বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সংগ্রামী সেই মেয়েটির পরিবারে উপজেলা পরিষদের সেলাই মেশিন প্রদান জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু

ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরিতে মেরামত কাজে অনিয়ম দেড় মাসে ৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা গচ্ছা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৬১ Time View

আল-হেলাল::সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার একমাত্র সরকারী সিমেন্ট ফ্যাক্টরির ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে কিল্ন মেরামত কাজে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। ফ্যাক্টরির এইচইসি কিলনের মেরামত কাজে বরাদ্ধের সিংহ ভাগই দূর্নীতির মাধ্যমে ভাগ-বাটোয়ারা করা হয়েছে বলে ফ্যাক্টরির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে শ্রমিক-কর্মচারিদের পক্ষে একটি লিখিত আভিযোগ দেয়া হয়েছে। যথা সময়ে কিল্ন উৎপাদনে না যাওয়ায় ফ্যাক্টরির শ্রমিক-কর্মচারীদের মধ্যে চরম হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। এদিকে কিল্ন সচল না হওয়ায় গত দেড় মাসে ৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা গচ্ছা দিতে হয়েছে। উৎপাদন বন্ধ রয়েছে গত ৩ সপ্তাহ ধরে। ব্যবস্থাপনা পরিচালক থেকে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী পর্যন্ত এই ফ্যাক্টরীর লোকবল প্রায় ১০০০ বলে জানা যায়।

গত বছরের ১৭ ডিসেম্বর ঠিকাদারী প্রতিষ্টান ক্যাথওয়েল্ড কনস্ট্রাকশনের অনুকূলে এইচইসি কিলনের শেল ও রোলার প্রতিস্থাপন এবং মেরামত কাজ শুরু হয়। ঐদিনই কিল্ন মেরামত কাজের আনুষ্টানিক ভাবে উদ্ভোধন করেন ছাতক-দোয়ারাবাজার আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক।

লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, ফ্যাক্টরির এইচইসি কিলনের শেল ও রোলার প্রতিস্থাপনসহ বিভিন্ন মেরামত কাজের চুক্তিনামা (সূত্র নং-সিসিসিএল/পার/ওয়ার্কস/০১/২০১৩-১৪-১৫ইং সিপি-৩২/৪৪৭) চুক্তিনামার শর্তানুযায়ী ৮ মাসের মধ্যে চলতি বছরের গত ১৬ আগষ্ট কাজটি শেষ করে ক্লিংকার উৎপাদন শুরু করার কথা ছিল। কিন্তু যথাসময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় গত ১৯ সেপ্টেম্বর পরীক্ষামূলক ভাবে কিলন চালুর জন্যে ৮ঘন্টা গ্যাস পার্জিং করে কিলন রুটেশনে দেয়ার পর মারাত্মক ত্রুটি দেখা দেয়। যার ফলে কিলনটি চালু করা সম্ভব হয়নি। গত ২১ সেপ্টেম্বর পূনরায় কিল্ন রুটেশনে দিলে এসি ড্রাইভ-মোটরের ক্যাবল পুড়ে যায়। এর দু’দিন পর ২৩ সেপ্টেম্বর ক্যাবল পরিবর্তন করে ডিসি ড্রাইভ-মোটর দ্বারা ২৪ সেপ্টেম্বর কিলন রুটেশনে দিলে প্যানেল বোর্ডে ফলস সিগন্যাল এবং এমপিআর-৪৮০ থেকে ৫০০ পর্যন্ত উঠানামা করতে থাকে এবং মোটর গরম হয়ে ট্রিপ করে কিলন বন্ধ হয়ে পড়ে। প্রকৃত পক্ষে ডিসি ড্রাইভ মোটরের ক্ষমতা ১৪০ কিলোওয়াট এবং সর্বোচ্চ এমপিআর-৩২৮। কিলন স্থাপনের পর হতে এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের কাছে হস্তাান্তরের পূর্ব মুহুর্ত পর্য়ন্ত এ মোটর দ্বারাই কিলনটি সূষ্টু ভাবে চলছিল। ২৫ সেপ্টেম্বর পূনরায় কিল্ন পার্জিং করে রুটেশনে দিলে পূর্বের ন্যায় এমপিআর উঠানামা করে এবং ৮ ঘন্টা চলার পর মোটর গরম হয়ে ট্রিপ করে আবারও কিলন বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে কিলনের নানাবিধ মেকানিক্যাল ক্রটির ফলে কিল্ন চালু করা যায়নি।

কিলনের শেল ও রোলার প্রতিস্থাপন এবং অন্যান্য মেরামত কাজ যথাযথ ভাবে সম্পন্ন না হওয়ায় কারনে কারখানাটি কোটি কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির কবলে পড়েছে। এছাড়া ৪নং ফাউন্ডেশনের টায়ার ও রোলারের ম্যাসিং এবং গিয়ার ও পিনিয়নের ম্যাসিং সটিকভাবে লাগানো না হওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ৪নং ফাউন্ডেশন থেকে বার্নিং জোন পর্যন্ত কিলনের শেল বাঁকা থাকার কারনে মোটরে অত্যাধিক চাঁপ সৃষ্টি হয়ে মোটর গরম হয় এবং এমপিআর উঠানামা করে এটি বারবার ট্রিপ করে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২৬ সেপ্টেম্বর হতে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কিলনের এ্যালাইনমেন্টসহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্টান। ইতোমধ্যেই ডিসি মোটরের জায়গায় প্রতিস্থাপনের জন্যে একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন মোটর চট্রগ্রাম হতে ফ্যাক্টরিতে আনা হয়েছে।

ফ্যাক্টরির অধিকাংশ দক্ষ শ্রমিক ও বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলীদের ধারণা, কিল্নের মেকানিক্যাল ক্রটি নিরসন না করে, কেন এবং কি কারনে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন মোটরটি স্থাপন করে কিলন চালানোর অপচেষ্টা করার বিষয়টি রহস্যজনক। চুক্তি মতে গত ৮ মাসের মধ্যে কিলন উৎপাদনে গেলে দৈনিক ২শ’৫০ মেট্রিক টন ক্লিংকার/সিমেন্ট উৎপাদন হতো। এসব উৎপাদিত সিমেন্টের বাজার মূল্য প্রতি মেট্রিক টন ৭ হাজার ৬শ’ টাকা হিসেবে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গত দেড় মাসে ৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা কারখানার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। ফ্যাক্টরির কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের প্রশ্ন এ ক্ষতির দায়ভার এখন কে বহন করবে ?

এদিকে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাষ্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) প্রধান কার্যালয় হতে ৩ সদস্যের বিশেষজ্ঞ কমিটি সরেজমিনে পরিদর্শন করে এইচইসি কিলনে মেরামত কাজে নানা অসংগতি ও ক্রটি-বিচ্যুতির জন্য উক্ত কমিটি অসন্তোস প্রকাশ করেছেন।

ফ্যাক্টরির সিবিএ সাধারন সম্পাদক মো. খলিলুর রহমান জানান, কিল্ন মেরামত কাজে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। মেরামতের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তা ব্যক্তিদের সুষ্ট তদারকির অভাবেই এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ফ্যাক্টরির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাসনাত আহমদ চৌধুরী দূর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মেরামতে কাজে মেকানিক্যাল সমস্যার কারনে কিল্ন চালাতে বিলম্ব হচ্ছে। আশা করছি দ্রুতই কিলনের ত্রুটি দুর করে কিল্ন পূরোদমে উৎপাদনে যাওয়া সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24