সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

চীনের বিরুদ্ধে যুদ্ধের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৫৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: দক্ষিণ চীন সাগরের মালিকানার বিরোধকে কেন্দ্র করে চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ‘লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত’ বলে জানিয়েছেন প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবহরের প্রধান। বিশ্বের দুই প্রধান পরাশক্তির মধ্যে তীব্রতর উত্তেজনা চলাকালেই বুধবার যুদ্ধের এ হুমকি দেয়া হলো। খবর রয়টার্সের। নানা প্রাকৃতিক সম্পদ সমৃদ্ধ দক্ষিণ চীন সাগর দিয়ে প্রতি বছর পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য হয়। এই সাগরের বেশিরভাগেরই মালিকানা দাবি করে আসছে। তবে ব্রুনাই, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, তাইওয়ান এবং ভিয়েতনামও এ সাগরের মালিকানা দাবি করছে। চলতি বছরে দি হেগের আরব্রিট্রেশন আদালত কৌশলগত এ নৌপথের মালিকানা নিয়ে চীনের দাবিকে খারিজ করে রায় দেয়। তবে এ রায়কে প্রত্যাখ্যান করে চীন। দেশটি দক্ষিণ চীনের দখল বাজায় রাখতে সেখানে সামরিক দ্বীপ নির্মাণসহ কড়া অবস্থান গড়ে তুলছে। এমন পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে চীনকে আহ্বান জানিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার সিডনিতে দেয়া এক বক্তৃতায় প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবহরের প্রধান অ্যাডমিরাল হ্যারি হারিস বলেন, বেইজিং আক্রমণাত্মক আচরণ করে আসছে, যার সমুচিত জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তিনি বলেন, দক্ষিণ চীন সাগরে কৃত্রিমভাবে তৈরি দ্বীপে যতই ঘাঁটি তৈরি করা হোক না কেন আমরা কোনো যৌথ মালিকানাধীন কোনো এলাকাকে এক তরফাভাবে অবরুদ্ধ করতে কাউকে অনুমতি দেব না। আমরা যতদূর পারি সহযোগিতা করে যাব। কিন্তু যখনই প্রয়োজন হবে তখনই মোকাবেলা (যুদ্ধ) করার জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি। মার্কিন অ্যাডমিরালের এই বক্তব্য যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে চলমান বিরোধ উস্কে দিতে ইন্ধন যোগাবে। এরইমধ্যে গত ২ ডিসেম্বর তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টকে ফোন করে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দুই পরাশক্তির বিরোধকে তরান্বিত করেছেন। এই ফোনালাপ নিয়ে এরইমধ্যে বেইজিং কূটনৈতিকভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র ধারণা করছে, গত তিন বছরে বেইজিং দক্ষিণ চীন সাগরে তিন হাজার ২০০ একরেরও বেশি জায়গায় সাতটি দ্বীপ তৈরি করেছে যেখানে বিমান চলাচলের রানওয়ে, বন্দর, অ্যায়ারক্রাফট হ্যাংগার এবং যোগাযোগের রাডার ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। এর জবাবে যুক্তরাষ্ট্র আঞ্চলিক মিত্রদেশগুলোকে নিয়ে দক্ষিণ চীন সাগরে ধারাবাহিক নৌমহড়া চালাচ্ছে। এই মহড়ার ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় বেইজিং। গত জুলাই মাসে সিনিয়র চীনা সামরিক কর্মকর্তারা এ ধরনের মহড়া বিপদ ডেকে আনবে বলে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করেন। তবে চীনের হুমকির মুখে ওই অঞ্চলের অন্যদেশগুলো মহড়ায় অংশ না নিলেও যুক্তরাষ্ট্র অনুশীলন অব্যাহত রাখবে বলে জানিয়ছে। গত অক্টোবরে সর্বশেষ মহড়া চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। সিডনিতে দেয়া বক্তৃতায় হ্যারিস বলেন, মার্কিন জোটের হয়ে নৌমহড়ায় অংশ নেবে কি না তা অস্ট্রেলীয় সরকারের সিদ্ধান্তের ব্যাপার। তবে যুক্তরাষ্ট্র অনুশীলন অব্যাহত রাখবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24