বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ন

আপনার সন্তান কী কলেজে পড়াশুনা করছে?

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১১ জুলাই, ২০১৮
  • ৪৮ Time View

অধ্যক্ষ মো.আব্দুল মতিন::
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্সে অধ্যয়ন কালিন একদিন এলাকার এক বন্ধুর সাথে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে বন্ধুর এক আত্মীয়া মহিলা কে দেখতে গিয়েছিলাম। মহিলার প্রথম সন্তান হবে। বুক ভরা আশা; পেট ভর্তি অসহনীয় বেদনায় কাতর। স্বামী গ্রামের অশিক্ষিত যুবক।বড় ভাই বিদেশ আছেন সুবাধে টাকার সমস্যা নেই। শাশুড়ি ছেলের বউয়ের সাথে আছেন । নতুন সেলাই করা কাঁথা, নবজাতকের অপেক্ষায় গাইনি ওয়ার্ডে অপেক্ষমান।সকালে ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছেন। সিট না থাকায় ফ্লোরে খুব কষ্টে। আমি জিজ্ঞেস করলাম ওয়ার্ডের ডাক্তাররা কি দেখতে আসেন নাই? ভর্তির কাগজ পত্র,রিপোর্ট কি জমা দিয়েছেন? শাশুড়ির সরাসরি উত্তর আমরা ভর্তি হয়েছি সকালে। ডাক্তার কে আর বলার কী অাছে; আমরাতো হসপিটালে রোগী ভর্তি করেছি! আমি বুঝতে পারলাম গাইনি ওয়ার্ডে এত মহিলার ভিড়ে এই প্রসূতির কোন কাগজপত্র হয়তো ওয়ার্ডে জমা নেই। কর্তব্যরতা ডাক্তার কে আমার পরিচয় দিয়ে রোগীর অবস্থা জানতে চাইলাম। প্রশ্ন করলাম সকালে যে রোগী ভর্তি হয়েছেন, বেদনায় মৃত প্রায়,তাঁর সন্তান ডেলিভারির বিষয়ে আপনারা কী ব্যবস্থা নিয়েছেন? ডাক্তার অবাক হয়ে ওয়ার্ডের কাগজ পত্র দেখে বললেন সকালে ভর্তি হয়েছেন এই নামে কোন রোগীর তথ্য তো আমাদের কাছে নেই। চলুন তো দেখে আসি। বললাম, চলেন। ডাক্তার এসে দেখে বললেন, ও মাই গড, এই রোগীর গর্বের বাচ্চাতো মরার উপক্রম। তাঁকে তো অনেক আগেই…. ! রোগীর ভর্তির সমুদয় কাগজ পত্র কার কাছে? স্বামী বললেন, এই তো আমার পকেটে আছে! আপনারা ভর্তির কাগজপত্র আমাদের দেননাই আমরা কিভাবে তথ্য জানব? তাকে বললাম রোগী আমার আত্মীয়। প্লিজ, টেইক কুইক ইনিশেয়েটিভ।
ডাক্তার নার্সকে ডেকে দ্রুত রোগীকে ও.টি তে নেবার জন্য নির্দেশ দিলেন। বললেন, ডোন্ট ওরি প্লিজ । ওকে ডক্টর, থ্যাংকস বলে বাইরে অপেক্ষায় চলে গেলাম। যা হোক ও.টি’র কাজ শেষে নার্স একটি ছেলে সন্তান নিয়ে হাজির। বলছেন, মিষ্টি খাবান; বকশিস দেন। বললাম, ঠিক আছে। মায়ের অবস্থা কেমন? ভাল আছেন। ছেলে পেয়ে সন্তানের বাবা, দাদী খুব খুশি। নার্সের কথা মতো মিষ্টির ব্যবস্থা হলো, বকশিস ও দেওয়া হলো। একটু পর মাকে আনা হলো। আমাকে প্রথমেই মহিলা বললেন, আপনি আমার ভাই। আপনি আজকে না থাকলে আমার সব শেষ হয়ে যেতো…. । লজ্জায় পড়লাম। অপ্রস্তুত আমি ভাগনার জন্য সামর্থ মতো নতুন কাপড়ের ব্যবস্থা করলাম। মিস্টি খাবালাম। ছেলের বাপ ও দাদি বুঝতে পারলেন হসপিটালের মেঝে শুয়ে রাখার নাম শুধু ভর্তি নয়।

ঠিক এভাবে কলেজে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থী ও তাঁদের সম্মানিত অভিভাবকরা যদি মনে করেন কলেজে টাকা দিয়ে ভর্তি করে সন্তান কে রেখে দিয়েছেন তাতেই তাঁদের সন্তানদের কলেজে ভর্তির উদ্দেশ্য সফল হবে তাহলে এটা ভুল হবে। চারিদিকে অসংখ্য বেড়াজাল ছিন্ন করে সন্তানকে লক্ষে পৌছাতে অভিভাবকের দায়িত্ব অতুলনীয়। অভিভাবকের খেয়ালহীন সন্তানরা একদিন পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্রের বোঝা হবে । সেই ভয়াবহ ক্ষতি সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থী ও পরিবারকেই বহন করতে হবে ততক্ষণে অনেক দেরী হয়ে যাবে। যারা কলেজে ভর্তি হয়েছে তাঁদের কাঁচা বয়স।ভবিষ্যৎ সম্পর্কে অমানিশায় থাকা শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের খেয়াল রাখা বড় প্রয়োজন। সন্তান কার সাথে মেলা মেশা করছে? পরিবারের লক্ষ্য অর্জনে নিয়মিত কলেজে ক্লাস করছে কিনা? তাদের প্রয়োজনীয় বইপত্র আছে কিনা? শিক্ষকরা ঠিকমতো পড়াচ্ছেন কিনা। এসব খবর রাখা অভিভাবকেরই ও দায়িত্ব।
বর্তমানে ফেসবুক,সেল্ফিবাজিতেই বাচ্চারা বেশী সময় ব্যয় করছে; একাকিত্ব ও বিষন্নতায় ভোগছে। সে বিষয়ে ও অভিভাবকদের খবর রাখা আরো বেশী জরুরী। টেক্সট বুক পড়ার বাইরে শুধু ফেসবুক ছাত্রদের ভাল বন্ধু হতে পারেনা।
সবার সন্তানদের নিরাপদ জীবন ,জ্ঞান চর্চার মাধ্যমে সুন্দর ভবিষ্যৎ কামনা করছি। কলেজে শুধু ভর্তি হওয়া নয় ; উচ্চমাধ্যমিকের সফল সমাপ্তির মাধ্যমে উচ্চশিক্ষার পথ সুগম করতে আমাদের পাশাপাশি অভিভাবক হিসেবে অাপনাকে ও সন্তানের কথা ভাবতে হবে । একটি আলোকিত সন্তান হতে পারে সবার জন্য আলেকবর্তিকা।

লেখক: প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ,
শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ ও
সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ২০১৭।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24