রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

ইঁদুরের গর্তে জমানো টাকা তুলতে গিয়ে সাপের ছোবলে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৩৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
ঈদে কেনাকাটা করার জন্য ইঁদুরের গর্তে জমানো টাকা তুলতে গিয়ে সাপের ছোবলে হাসান আলী নামের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

ঈদের কেনাকাটার জন্য পাঁচ টাকার কয়েন জমিয়ে আসছিল হাসান। টাকাগুলো নিরাপদে রাখার জন্য সে তা ইঁদুরের গর্তে গোপনে রেখে দিত। গত শুক্রবার জমানো কয়েন দিয়ে ঈদের কেনাকাটার জন্য ইঁদুরের গর্তে রাখা কয়েনগুলো তুলতে গেলে গর্তে থাকা সাপ তার হাতে ছোবল দেয়।

গুরুতর অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সাপের ছোবলে আক্রান্ত শিশুর হাতের বাঁধন খুলে দিলে দ্রুত বিষ শরীরে ছড়িয়ে পড়ে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঈদের কেনাকাটার জন্য ঘরের কোণে একটি গর্তে পাঁচ টাকার কয়েন সংগ্রহ করে রাখত হাসান।

ঘটনার দিন গত শুক্রবার সকালের দিকে কয়েন বের করতে গর্তের ভেতর হাত দিলে সেখানে থাকা একটি গোখরা সাপ তার ডান হাতের আঙুলে ছোবল দেয়।

এ সময় সে চিৎকার দিলে তার মা নুর আকতারা এগিয়ে আসেন।

রশি দিয়ে তার হাত বেঁধে তাকে নেয়া হয় বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

অভিযোগ উঠেছে, ওই সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক ছিলেন সফিউল আলম। কিন্তু তার অনুপস্থিতিতে হাসানের চিকিৎসা দেন স্বাস্থ্য সহকারী আবদুল মতিন। এ সময় আবদুল মতিন এটা তেমন কিছু নয় বলে হাসানের স্বজনদের জানান। একপর্যায়ে তিনি ইঁদুরে হয়তো কামড় দিয়েছে বলেই তিনি হাতের বাঁধন খুলে দিয়ে ব্যথার ওষুধ খেতে দেন।

এ সময় স্বজনরা শিশুটিকে গোখরা সাপ কামড় দিয়েছে বললেও শোনেননি ওই স্বাস্থ্য সহকারী।

সঙ্গে সঙ্গে হাসানের জিহ্বা কালো হয়ে শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

অ্যাম্বুলেন্সে নেয়ার আগেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে হাসান।

হাসানের বড় ভাই আবু কালাম বলেন, ‘খামখেয়ালি করে ডাক্তার হাতের বাঁধন খুলে দেয়। বাঁধন না খুললে আমার ভাই মারা যেত না’।

অভিযুক্ত স্বাস্থ্য সহকারী আবদুল মতিন বলেন, ‘এমন শক্ত করে বাঁধন দেয়া ছিল, তাতে হাতের রক্ত সঞ্চালন বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম ছিল। এ কারণে বাঁধন হালকা করে দিয়েছিলাম। কিন্তু এমন যে হবে সেটা বোঝা যায়নি’।

ওই সময় দায়িত্বরত চিকিৎসক সফিউল আলমের বক্তব্য জানতে মোবাইলে ফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) মোহাম্মদ আবদুল হাই বলেন, ভুক্তভোগীদের কোনো অভিযোগ থাকলে বিষয়টি তদন্ত করে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24