চেতনা পুরোপুরি ফিরেছে ওবায়দুল কাদেরের

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

গতকাল ভোরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের চেতনা পুরোপুরি ফিরেছে।

সোমবার সকালে দলের উপ দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,“উনি কথা বলছেন। উনার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড সব বিবেচনা করে ঠিক করবেন লাইফ সাপোর্ট কখন খোলা হবে।”

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ সকালে চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার ‘ক্রমান্বয়ে উন্নতি’ হচ্ছে। তার সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে দুপুরে ব্রিফ করবেন চিকিৎসকরা।

গতকাল রোববার ভোরে নিজ বাসায় হঠাৎ শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যায় অসুস্থ হয়ে পড়েন ওবায়দুল কাদের। সকাল সাড়ে ৭টায় তাকে বিএসএমএমইউতে নেয়া হয়। সেখানে এনজিওগ্রাম করা হলে তার হার্টে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। এ তিনটি ব্লকের মধ্যে একটিতে স্টেন্ট (রিং) পরানোর পরও অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকায় তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

বিএসএমএমইউ সূত্র মতে, গতকাল সকালে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসেন ওবায়দুল কাদের। সঙ্গে সঙ্গে তার ইসিজি করা হয়। প্রথমে ইসিজি ভালোই ছিল। পর মুহূর্তেই দেখা যায়, সিইসি স্লোইস হয়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পর দেখা যায়, উনি শ্বাস নিতে পারছেন না। কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়ে গিয়েছিল। তারপর ওবায়দুল কাদেরের এনজিওগ্রাম করা হয়।

এতে দেখা যায়, তার তিনটি রক্তনালি ব্লক। হৃদযন্ত্রে তিনটি ব্লক নিশ্চিত হওয়ার পর ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় বিএসএমএমইউয়ের হৃদরোগ বিভাগের পক্ষ থেকে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। কার্ডিওলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আলী আহসানের নেতৃত্বে গঠিত মেডিকেল বোর্ডে আরও রয়েছেন অধ্যাপক ডা. চৌধুরী মেশকাত আহমেদ চৌধুরী, অ্যানেস্থেশিয়া বিভাগের অধ্যাপক ডা. দেবব্রত ভৌমিক, অধ্যাপক ডা. একেএম আক্তারুজ্জামান, কার্ডিও সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. রেজওয়ানুল হক, অধ্যাপক অসিত বরণ অধিকারী, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান, ডা. তানিয়া সাজ্জাদ, প্রিভেনটিভ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটিশন কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. হারিসুল হক প্রমুখ।

গতকাল রোববার দুপুর ২টার দিকে হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান ও মেডিকেল বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান বলেন, ‘উনার (ওবায়দুল কাদের) তিনটি নালিতেই ব্লক ছিল। যেটা ক্রিটিক্যাল ছিল, এলইডি বলে, সেটা ৯৯ ভাগ। এর জন্যই উনার এই সমস্যাটা হয়েছে। আমরা শুধু সেটাকেই সারিয়ে তুলছি। কিন্তু সেটা বোধ হয় পর্যাপ্ত নয়। যেহেতু তিনটা নালিই দরকার হয়, সেহেতু সবগুলো নালিই সারানো দরকার। কিন্তু এ মুহূর্তে সেগুলো সারানো যাবে না। সারাতে গেলে আরও বিপদ ঘটবে।’তিনি বলেন, কিন্তু উনার এখন যে পরিস্থিতি আছে, ওইটা করার পর উনি অনেক উন্নতির দিকে গিয়েছিলেন। আবার দেখা যায়, একটু ডিটোরেট করে, আবার একটু উন্নতি হয়। এ পর্যায়ে ওঠানামার মধ্যে আছে। এ অবস্থায় দেশবাসী আপনারা সবাই উনার জন্য দোয়া করেন।

আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি, যেটা বেটার ট্রিটমেন্ট, যত সোর্স আছে, সমস্ত সোর্স ব্যবহার করতে পারি।অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান আরও বলেন, দুটি নালির মধ্যে একটি নালিতে ৮০ ভাগ ব্লক রয়েছে। আর আগের একটি হার্ট অ্যাটাকের হিস্ট্রি আছে। সে কারণে সেটিও ১০০ ভাগ ব্লক।

আপাতত সিঙ্গাপুর নেয়া হচ্ছে না ওবায়দুল কাদেরকে
চিকিৎসার জন্য আপাতত সিঙ্গাপুর নেওয়া হচ্ছে না আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার শারীরিক অবস্থা এখন কিছুটা উন্নতির দিকে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদেরের সর্বশেষ শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ব্রিফ করেন উপাচার্য ও নিউরো সার্জন অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া।

তিনি বলেন, ওনার (ওবায়দুল কাদের) অবস্থা সকাল ও দুপুরের থেকে একটু উন্নতির দিকে। তিনি চোখ মেলে তাকিয়েছেন। পানি খাবেন কিনা জিগ্যেস করলে; মাথা নেড়েছেন। হাত-পা নাড়ছেন।

উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘সিঙ্গাপুর থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের একটি প্রতিনিধি এসেছিল। তারা রোগীকে দেখেছেন। তাদের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে। যেহুতু ওনাকে এখন শিফট করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তাই আমরা এখানে আগামী ২৪ ঘণ্টা রেখে চিকিৎসা করতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেহুতু তার অবস্থা এখন কিছুটা উন্নতির দিকে। সুতরাং আমরা তাকে এই মুহূর্তে সিঙ্গাপুরে না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকরাও বলেছেন; এখন তাকে মুভ করানো ঝুঁকিপূর্ণ।’
সুত্র-আমার সংবাদ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আজ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস

» চানপুর সাতহাল স.প্রা. বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া,সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

» একই পরিবারের ৫ সদস্যের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

» নির্বাচনী সহিংসতায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

» জগন্নাথপুরে টমটম উল্টে স্কুল ছাত্রসহ আহত-৫

» গণহত্যা দিবসে জগন্নাথপুরে আ,লীগের আলোচনা সভা

» জগন্নাথপুরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্ট্যান্ডসহ জাতীয় পতাকা বিতরণ

» ১২ ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানকে সর্বোচ্চ সম্মাননা স্বাধীনতা পুরস্কার প্রদান

» সিলেটে পাইপগানসহ আটক ১

» ১৩০০ যাত্রী নিয়ে সাগরে আটককে আছে প্রমোদতরী

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

চেতনা পুরোপুরি ফিরেছে ওবায়দুল কাদেরের

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

গতকাল ভোরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের চেতনা পুরোপুরি ফিরেছে।

সোমবার সকালে দলের উপ দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,“উনি কথা বলছেন। উনার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড সব বিবেচনা করে ঠিক করবেন লাইফ সাপোর্ট কখন খোলা হবে।”

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ সকালে চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার ‘ক্রমান্বয়ে উন্নতি’ হচ্ছে। তার সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে দুপুরে ব্রিফ করবেন চিকিৎসকরা।

গতকাল রোববার ভোরে নিজ বাসায় হঠাৎ শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যায় অসুস্থ হয়ে পড়েন ওবায়দুল কাদের। সকাল সাড়ে ৭টায় তাকে বিএসএমএমইউতে নেয়া হয়। সেখানে এনজিওগ্রাম করা হলে তার হার্টে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। এ তিনটি ব্লকের মধ্যে একটিতে স্টেন্ট (রিং) পরানোর পরও অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকায় তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

বিএসএমএমইউ সূত্র মতে, গতকাল সকালে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসেন ওবায়দুল কাদের। সঙ্গে সঙ্গে তার ইসিজি করা হয়। প্রথমে ইসিজি ভালোই ছিল। পর মুহূর্তেই দেখা যায়, সিইসি স্লোইস হয়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পর দেখা যায়, উনি শ্বাস নিতে পারছেন না। কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়ে গিয়েছিল। তারপর ওবায়দুল কাদেরের এনজিওগ্রাম করা হয়।

এতে দেখা যায়, তার তিনটি রক্তনালি ব্লক। হৃদযন্ত্রে তিনটি ব্লক নিশ্চিত হওয়ার পর ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় বিএসএমএমইউয়ের হৃদরোগ বিভাগের পক্ষ থেকে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। কার্ডিওলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আলী আহসানের নেতৃত্বে গঠিত মেডিকেল বোর্ডে আরও রয়েছেন অধ্যাপক ডা. চৌধুরী মেশকাত আহমেদ চৌধুরী, অ্যানেস্থেশিয়া বিভাগের অধ্যাপক ডা. দেবব্রত ভৌমিক, অধ্যাপক ডা. একেএম আক্তারুজ্জামান, কার্ডিও সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. রেজওয়ানুল হক, অধ্যাপক অসিত বরণ অধিকারী, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান, ডা. তানিয়া সাজ্জাদ, প্রিভেনটিভ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটিশন কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. হারিসুল হক প্রমুখ।

গতকাল রোববার দুপুর ২টার দিকে হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান ও মেডিকেল বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান বলেন, ‘উনার (ওবায়দুল কাদের) তিনটি নালিতেই ব্লক ছিল। যেটা ক্রিটিক্যাল ছিল, এলইডি বলে, সেটা ৯৯ ভাগ। এর জন্যই উনার এই সমস্যাটা হয়েছে। আমরা শুধু সেটাকেই সারিয়ে তুলছি। কিন্তু সেটা বোধ হয় পর্যাপ্ত নয়। যেহেতু তিনটা নালিই দরকার হয়, সেহেতু সবগুলো নালিই সারানো দরকার। কিন্তু এ মুহূর্তে সেগুলো সারানো যাবে না। সারাতে গেলে আরও বিপদ ঘটবে।’তিনি বলেন, কিন্তু উনার এখন যে পরিস্থিতি আছে, ওইটা করার পর উনি অনেক উন্নতির দিকে গিয়েছিলেন। আবার দেখা যায়, একটু ডিটোরেট করে, আবার একটু উন্নতি হয়। এ পর্যায়ে ওঠানামার মধ্যে আছে। এ অবস্থায় দেশবাসী আপনারা সবাই উনার জন্য দোয়া করেন।

আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি, যেটা বেটার ট্রিটমেন্ট, যত সোর্স আছে, সমস্ত সোর্স ব্যবহার করতে পারি।অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান আরও বলেন, দুটি নালির মধ্যে একটি নালিতে ৮০ ভাগ ব্লক রয়েছে। আর আগের একটি হার্ট অ্যাটাকের হিস্ট্রি আছে। সে কারণে সেটিও ১০০ ভাগ ব্লক।

আপাতত সিঙ্গাপুর নেয়া হচ্ছে না ওবায়দুল কাদেরকে
চিকিৎসার জন্য আপাতত সিঙ্গাপুর নেওয়া হচ্ছে না আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার শারীরিক অবস্থা এখন কিছুটা উন্নতির দিকে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদেরের সর্বশেষ শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ব্রিফ করেন উপাচার্য ও নিউরো সার্জন অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া।

তিনি বলেন, ওনার (ওবায়দুল কাদের) অবস্থা সকাল ও দুপুরের থেকে একটু উন্নতির দিকে। তিনি চোখ মেলে তাকিয়েছেন। পানি খাবেন কিনা জিগ্যেস করলে; মাথা নেড়েছেন। হাত-পা নাড়ছেন।

উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘সিঙ্গাপুর থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের একটি প্রতিনিধি এসেছিল। তারা রোগীকে দেখেছেন। তাদের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে। যেহুতু ওনাকে এখন শিফট করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তাই আমরা এখানে আগামী ২৪ ঘণ্টা রেখে চিকিৎসা করতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেহুতু তার অবস্থা এখন কিছুটা উন্নতির দিকে। সুতরাং আমরা তাকে এই মুহূর্তে সিঙ্গাপুরে না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকরাও বলেছেন; এখন তাকে মুভ করানো ঝুঁকিপূর্ণ।’
সুত্র-আমার সংবাদ

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।