শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে ব্রিটেনের থাকার পক্ষে ভোট দিন যৌথ সংবাদ সম্মেলনে রুশনারা আলী এমপি এবং মেয়র জন বিগস

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২১ মে, ২০১৬
  • ৪১ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ: বেথনাল গ্রীণ এন্ড বো আসনের এমপি রুশনারা আলী এবং টাওয়ার হ্যামলেটেসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে ব্রিটেনের থাকার পক্ষে ভোট দেয়ার আহধ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেছেন তুলনামুলক বিবেচনায় ইউনিয়নের বাইরে চলে গেলে ভালোর চেয়ে ক্ষতির পরিমান অনেক বেশী এবং নানা কারনে তা ঝুঁকিপূর্ণ। এটি আমাদের ভবিষ্য্ প্রজন্মকে অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দেবে। তাদের চাকুরীর বাজার এবং ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রকে সংকুচিত করে আনবে।

রুশনারা আলী এবং জন বিগস ১৯ মে, বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। বেথনাল গ্রীণের ক্যামব্রিজহীথ রোডে লেবার পার্টির অফিসে সংবাদ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য যে, আগামী ২৩ জুন ব্রিটেনের ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে থাকার প্রশ্নে গণভোট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্চেছ। সংবাদ সম্মেলনে রুশনারা আলী লিখিত বক্তব্যে বলেন, ব্রিটেনের ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে থাকার বহুবিধ সুবিধা রয়েছে।

সুবিধাগুলো হলো- – ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্য থাকলে গড়ে প্রতিটি পরিবারের ৪৫০ পাউন্ডের মতো সাশ্রয় হয়। এর প্রধান কারন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন হচ্চেছ বিশ্বের সব চাইতে বড় একক মার্কেট।

বিশ্বের ২৫০ টি বড় কোম্পানীর মধ্যে ১০০ টিরই গ্লোবাল অথবা ইউরোপিয়ান হেডকোয়ার্টার হচ্চেছ লন্ডনে। ব্রিটেন ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে গেলে এর পরিমান নাটকীয়ভাবে কমে আসবে।

৩ মিলিয়নেরও বেশী ব্রিটিশ চাকুরী ইইউ বাণিজ্যের সাথে সম্পর্কিত। – অন্যান্য ইইউ সদস্যভুক্ত দেশ থেকে ব্রিটেনে প্রতিদিন গড়ে ৬৬ মিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ হয়।

নূন্যতম মজুরীসহ মাতৃত্ব ও পিতৃত্ব ছুটি এবং সমান মজুরীর ইইউ আইনটি এদেশে লেবার সরকারই নিশ্চিত করেছিলো।

ইইউ এর বৈষম্য বিরোধী এবং মানবাধিকার আইনটি সবার মৌলিক মানবাধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি এব্যাপারে সুরক্ষা দিয়ে আসছে।

লেবার পার্টি ট্রেড ইউনিয়নের সাথে পার্টনারশীপের মাধ্যমে ইইউ এর পুনচ্ঞ সমঝোতা এজেন্ডা থেকে ডেভিড ক্যামেরনের ষ্ক্রওয়ার্কারদের অধিকার আইন বিলুপ্তিম্বর প্রস্তাবটি প্রত্যাহার করিয়েছিলো।

রুশনারা আলী এ প্রসঙ্গে আরো বলেন, আর্ন্তজাতিক সহযোগিতা অথবা সমঝোতায় ব্রিটেনের অবদান রাখার গৌরবময় ইতিহাস আছে। একই সাথে বহু আর্ন্তজাতিক ইস্যুতে সিদ্ধান্ত গ্রহনে ব্রিটেনের নির্ভিক ভূমিকাও রয়েছে। এছাড়া ইউরোপের সাথে এক সাথে কাজের বিষয়টি ব্রিটেনের জন্য গুরুত্বপূর্ন। কারন বিভিন্ন ইস্যুতে সারা বিশ্বেই এর প্রভাব রয়েছে। ট্যাক্স ফাঁকি, জলবায়ু পরিবর্তন, অধিবাসী সমস্যা, সন্ত্রাস ইত্যাদি সমস্যা আমরা এককভাবে সমাধান করতে পারবো না। এসব বিষয়ে ইইউ প্রধান ভূমিকা পালন করে এবং ব্রিটেনের সেখানে গুরুত্বপূর্ন অবদান রয়েছে। আমেরিকা, ন্যাটো, কমনওয়েলথসহ বিশ্বব্যাপী আমাদের বন্ধু রাষ্ট্রসমুহ ইইউতে ব্রিটেনের থাকার বিষয়টিতে কেন গুরুত্ব দিচ্চেছ তাও বিবেচনায় আনা উচ্।ি

রুশনারা বলেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন মানবাধিকারসহ আমাদের মতো এথনিক কমিউনিটিকে নানাভাবে সুরক্ষা দিয়ে থাকে। তাই এই গণভোট আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এসব কারনে আমি ব্রিটেনের ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে থাকার পক্ষে প্রচারনা চালাচ্চিছ। তরুণ এবং সমাজের বঞ্চিত গোষ্ঠির একটি বিরাট অংশের ভোটার রেজিস্ট্রেশনে নাম না থাকার কারনে ভোটে অংশ না নেয়ার আশংকা রয়েছে। তাই তাদের রেজিস্ট্রেশনের বিষয়টি জরুরী বলে রুশনারা উল্লেখ করেন। যারা এখনো নাম রেজিষ্ট্রেশন করেননি তাদেরকে আগামী ৭ জুনের মধ্যে নাম রেজিষ্ট্রেশনের আহধ্বান জানান তিনি।

নির্বাহী মেয়র জন বিগস তার বক্তব্যে বলেন, লন্ডন বিশ্বের অন্যতম প্রধান এবং প্রভাবশালী শহর দূর্ঘটনাবশত হয়নি। এর নানা কারন রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম কারন হচ্চেছ বিশ্বের সাথে এই শহরের নানা ধরনের লিংক। আর একারনেই সারা বিশ্বের মানুষ এখানে বিনিয়োগ করতে আসেন। ইইউ থেকে বিচ্চিছন্ন হয়ে গেলে এটি মারাত“কভাবে বিঘিœত হবে। আর এর প্রভাব গিয়ে পড়বে সর্বত্র। আমাদের বারা অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্থ হবে। এখানে অনেক বিনিয়োগই থমকে যাবে। মেয়র বলেন, এদেশের বিভিন্ন সমস্যার জন্য ইমিগ্র্যান্টদের দায়ী করা একটি অলস বক্তব্য। ইমিগ্র্যান্টদের অবদান সম্পর্কে যাদের কোন ধারনা নেই তারাই একথা বলেন। এদেশের একটি এন্টি ইমিগ্র্যান্ট গোষ্ঠি তাদের প্রচারনায় এটিকে ইস্যু বানানোর চেষ্টা করছে।

কমনওয়েলথের কথা বলে ধোঁকা দিচ্চেছ। আমাদেরকে এব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। মেয়র বলেন, সমস্যা সমাধানের জন্য পলিসি দরকার। পলিসির সংস্কার দরকার। কিন্তু একেবারে বের হয়ে আসাটা কোন সমাধান নয়। যেমন নির্বাচিত হওয়ার পর লন্ডন মেয়র সাদিক খান হাউজিং সমস্যা সমাধানের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছেন। হাউজিং পলিসি পরিবর্তনের চেষ্টা করছেন।

তার উদ্যোগ সফল হলে লন্ডনের বাসিন্দারা উপকৃত হবেন। এক প্রশ্নের জবাবে মেয়র বারার হাউজিং সমস্যার জন্য ইইউ ইমিগ্র্যান্টরা দায়ী নয় বলে জানান। তিনি বলেন, বারার হাউজিং সমস্যার জন্য আমাদের যে বিনিয়োগ দরকার তার জন্য আমাদের ইইউতে থাকা দরকার। বের হয়ে গেলে আমরা এ সেক্টরে অনেক বিনিয়োগ হারাবো। তিনি বলেন, রাজধানী লন্ডনের বায়ু দূষন থেকে শুরু করে অনেক কিছুই এখন ইইউ এর সাথে সম্পর্কিত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24