শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

একজন সজ্জন মানুষের বিদায়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০১৬
  • ১২৪ Time View

খলিল রহমান:: ফণি ভূষণ চৌধুরী আর নেই, শনিবার রাতে পঙ্কজ দা খবরটি আমাকে জানান। সঙ্গে এ-ও মনে করিয়ে দেন, এই মানুষটির সঙ্গে আমাদের দুজনের একবার দেখা হয়েছিল। বড়ই সজ্জন মানুষ। অল্প সময়ের সাক্ষাতে পুলকিত হয়েছিলাম। পুলিশের সর্বোচ্চ পদে সুনামগঞ্জের এমন একজন মানুষ আছেন, এই ভেবে গর্ব হয়েছিল সেদিন।
তখন হেফাজতে ইসলামকে নিয়ে খানিকটা বেকায়দায় সরকার। ঢাকায় বড় জমায়েত হবে। তাঁদের লোকজন ঢাকামুখী। অবস্থা টালমাটাল। আইনশৃখঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনীর ভিতরে-বাহিরে তোলপাড় চলছে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিজের কক্ষে উর্ধ্বতন অফিসারদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করছেন পুলিশ সমন্বয়ক (আইজিপি সমতুল্য) জনাব ফণি ভূষণ চৌধুরী। আমি আর পঙ্কজ দা সেই কক্ষের সামনে। উনার ব্যক্তিগত কর্মকর্তাকে দেখা করার কথা বলি। তিনি চমকে ওঠেন। সম্ভব নয়। ভিতরে জরুরি বৈঠক চলছে। আমরা তাঁর হাতে দুটি ভিজিটিং কার্ড ধরিয়ে দিই, ‘সুনামগঞ্জ থেকে এসেছি। স্যারের সঙ্গে উনার এক বন্ধুর এ নিয়ে কথা হয়েছে। তিনি দেখা করতে না চাইলে আমরা চলে যাব।’ তবুও ওই কর্মকর্তা ভিতরে যেতে গড়িমসি করছেন।
ফণি ভূষণ চৌধুরী সুনামগঞ্জের কৃতিসন্তান। ছাতক পৌর শহরে বাড়ি। ১৯৫৪ সালের ১১ নভেম্বর তিনি ছাতকে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা নিবারণ চন্দ্র চৌধুরী ছিলেন সরকারি কর্মকতা, মা হেলেন রানী চৌধুরী স্কুল শিক্ষক। ফণি ভূষণ চৌধুরী একজন সৎ ও সজ্জন অফিসার হিসেবে সবমহলে অত্যন্ত সুপরিচিত। তিনি পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) সদস্য ছিলেন। পুলিশের বিভিন্ন বিভাগে তিনি দীর্ঘদিন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) চিফ ছিলেন। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বিভিন্ন দেশে নেতৃত্বে দিয়েছেন। আমরা সুনামগঞ্জবাসী ভাগ্যবান। বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সদস্যের মধ্যে দুইজন সুনামগঞ্জের। একজন ফণি ভূষণ চৌধুরী, অন্যজন কবি ও গবেষক ড. মোহাম্মদ সাদিক। ড. মোহাম্মদ সাদিক একসময় শিক্ষাসচিব, নির্বাচন কমিশনের সচিবসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করেছেন।
এক পর্যায়ে ওই কর্মকর্তা চেয়ার ছেড়ে ভিতরে যান। ফিরে এসেই বলেন ‘যান’। আমরা ভিতরে ঢুকি। জনাব ফণিভূষণ চৌধুরীর টেবিল ঘিরে ছয়জন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বসা। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার মাথা তাঁরা। সবাই আমাদের দিকে তাকিয়ে আছেন। এর মধ্যে তিনি বলেন,‘দুজনই দেখছি ইয়াং, সুনামগঞ্জের সবাই ভালো আছে তো?’ আমরা ‘জ্বী ভালো’ বলে মাথা নাড়ি। তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি তো বুঝতেই পারছ। তোমাদের সঙ্গে বসে কিছু সময় কথা বলতে পারলে ভালো লাগতো, সুনামগঞ্জের খবরাখবর নেওয়া যেত, কিন্তু…।’ আমরা বিনয়ের সঙ্গে বলি, আপনি আমাদের শ্রদ্ধার মানুষ, আপনজন। মন্ত্রণালয়ে একটা কাজে এসেছিলাম। ভাবলাম আপনাকে সালাম দিয়ে যাই…। তিনি বসতে বলেন, আমরা বসি না। ব্যস্ততার মধ্যেও খুবই আন্তরিকতার সঙ্গে তিনি কিছু কথা বললেন। সুনামগঞ্জের খোঁজখবর নিলেন।
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর’র ডিএফপি সংক্রান্ত কাজে ঢাকায় গিয়েছিলাম আমরা। সেই সঙ্গে যদি সম্ভব হয় উনার সঙ্গে দেখা করা। সুনামগঞ্জের আরেক কৃতিজন বর্তমানে সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান সাহেব বলে দেওয়ার পর আমরা বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সঙ্গে দেখা করি। এরপর যাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক শাখায়। এক সময় জনাব এম এ মান্নান ওই শাখার প্রধান ছিলেন। তিনিই আমাদের মন্ত্রণালয়ে প্রবেশের পাস এবং ওই শাখার প্রধান কর্মকর্তার সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা করে দেন।
ফণি ভূষণ চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করার কাজটি আমার একান্ত ব্যক্তিগত। তিনি মন্ত্রণালয়ের নিচতলায় বসেন। আমার ছোট ভাই পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর পদে লিখিত পরীক্ষা পাস করেছে। সে জানতে পেরেছে, ফণি ভূষণ চৌধুরী সুনামগঞ্জের ব্যাপারে অত্যন্ত আন্তরিক। একবার যদি বলা যায় তাহলে হয়তো তাঁর চাকরিটা হয়ে যাবে। সে নাছোরবান্দা। দু-একজনের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলার পর জানতে পারি, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাংসদ মতিউর রহমান আর ফণি ভূষণ চৌধুরী বন্ধু। আমি জনাব মতিউর রহমানকে বিষয়টি জানাই। একদিন দুপুরে ঢাকা থেকে তিনি আমাকে ফোন করেন। ফোন ধরতেই বলেন,‘তুমি ফণিকে তোমার ভাইয়ের চাকরির কথা বলো…।’ আমি অপ্রস্তুত। ফোন হাতে নিয়ে শুধু সালাম দিই। কুশল জিজ্ঞেস করি। ফণি ভূষণ চৌধুরী বলেন,‘পরীক্ষা ভালো হলে এমনিতেই চাকরি হবে। তোমার ভাইকে বলো বেশি বেশি পড়াশোনা করতে।’ এরপর বললেন, ঢাকায় গেলে যেন দেখা করি।
এই বড় মনের মানুষটি সম্পর্কে আমার জানাশোনা ছিল কম। অথচ তিনি আমাদের বাড়ির মানুষ, কাছের মানুষ। পরে বিভিন্নজনকে ওই সাক্ষাতের কথা বলি। অনেকেই বলেছেন, ফণি ভূষণ চৌধুরী একজন সাদামনের মানুষ। সহজ-সরল জীবন যাপন করেন। একা, বিয়েশাদি করেননি। সুনামগঞ্জের যে কোনো বিষয়ে তিনি আরও উদার। সুনামগঞ্জের কেউ দেখা করতে চাইলে তিনি উৎসাহ নিয়ে দেখা করেন। শনিবার রাতে খবরটা পাওয়ার পরই সেদিনের কথা মনে পড়ে। তিনি হাসিমুখে আমাদের বলছেন,‘সুনামগঞ্জের সবাই ভালো আছে তো?’ আমি বিষণœ মনে সেই কথা ভাবি আর বলি,‘আমরা ভালো আছি, কিন্তু আপনি?’ আপনি যেখানেই থাকুন ভালো থাকুন, শান্তিতে থাকুন। আপনার প্রতি গভীর শোক ও শ্রদ্ধা।
লেখক::খলিল রহমান, প্রথম আলো’র সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24