শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ আমি স্বাধীনতা বিরুধী পরিবারের সন্তান নই- চেয়ারম্যান আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুরে বাংলা মিরর সম্পাদক আব্দুল করিম গনি সংবর্ধিত জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন

ঘৃন্য রুচির ছোবলে আক্রান্ত ফেসবুক

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৭ মে, ২০১৫
  • ৮৭ Time View

আলী আহমদ:: বর্তমান সময়ের অত্যন্ত জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক। যোগাযোগের ইতিহাস বদলে দেয়ার এক শক্তিশালী মাধ্যম। যার বদৌলতে দুনিয়া যেন আক্ষরিক অর্থেই পরিণত হয়েছে একটি গ্রামে। ফেসবুক নামের বিশ্বগ্রামে প্রতিদিন নিজেদের মতামত দিচ্ছেন কোটি কোটি মানুষ। জগন্নাথপুরবাসীও এর ব্যতিক্রম নয়। মুক্ত মাধ্যমে মুক্ত হাতে লিখছেন নানা শ্রেণী-পেশার জনগোষ্ঠী। তবে সামাজিক যোগাযোগের এ মাধ্যমে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া সবসময় সামাজিক থাকছে না। মত প্রকাশের নামে বিকৃত ঘৃন্য রুচির কিছু মানুষ নামের নরপিচাশের কারণে প্রতিনিয়ন ভালো মানুষের চরিত্র হরণ করা হচ্ছে এই মাধ্যম দিয়ে। সাম্প্রতিককালে জগন্নাথপুরে কিছু বখাটে তরুণ এ নেশায় মেতে উঠেছে। তাদের ঘৃন্য তৎপরতায় রেহাই পাচ্ছে না স্কুল কলেজ পড়ুয়া মেয়েরা। শিকার হচ্ছেন জনপ্রতিনিধি,রাজনীতিবীদ,শিক্ষক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।
অনেকটা সুকৌশলে মিথ্যা আর অশালীন প্রচারণার মাধ্যম হিসেবে ফেসবুককে ব্যবহার করছে এ চক্র। জগন্নাথপুর পৌর এলাকার একটি মসজিদের ইমামতি করেন তাহির আলী নামের এক ব্যক্তি। ফেসবুক কি তিনি নিজেই জানেন না অথচ তার নামে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলে চালানো হচ্ছে ঘৃণ্য প্রচারণা। ব্যক্তিগত, সামাজিক আর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদের ঘায়েল করতে ব্যবহার করা হচ্ছে ফেসবুক। মিথ্যা, ভিত্তিহীন আর আজগুবি তথ্যের প্রচারণা চলছে। রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বিশিষ্টজনসহ , সাধারণ মানুষ কেউই বাদ যাচ্ছেন না ফেসবুক হয়রানি থেকে। জগন্নাথপুরসহ সারাদেশে এমন ফেসবুক হয়রানী চলছে। ফেসবুকে সবচেয়ে বেশি হয়রানির শিকার হয় নারীরা। তাদের নানাভাবে উত্ত্যক্ত করা হয়। বানানো অশালীন ছবিও আপলোড করা হয়। ভুয়া অ্যাকাউন্টের বেশির ভাগই খোলা হয় মেয়েদের নামে। অনেক ক্ষেত্রে প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে গেলে ছেলেটি আগের অন্তরঙ্গ ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। একাধিক ভুয়া ফেসবুক অ্যাকাউন্ট পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, এসব অ্যাকাউন্টে সমাজের বিশিষ্ট অনেক ব্যক্তির নামে কুৎসা রটানো হয়েছে।
সমপ্রতি দ্য টেলিগ্রাফ অনলাইনে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে ক্রমশ ঈর্ষা বা হিংসার জন্ম নিচ্ছে। গবেষণার সঙ্গে জড়িত অধ্যাপক মার্গারেট ডাফি বলেন, যেভাবে ফেসবুক ব্যবহার করেন ব্যবহারকারীরা, তার ফলে এর প্রতি নিজেদের প্রতিক্রিয়ার মধ্যেও পার্থক্যের সৃষ্টি হয়। তিনি বলেন, ফেসবুকের ভালো দিককে কাজে না লাগিয়ে মন্দদিককে প্রাধান্য দেয়ায় সমাজে হিংসা বিদ্ধেষ বাড়ছে। ঘটছে নানা অঘটন। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কারণে ঘটছে হত্যাকান্ডের মতো ঘটনা।
ফেসবুক নিয়ে মামলা বা আইনি ব্যবস্থার চেয়ে মানুষের দায়িত্ববোধ বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস। একটি জাতীয় দৈনিককে তিনি বলেন, আমি মনে করি ফ্রিডম ইজ নাথিং, উইদাউট রেসপনসিবিলিটি। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা মানেই যা খুশি তাই নয়। এই শিক্ষাটা আমাদের মধ্যে এখনও গড়ে ওঠেনি বলেই এমনটা ঘটছে প্রতিনিয়ত। বিশ্লেষকদের মতে ‘স্বাধীনতা এবং আইন’ প্রসঙ্গে ‘সচেতন’ নয় বলেই সমাজে এমন ঘটনা বাড়ছে ক্রমশ।
এ প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার সারাহ হোসেন সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদের কথা তুলে ধরে বলেন, সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন কোন স্বাধীন মতামত কিংবা কার্যক্রম চালানো যাবে না যার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা, শালীনতা, মানহানি কিংবা নৈতিকতার স্বার্থে কারও আঘাত লাগে।
সুনামগঞ্জ জেলা বারের একজন আইনজীবি জগন্নাথপুরের বাসিন্দা আবু তাহের মো্হন বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে জগন্নাথপুরে ফেসবুকে মিথ্যাচার ও অশালীন প্রচারনা বেড়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। আইন কানুনের বিষয়ে ধারণা না থাকায় অনেকে এসব করে যাচ্ছে। তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি আইনটি এসব অপরাধীদের জন্য একটি বড় আইন। এ আইনে সবনিম্ম ছয় বছর থেকে সবোচ্চ ১৪ বছরের কারাদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, এটি একটি জামিন অযোগ্য অপরাধ।

জগন্নাথপুর থানার ওসি আসাদুজ্জামান এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ফেসবুকে বিশিষ্টজনদের নামে কুৎসা রটানোকারীদের চিহিৃত করতে পুলিশ কাজ শুরু করেছি। ইতিমধ্যে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে দুটি মামলা হয়েছে। উল্লেখ্য ২০০৪ সালে মার্ক জুকারবার্গ আর তার চার বন্ধু মিলে প্রতিষ্ঠা করেন ফেসবুক। যা এখন পৃথিবীর অন্যতম ব্যবসা সফল উদ্যোগও বটে। বর্তমানে পৃথিবীব্যাপী প্রায় ১৪৪ কোটি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করছে। বাংলাদেশেও ৫০ লাখের বেশি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে। ধারণা করা হয়, ৫ থেকে ১১ ভাগ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ভুয়া। এসব ভুয়া অ্যাকাউন্ট বাতিল করতে ফেসবুক নানা কার্যক্রম শুরু করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24