ও মডেল পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলবো। যেখানে থাকবে না কোন দুর্গন্ধ আর ময়লা আবর্জনা।

এ বিষয়ে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী মো. আব্দুস শুকুর বলেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখা, পৌর এলাকার রাস্তাঘাট, স্বাস্থ্য,শিক্ষা, সুপেয় পানি, স্যানিটেশন ব্যবস্থাসহ ১৭টি বিষয়ে উন্নয়নমূলক কাজ করবো। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, ২৫ শে এপ্রিল ভোটাররা তাকে বিপুল ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন’।

তাঁর মূল প্রতিদ্বন্ধি বিএনপি মনোনীত আবু নাসের পিন্টু বলেন, ‘বিয়ানীবাজার পৌরবাসী পরিবর্তন চায়। বিয়ানীবাজার পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন ও আধুনিক পৌরসভা গঠনে আগামী ২৫ শে এপ্রিল পৌরবাসী আমার ধানের শীষ প্রতিকে ভোট দিয়ে এই পৌরসভাকে একটি আধুনিক পৌরসভা হিসেবে গড়ে তোলার সুযোগ দিবেন, এটাই আমার প্রত্যাশা’।

জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত রেলইঞ্জিন প্রতিকের মেয়র পদপ্রার্থী কাজী মো. জমির হোসাইন বলেন, আমি ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছি, বেশ সাড়া পাচ্ছি সেটাই হলো বড় কথা। যদি সুষ্টু ভোট হয় তাহলে ইনশাআল্লাহ আমি জয়লাভ করবো।

অপর মেয়র প্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব বলেন, বিগত সময়ে আমি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ছিলাম এবং সর্বশেষ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আমাকে সুকৌশলে পরাজিত করা হয়েছে। তবে এবার আমার মোবাইল ফোন প্রতিকের জয় কেউ ছিনিয়ে নিতে পারবে না। যেদিকে যাচ্ছি সেদিকেই ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আশা করি, বিয়ানীবাজার পৌরসভার নির্বাচনে জয়লাভ করা আমার জন্য কঠিন কিছু হবে না।

মশাল প্রতিকের মেয়র প্রার্থী শমসের আলম বলেন, নির্বাচনে জয় পরাজয় বড় কথা নয় অংশগ্রহণ করাই বড় বিষয়। আমি আমার দল থেকে নির্বাচনে অঙশগ্রহণ করছে সেটাই বড় বিষয়। তবে আমি আমার জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। আর তফজ্জুল হোসেন’র অভিমত জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি পৌরসভার সর্বস্তুরের মানুষের সমর্থনে প্রার্থী হয়েছি। আমি আশা করি পৌরবাসী আমাকে নিরাশ করবেন না। তবে আমার জয় ছিনিয়ে নেয়ার যারা চেষ্টা করছেন, তারা কখনো সফল হবেন না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24