মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় সিলেটের নুরুল নিহত

ঘূর্ণিঝড় ফণীর আক্রমন থেকে ফসলরক্ষায় জগন্নাথপুরে ধান কাটতে মাইকিং

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩ মে, ২০১৯
  • ৫০৩ Time View

বিশেষ প্রতিবেদক :: ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাব থেকে বোরো ফসল রক্ষায়
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষকদের কে দ্রুত ধান কাটার জন্য মাইকিং করে আহ্বান জানানো হয়েছে।  বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে এ আহ্বান জানানো হয়।এছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ড ও উপজেলা কৃষি কার্যালয় থেকে পৃথক পৃথক বার্তায় ধান কাটার আহ্বান জানানো হয়।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী নাসির উদ্দীন জানান,

গত ৩০ এপ্রিল থেকে ২ মে পর্যন্ত প্রকৃতির বিরূপ প্রভাবের কারণে সুনামগঞ্জের সুরমা নদীর পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পেয়েছে। এই তিন দিনের ব্যবধানে সুরমা নদীর পানি সুনামগঞ্জে ১০ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, যেখানে হাওরের বেড়িবাঁধ গুলোর ডিজাইন লেভেল (উচ্চতা) ৬.৫০ মিটার সেখানে বর্তমানে সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি ৪.৩৮ মিটার। যেখানে বিপদসীমা ৫.৪৭। এই (৫.৪৭) লেভেল এ নদীর পানি অতিক্রম করলে হাওরের ডুবন্ত বাঁধগুলোর ভিত্তি দূর্বল হতে শুরু করবে, এমনকি কোন কোন হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে পানিও প্রবেশ করতে পারে।
সিলেট তথা ভারতের চেরাপুঞ্জি ও বরাক বেসিন এর পানি সুনামগঞ্জের নদীসমূহে এখনও পুরোপুরিভাবে নেমে আসেনি। যখন নেমে আসবে তখনই হাওরে বিপদের আশনিসংকেত হয়ে দাঁড়াবে।
তাছাড়া আগামী শনিবার হতে ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে নিম্নচাপের ফলে কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টির আশংকা বিদ্যমান। তাই কৃষকদের অপেক্ষা না করে সব ধান দ্রুত কাটতে আমরা আহ্বান জানিয়ে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুৃমদার বলেন,জগন্নাথপুর উপজেলার বৃহৎ হাওর নলুয়া,মইয়া পিংলার হাওরে শতভাগ ধান কাটা শেষ। কিছু উচু এলাকায় ধান কাটার বাকি রয়েছে। গতকাল পর্যন্ত আমাদের হিসেবে
৯৪ শতাংশ ধান কাটা হয়েছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে ফসল রক্ষায় আমরা ব্যাপক প্রচারনার পাশাপাশি জমিতে গিয়ে গিয়ে দ্রুত ধান কাটতে কৃষকদেরকে বলছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, আবহাওয়া অধিদপ্তরের সর্তক বার্তা অনুযায়ী ঘুর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে
হাওর সমূহের পাকা ধানের ক্ষতি হতে পারে তাই পাকা ধান ফেলে না রেখে দ্রুত কেটে ঘরে তুলতে কৃষক ভাইদের মাইকিং করে জানানো হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম জানান আমরা কৃষকদেরকে ধান কাটার পাশাপাশি সর্তক বার্তা জানিয়ে দূর্যোগ ব্যবস্হানা কমিটির সভা করে প্রস্তুুতি নিয়েছি।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24