মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত

ঈদের দিন ভিন দেশের হাসপাতালে তাঁরা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ২৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
ঈদের এমন দিনে তাঁদের আনন্দ করার কথা ছিল। পরিবার পরিজনের সঙ্গে ঈদের খুশির দিন কাটানোর কথা। কিন্তু এখন তাঁদের দিন কাটছে ভিন দেশের হাসপাতালে। মিয়ানমার থেকে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে প্রাণভয়ে ছুটে আসা রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

চমেক হাসপাতালে আজ রোববার পর্যন্ত ৩৯ জন রোহিঙ্গা ভর্তি হন। তাঁদের মধ্যে অন্তত ৩১ জনই গুলিবিদ্ধ। ৬ জন অগ্নিদগ্ধ হন। চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে এক কিশোরসহ দুজন। এর মধ্যে মুসা (২২) গত ২৬ আগস্ট ও শোয়াইব (১২) গত ৩০ আগস্ট রাতে মারা যায়। দুজনই মংডু এলাকার বাসিন্দা। মুসা গুলিতে এবং শোয়াইব পালাতে গিয়ে গাড়িচাপায় আহত হয়। গত ২৬ আগস্ট থেকে চমেক হাসপাতালে রোহিঙ্গারা আসতে শুরু করেন।
মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে চমেক হাসপাতালের নিউরো সার্জারি বিভাগে চিকিৎসা নিচ্ছেন কয়েকজন। তাঁদের একজন জিয়াবুল বলেন, বাড়ির পাশে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। সেনাবাহিনী তাঁদের ওপর গুলি চালায়। অনেকে এ সময় মারা যায়। তিনি আরও কয়েকজনসহ পালিয়ে তম্ব্রু সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ঢোকেন।
গত ২৭ আগস্ট ভর্তি হওয়া জিয়াবুল এখন আগের চেয়ে সুস্থ। একই দিন ভর্তি হন ইলিয়াস, তোহা ও মোবারক। তিনজনই মাথায় গুলিবিদ্ধ। মংডু এলাকার এসব বাসিন্দা সীমান্ত পার হয়ে প্রথমে কুতুপালং রোহিঙ্গাশিবিরে আশ্রয় নেন। সেখান থেকে তাঁদের চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।
তোহার (১৬) বাবা মো. হোসেন বলেন, ঘরের মধ্যেই ছেলে গুলিবিদ্ধ হয়। পরে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে কক্সবাজার আসে। তিনি আরও বলেন, ‘ঈদে মিলে মিশে কোরবানি দিই। কিন্তু এবার আর হলো না। প্রাণ বাঁচানো দায় হয়ে গেছে।’
চিকিৎসাধীন এসব রোহিঙ্গার সহায়তায় বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি এগিয়ে এসেছেন বলে জানা গেছে। তাঁরা ওষুধপত্র, খাবারসহ বিভিন্ন সামগ্রী নিয়ে এগিয়ে আসছেন।
চমেক হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন জাহিদ (২০) ও সাদেক (২০)। দুজনের শরীরের ১৫ ভাগ পুড়ে গেছে।
জাহিদ বলেন, ঘরে আগুন দিলে তিনি অগ্নিদগ্ধ হন। তাঁর দুই হাত, বাঁ পা ও গলা পুড়ে যায়।
সাদেকের ডান হাত, বাঁ পা ও মুখমণ্ডল পুড়ে যায়। তাঁর মা রহিমা খাতুন বলেন, ‘ছেলে ঘরের মধ্যে অগ্নিদগ্ধ হন। ঘরের বাকি সদস্যরা পালিয়ে বেঁচেছে। সাদেক আগুনে পুড়ে যায়।’
গুলিবিদ্ধ ইলিয়াসের বাবা মো. জাহিদ বলেন, ‘সেনাবাহিনী নির্বিচারে গুলি চালালে ইলিয়াস মাথায় গুলি খায়। এরপর অনেক কষ্ট করে হেঁটে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আসি। পরিবারের বাকি সদস্যরা মিয়ানমারে রয়ে গেছে। ঈদের দিনগুলো এখন হাসপাতালেই কাটছে।’
খালেদা আকাতার (১৭) নামে এক নারীও গত ২৮ আগস্ট সীমান্ত দিয়ে পালিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে চিকিৎসা নিচ্ছে। সে গুলিতে আহত হয়।
চমেক হাসপাতালের উপসহকারী পরিদর্শক আলাউদ্দিন তালকুদার বলেন, চমেক হাসপাতালে এখন পর্যন্ত ৩৯ জন ভর্তি হয়। তাদের মধ্যে দুজন মারা যায়। চিকিৎসাধীন লোকজনের মধ্যে গুলিবিদ্ধ অন্তত ৩০ জন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24