রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

ঈদ ও রাহেলার কষ্ট- অধ্যক্ষ মো. অাব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ১৫১ Time View

গত ঈদেও রাহেলা বাচ্চাদের শান্ত্বনা দিয়েছিল, ‘অাগামী ঈদে অামরা বেশী অানন্দ করবো; লাল রঙের ষাঁড় বড় হচ্ছে সেটা বিক্রি করে অামরা কোরবানির ঈদে অনেক টাকা পাব। তোমরা কান্না কাটি করনা’। ছোট ফাহিম অনেক্ষণ পর শান্তহলো। অাসলে মায়ের কথায় যতটুকু না শান্ত হলো তারচেয়ে

বাস্তবতা তাকে বেশী শান্তনা দিয়েছে। সেদেখেছে এত কান্নাকাটির পর কেউতো কিছু দিয়ে যায়নি। তাই মাকে সে বলে,’ মা, অাগামী ঈদে কিন্ত অামাকে অার ছোটবোন ফাহিমাকে অামাদের অাশপাশের সবার চেয়ে দামী কাপড়ও জুতা কিনে দিবা?কি হলো মা? বলনা? অাব্বু কিন্ত না বলতে পারবেননা,কইয়া রাখলাম? রাহেলা অপরিস্কার ছেড়া শাড়ীর মাথার অংশ দিয়ে নিজের চোখে জমা অশ্রু লুকিয়ে মুছে ফাহিম অার ফাহিমাকে কোলে জড়িয়ে নিয়ে মাথায় হাত দিয়ে বলে, ‘বাবা, ঠিক অাছে; তোমাকে অার ফাহিমাকে অাগামী কোরবানির ঈদে সবচেয়ে দামী কাপড় অার জুতা দিব ‘। ফাহিম অার ফাহিমা অাদর পেয়ে বলে,’মা,অামরা ঈদের নতুন কাপড় অার জুতার জন্য অার কাঁদবনা; অাব্বুর সাথে অামরা ও গরুকে ঘাস খাবাতে সাহায্য করবো ‘। ফাহিমের বাবা মাহবুব পাশের রুম থেকে মা অার সন্তানের সবগুলো কথা শুনে বালিশে মুখ গুজে কান্নাকাটি করেছেন। বিকেলে ফাহিম কে নিয়ে গরুর ঘাস দিতে গেলেন। ফাহিম তার বাবাকে এ সুযোগে বলল,’ অাব্বু, এই গরুবিক্রী করে অাগামী কোরবানীর ঈদে অামাদের সবার জন্য সুন্দর

নতুন কাপড় কিনবে; তোমার জন্য,মায়ের জন্য ও কিনবা কিন্তু? ‘ঠিক অাছে বাবা কিনবো’ জবাব দেন মাহবুব ‘। দূর থেকে ফাহিমা বলে,’অামাকে ও দিতে হবে অাব্বু ‘। ফাহিম অারো বলে,অামি অার ফাহিমা এখন থেকেবেশী করে পড়াশুনা করবো; পড়াশুনা করলে অনেক বড় হওয়া যায় স্যারেরা বলেছেন’? ‘ ঠিক বলেছেন স্যারেরা’ জবাব দেন মাহবুব। ছোট ফাহিম হঠাৎ তার অাব্বুকে বলে,অাব্বু মানুষ গরুকে

ইনজেকশন দিয়ে মোঠা তাজা করে? অামাদের ষাঁড় কে ইনজেকশন দিয়েছেন অাব্বু? মাহবুব বলেন,হ্যাঁ বাবা,অনেকে তাড়া তাড়ি মোটা করার জন্য ইনজেকশন দেয় যাতে বাজারে বেশী টাকায় বিক্রি করতে পারে। কিন্তু এই গরুর মাংস স্বাস্থ্যকর না অনেক ক্ষেত্রে’। ফাহিম বলে,অাব্বু মানুষের ক্ষতি হয় যা করলে তা না করা ভাল? ‘ঠিক বলেছো বাবা’ মাহবুব জবাব দেন। মনে মনে মাহবুব ভাবেন, অাল্লাহ অামার সন্তান কে ভাল মন্দ বুঝার ক্ষমতা দিচ্ছেন;যা অামি সবসময় চাই। দেখতে দেখতে ঈদুল অাজহা;কোরবানির ঈদ এসে গেল। মাহবুব সাহেব অার রাহেলার মনে অানন্দ। সন্তানদের এই ঈদে কিছুটা অানন্দ দিতে পারবেন।লাল ষাঁড়টি অনেক কষ্টে বড় করেছেন; তার সেবা করতে গিয়ে সন্তানের মতো মায়া তৈরী হয়েছে! বাজারে বিক্রির জন্য যেদিন গোসল করাচ্ছিলেনবাপ-ছেলে মিলে ষাঁড়টি বারবার রাহেলার দিকে তাকাচ্ছিল। ‘অামাকেবিক্রি করলে ওরা জবাই করবে; তোমাদের কষ্ট হবেনা’ এমন অনুভুতি যেন রাহেলার মনে সে সাড়া দিতে চেয়েছিল। রাহেলার চোখে জল এসেছিল ঠিকই কিন্তু অভাবের সংসার অার সন্তানদের দেয়া কথায় সে চিন্তা পরক্ষণেই তুচ্ছ হয়েগেল । মাহবুব সাহেবের তাড়া,’অামার সবকিছু প্রস্তুত করো রাহেলা;তাড়াতাড়ি খেতে দাও কোরবানির বাজার একটু অাগে যেতে হবে’।মাহবুব গ্রাম থেকে অারেকজন লোক রোজে নিলেন সাথে করে। গরুর বাজারে কতধরণের লোক কিন্তু দরকারে কােথাও গেলে,গরু ছটফটি করলে,টাকা নিয়ে বাড়ী ফিরতে একজন লোক সাথে থাকলে ভরসা পাওয়া যায়; সাহস থাকে। স্থানীয় গোবিন্দগঞ্জ বাজারে নিয়ে গেলেন গরুটি। কিন্তু যে দাম উঠল তাতে দশ হাজার নিম্নে হলেও কম। সিদ্ধান্ত নিলেন ঈদের যেহেতু কয়েকদিন বাকী সিলেটের কাজীর বাজার নিয়ে গেলে সঠিক দামটি হয়তো পাবেন। তাই গরু নিয়ে বাড়ী ফিরলেন। রাহেলাকে মোবাইলে জানালে সেও তাঁর সিদ্ধান্তে একাত্মতা প্রকাশ করলো। মাহবুব সাহেব যেকোন ব্যাপারে রাহেলার মতামত নিয়েই কাজ করেন। ভাবেন, দুজনের সংসার মতামত নিয়ে সিদ্ধান্ত নিলে শান্তি পাওয়া যায়; তাছাড়া তাঁর( রাহেলার) মতামত তো অামার চেয়ে ও সুন্দর হতে পারে। রাহেলা তাঁর বাবার অভাবের সংসার হলেও ক্লাস এইট পর্যন্ত পড়ালেখা করেছে। শিক্ষার একটা মুল্যতো অাছে। পরের দিন সিলেট কাজীর বাজার গরু নিয়ে গেলেন মাহবুব। রাহেলার সাথে রাতে সিদ্ধান্ত হয়েছে দাম যাই হোক অার রাখা যাবেনা। অাজ ফাহিম অার ফাহিমা খুব খুশী। তারা উঠোনে হৈ হুল্লাের করে খেলা করছে। তাদের অাব্বু,মাহবুব সাহেব তাদের জন্য অাজ ঈদের কেনাকাটা করে অানবেন। বাজারে হাজার হাজার গরু থাকলে ও মাহবুবের ধারণা তাঁর গরু ইনজেকশনের নয় ; নিজ হাতে যত্ন করে বড় করেছেন; যারা গরু চিনেন তাঁরা ঠিকই মুল্য দিবেন। অাছরের অাগে মাহবুব রাহেলাকে মোবাইল করে বলেন, স্থানীয় বাজারে যেখানে পঞ্চাশ হাজার টাকা দাম হয়েছিল এখানে ষাটহাজার পর্যন্ত দাম হয়েছে। তার ধারণা পয়ষট্টি হাজার টাকা কম হলে ও পাবেন’। রাহেলা বলেছে,বাজারের অবস্থা বুঝে

বিক্রি করে দেওয়ার জন্য এবং সাবধানে বাড়ী পৌঁছতে। এর পর রাতের রান্নাবাড়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে সে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। তাছাড়া ফাহিম অার ফাহিমা সারাদিন হৈ হুল্লোর করে অাজ সকাল সকাল ঘুমিয়ে পড়েছে।এশার অাযানের সময় হয়ে এলো কিন্ত মাহবুবের অার কোন মোবাইল কল না অাসায় রাহেলার হঠাৎ বুকের মধ্যে একটি কঠিন টান পড়ে। সে দ্রুত মোবাইল ফোন নিয়ে মাহবুব কে কল দেয়। কিন্তু বারবার শব্দ অাসে কানে,এইমুহুর্তে মোবাইল সংযোগ দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা’। ‘মোবাইলের চার্জ কি শেষ হয়ে গেল’? রাহেলার এমন চিন্তার মধ্যে মনে হয় সারারাত তো মোবাইল চার্জে ছিল; এমন হওয়ার তো কথা না। মনের মধ্যে নানা অাশংকায় অস্থির রাহেলা।

পাশের বাড়ির লোকদের সাথে গত মাসে বড় ঝামেলা হয়েছে তারা কী…? নাকি অন্য কোন সমস্যা? শহরেতো কেউ অাপন নয় যে….? শ্বশুর- শাশুড়ি ছাড়া সংসারে অনেক দিন পর নিজেকে খুব অসহায় ও অনিরাপদবোধ করছে রাহেলা! পাশের ঘরে সে যেতে চায় কিন্তু বাচ্চারা ঘরে একা রেখে… না জেনে কিছু বলা কী ঠিক হবে? গ্রামের যাকে সাথে নিয়েছিল মাহবুব তারও কোন মোবাইল নেই। চারদিকের নিস্তব্ধতা অার চোখের জলে নিরুপায় রাহেলা।

হঠাৎ মহিলা কন্ঠ, ‘ ফাহিমের অাব্বা এখন ও বাড়ীতে অাসেন নাই? অামরার তাইনরও এখনো কোন খবর পাইলাম না অার কত রাতে তারা বাড়ীত অাইতা ‘?

রাহেলা ঘর থেকে দরজা খোলে বের হয়ে বলে,’ভাবি তাইনর মোবাইল বন্ধ দেখার। অাপনি বসুন’। অাশে পাশের বাড়ীর অনেকেই শব্দশুনে অাসতে শুরু করেছে। সবার প্রশ্ন,’মোবাইল বন্ধ? কও কী? তাহলে কী কোন সমস্যা’? রাত এগারটা বাজে।হঠাৎ বাড়ীর রাস্তায় অনেক পুরুষ মানুষের অাওয়াক; কোন সমস্যায় পড়লে যেমন অাওয়াজ হয় তেমন! উপস্থিত সবাই এগিয়ে গিয়ে শরীক হলেন। ‘ অাল্লাহ গো এটা কী হইলো! এটা তোমার কোন বিচার,হায়রে অমানুষরা ঈদের সময় ও এমন কেউ করে? রাহেলা সন্তানদের একলা ঘরে রেখে এগিয়ে যায়।কয়েকজন লোক ধরে ধরে মাহবুব কে নিয়ে অাসছে। রক্তাক্ত মাহবুব। মরেনাই,বেঁচে অাছে। সাথের জনেরও একই অবস্থা।

কেউকেউ বলছে,দুটাকা বেশির অাশায় সিলেটে যাওয়ার কী দরকার ছিল? ছিনতাই কারীদের কী কোন ধর্ম অাছে?কোন ঈদ অাছে? এরা কী মানুষ?

রাহেলার জ্ঞান হারানোর মতো অবস্থা হলে ও মাহবুবকে সযতনে সে ধরে নিয়ে বিছানায় তুলে। ফাহিম অার ফাহিমা ঘুম থেকে উঠে কিছু বোঝার অাগেই কান্নায় যোগ দেয়…..।
লেখকঃ মো.অাব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ,শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24