বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ জগন্নাথপুরে আট ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষনা শেখ ফজলুল হক মনির জন্মবার্ষিকী জগন্নাথপুরে যুবলীগের উদ‌্যোগে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত

আশারকান্দি ইউনিয়ন নির্বাচনে ক্ষমতা রক্ষা ও পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে নেমেছেন বর্তমান ও সাবেক দুেই চেয়ারম্যান

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০১৬
  • ৬২ Time View

আজহারুল হক ভূঁইয়া শিশু :: আসন্ন ইউনিয়ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে শেষ মুর্হুতে লবিং আর তদবিরেই সময় কাটছে প্রার্থীদের । স্থানীয় ও জেলা পর্যায়ে লবিং অব্যাহত রেখে প্রার্থীরা এখন ঢাকায় দলের কেন্দ্রেীয় নেতাদের সাথে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দলীয় নিভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা গেছে। গতকাল উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষে তৃণমুল নেতাকর্মীর মতামতের ভিত্তিত্বে প্রার্থীর প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। উপজেলা আওয়ামলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমানের নিকট প্রার্থীদের নামে তালিকা হস্তান্তর করেছেন বলে জানা গেছে।
দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হবে এমন ঘোষনার পর থেকে প্রধান দুই দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের সাথে প্রচারনার পাশাপাশি দলীয় শীর্ষনেতাদের সাথে চালিয়ে যাচ্ছেন তদবির।
দলীয় ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, আগামী ৭ই মে উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের ন্যায় এ ইউনিয়নও ভোট গ্রহনের অনুষ্টিত হবে। নির্বাচনকে ঘীরে উৎসাহ ও উদ্দিপনা বিরাজ করছে। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থীদের প্রচারণায় সর গরম হয়ে উঠেছে পুরো ইউনিয়ন। প্রার্থীরা নিজেদের শুভেচ্ছা জানিয়ে পোষ্টার, লিফলেট, ব্যানার, ফ্যাস্টুনে পুরো ইউনিয়ন এখন সয়লাব। বিশেষ করে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্বত্র একই আলোচনা দলীয় প্রতিকে স্থানীয় নির্বাচনকে ঘিরে।
চেয়ারম্যান পদে একাধিক প্রার্থীর নাম শুনা যাচ্ছে। দলীয় প্রতিকে প্রথম বারের মতো নির্বাচন হওয়ায় সম্ভাবনা থাকায় প্রার্থী সংখ্যা বেড়ে গেছে। অনুরূপভাবে ইউপি সদস্য পদে প্রতিটি ওয়ার্ডে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন যুবলীগ ও ছাত্রলীগ ও বিএনপির যুবদল ও ছাত্রদল নেতাকর্মীরা দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করতে তৎপরতা শুরু করে দিয়েছেন।
নয়টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত আশারকান্দি ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ১৮হাজার।
চেয়ারম্যান পদে যারা নাম শুনা যাচ্ছে তাঁরা হলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বর্তমান চেয়ারম্যান আইয়ুব খান, যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল আহাদ মদরিছ মিয়া, যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবেক চেয়ারম্যান আবু ঈমানী, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আজাদ কাবেরী, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা গত ইউনিয়ণ পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারী যুবনেতা হোসাইন মোঃ রাজন, উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক যুবনেতা হামিদুর রহমান চৌধুরী বাচ্চু, ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক ফখরুল ইসলাম, বিএনপি নেতা কদ্দুছ আলী মাষ্টার। । আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের মধ্যে সাবেক চেয়ারম্যান মদরিছ মিয়া নির্বাচন করার আগ্রহ নিয়ে দেশে এসে প্রচারনা শুরু করেন বেশ কিছুদিন ধরে। অপরদিকে চেয়ারম্যান প্রাথী আবু ঈমানী প্রায় এক মাস হয় দেশে এসেছেন। নির্বাচন করার মানসিকতা নিয়ে তিনি দলীয় মনোনয়ন পেতে লবিং করছেন। মাঠে তৎপরতার পাশাপাশি জোর লবিং করছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা হোসাঈন আহমদ রাজন। এছাড়াও দল মনোনয়ণ দিলে নির্বাচন করতে আগ্রহী ইউনিয়ণ আওয়ামীলীগ সভাপতি আজাদ কাবেরী। অবশ্যই দলীয় মনোনয়ন না পেলে দলীয় প্রার্থীর পক্ষেই তিনি কাজ করবেন। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন হওয়ায় নির্বাচনে অংশ নিতে চান যুবলীগ নেতা হামিদুর রহমান চৌধুরী বাচ্ছু। ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এ ইউনিয়নে বিএনপির শক্তকোন প্রার্থী না থাকায় এখানে আওয়ামীলীগে প্রার্থীদের কেউ স্বতন্ত্র বা বিদ্রোহী প্রাথী হলে লড়াই হবে নৌকা ও স্বতন্ত্র কিংবা বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে। সম্ভাবনা রয়েছে বর্তমান চেয়ারম্যান আইয়ুব খান কিংবা সাবেক চেয়ারম্যান আবু ঈমানৗ ও আব্দুল আহাদ মদরিছ তাদের মধ্যে মুল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে। তবে নৌকা না পেলে তাদের কেউ কেউ নির্বাচনে অংশ না নিতে পারেন বলেও আলোচনা রয়েছে। বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করতে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। মাঠে সার্বক্ষনিক অবস্থান করায় তিনি ভাল অবস্থানে রয়েছেন। তাঁর সাথেই মুল প্রতিদ্বন্ধীতা করতে হবে। ইতিমধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান হিসেবে উন্নয়ন ও সরকারী সফরে বিদেশ ভ্রমন করে সফলতা অর্জন করায় ভোটারদের মধ্যে বাড়তি আগ্রহ রয়েছে তাকে ঘীরে। তিনি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় নিজের ক্ষমতা ধরে রাখতে শেষ প্রচেষ্ঠা চালাচ্ছেন। অপরদিকে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল আহাদ মদরিছ মিয়া বয়সের ভারে ভারক্রান্ত হলেও নির্বাচন করতে তিনি জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে দলীয় মনোনয়ন না পেলে তাঁর নির্বাচনে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা কম বলে তার সমর্থকরা জানিয়েছেন। অপর প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আবু ঈমানী দীর্ঘদিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করায় ইউনিয়নবাসীর সাথে কিছুটা দুরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়াও ইউনিয়নের প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হিসেবে তাদের প্রতি সাধারণ মানুষের অন্যরকম দৃষ্টি রয়েছে। তার পিতার বিরুদ্ধে রয়েছে একাত্তরের পরাজিত শক্তির সাথে সম্পৃক্ততার গুরুতর অভিযোগ। সব বিভ্রান্তি দুর করে নিজের অবস্থান সুদৃঢ করতে তিনি জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। সাবেক দুই চেয়ারম্যান আবু ঈমানৗ ও আব্দুল আহাদ মদরিছ মিয়া অর্থ বৃত্তের মানুষ হিসেবে নিজেদের অবস্থান ফিরিয়ে আনতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। (এ ইউনিয়নে বিগত দিনের নির্বাচনে ভোটারদের মধ্যে আওয়াজ ছিল ‘দিবনে মদরিছে,আর খাবাই বনে ঈমাঈনে’ এবার এরকম কোন আওয়াজ না থাকলেও কী ঘটবে তা নিয়ে ভোটাররা অপেক্ষা করছেন। বিএনপি থেকে কদ্দুছ মাষ্টার প্রার্থী হলে ধানের শীষ ও ব্যক্তি ইমেজকে কাজে লাগিয়ে ভোট টানতে পারবেন বলে বিএনপি সমর্থকরা আশা করছেন। অন্যকোন প্রার্থী হলে ধানের শীষের মর্যাদাহানি হতে পারে বলে ইউনিয়ণ বিএনপির নেতাকর্মীরা মনে করছেন। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পাশাপাশি সম্ভাব্য ইউপি সদস্য পদে যারা মাঠে রয়েছেন তারা হলেন ১ নং ওয়ার্ডে বর্তমান ইউপি সদস্য এনাম মিয়া( বিএনপি) ও সামাদ মিয়া (আওয়ামীলীগ) ২ নং ওয়ার্ডে বর্তমান ইউপি সদস্য আব্দুর রব(আওয়ামীলীগ) ও সালাম মিয়া (বিএনপি) ৩ নং ওয়ার্ডে ফজলুল হক কাবেরী (বিএনপি) আবু বক্কর (আওয়ামীলীগ) ৪ নং ওয়ার্ডে ছানু মিয়া(বিএনপি) ও আছলম উদ্দিন আওয়ামীলীগ ৫ নং ওয়ার্ডে জসিম উদ্দিন(আওয়ামীলীগ) আলাল মিয়া(বিএনপি) ৬ নং ওয়ার্ডে খায়রুল ইসলাম(আওয়ামীলীগ) ছালিক মিয়া(বিএনপি) ৭নং ওয়ার্ডে নোমান আহমদ খেলাফত মজলিস) মতিন মিয়া (আওয়ামীলীগ) ৮ নং ওয়ার্ডে ফয়জুননুর আওয়ামীলীগ ও লেচু মিয়া (বিএনপি) ৯ নং ওয়ার্ডে বকুল চন্দ্র দাস আওয়ামীলীগ ও রাশিদ আহমদ বিএনপি প্রার্থী হিসেবে মাঠে প্রচারনার পাশাপাশি দলীয় প্রতীক পেতে তৎপরতায় রয়েছেন। ইউনিয়নের প্রধান দুটি বাজার ধাওরাই বাজার ও নয়াবন্দর বাজারে ইউনিয়ণ নির্বাচনকে সামনে রেখে চলছে জোর প্রচারনা। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্বত্র ইউনিয়ণ নির্বাচনী প্রচারনা এখন তুঙ্গে। সময় যত ঘনিয়ে আসছে প্রার্থী হতে প্রবাসীদের পাশাপাশি তাদের স্বজনরাও দেশে আসতে শুরু করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24