সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে

চিকিৎসক ও নার্সের অবহেলায়-জগন্নাথপুরে হাসপাতালের বারান্দার সামনে প্রসূতির মৃত সন্তান প্রসব, এলাকায় তোলপাড়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১ অক্টোবর, ২০১৮
  • ১৪১ Time View

আলী আহমদ/গোবিন্দ দেব::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক ও নার্সের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বারান্দার সামনে এক নারী মৃত প্রসব করেছেন। অভিযোগ উঠেছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্স সন্তানসম্ভাবা নারী কে চিকিৎসা না দিয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী হাসপাতালে রেফার্ড করেন। হাসপাতাল থেকে বের হওয়ার পথে বারান্দার সামনে ওই নারী পুত্র সন্তানে রজন্ম দেন। সোমবার দুপুর ১২টায় এঘটনা ঘটে।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, প্রত্যক্ষদর্শী ও অভিযোগকারী পরিবারের লোকজন জানান ,জগন্নাথপুর পৌরসভার বাড়ী জগন্নাথপুর গ্রামের সফিক মিয়া তার সন্তান সম্ভাবা স্ত্রী রুজিনা বেগম (২৫) এর প্রসব ব্যথা শুরু হলে সকাল ১০টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রসূতিনারীকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। দুইঘন্টা পর দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক সাজ্জাদ হোসেন ও কর্তব্যরত নার্স আলেয়া বেগম প্রসূতি নারীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে সিলেট এম এ জিওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। হাসপাতালের দ্বিতল ভবন থেকে নিচে নামার পর বারান্দার সিড়ির সামনে ওই নারী সন্তান প্রসব করেন।
সফিক মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাসপাতালে ভর্তি করার দুই ঘন্টা পর হঠাৎ করে নার্স আমাকে ডেকে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কাগজ ধরিয়ে দিয়ে তাড়াহোড়া করে বের করে দেন। আমি কিছুবুঝে উঠার আগেই তিনি দ্রুত আমার স্ত্রীকে সিলেট নিয়ে যেতে বলেন। বারান্দায় বের হতেই আমার স্ত্রী সন্তান প্রসব করে। তিনি বলেন, চিকিৎসক ও নার্স কোন চিকিৎসা না দিয়ে আমাদের সাথে অমানবিক আচরন করেছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি কৃত প্রসূতি নারী রুজিনা বেগম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়ার পর থেকে দায়িত্বরত নার্স আলেয়া বেগম আমাকে ভয়প্রীতি দেখিয়ে বলেন, আমার লান্সে প্রচুর পানি জমে আছে। এখানে থাকলে মারাও যেতে পারি। এক পর্যায়ে নার্স ও দায়িত্বরত চিকিৎসক সাজ্জাদ হোসেন আমাকে বের করে দেন। আমি প্রসব যন্ত্রনায় কাতর হয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রের দ্বিতল ভবন থেকে নীচে নেমে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। পরে জানতে পেরেছি আমার মৃত সন্তান হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স আলেয়া বেগম অভিযোগ অস্বীকার করে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমরা ওই নারীকে হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করি। তিনি প্রসব ব্যথায় কাতর হয়ে বারবার তাকে সিলেট পাঠাতে আমাদের নিকট অনুরোধ করেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার সাজ্জাদ হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রসুতি নারীর পরিবারের অভিযোগ সঠিক নয়। প্রসুতি নারীর কান্না জনিত অনুরোধে বাধ্য হয়ে আমরা তাকে ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করি। হাসপাতাল থেকে নামার পর তিনি মৃত সন্তান প্রস বকরেন। আমরা ওই নারীকে চিকিৎসা দিচ্ছি। বর্তমানে তিনি ভাল আছেন।

জগন্নাথপুর পৌরসভার বাড়ী জগন্নাথপুর গ্রামের বাসিন্দা জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র শফিকুল হক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রসূতি ওই নারী আমার আত্মীয়। খবর পেয়ে আমি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে জেনেছি চিকিৎসক ও নার্সের দায়িত্বহীনতা ও অবহেলারকারণে এনির্মম ঘটনা ঘটেছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তক্রমে আইনানুগত সুবিচার চাই।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শামস উদ্দিন আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,আমি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দাপ্তরিক কাজে ঢাকা আছি। কর্মস্থলে গিয়ে এবিষয়ে তদন্তক্রমে পদক্ষেপ নেয়া হবে।
এ বিষয়ে জানতে সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জন ডাঃ আশুতোষ দাসের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত টিম গঠন করে পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।
এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বারান্দায় সিঁড়ির নিচে সন্তান প্রসব’র ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় বইছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24