ছাত্রলীগের অবরোধে পুলিশের লাঠিচার্জ-টিয়ারশেল নিক্ষেপ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের ছয় কর্মীকে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দেয়ার অভিযোগে ডাকা অবরোধে পুলিশের হামলা, জল কামান ব্যবহার ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করছে। চলছে পুলিশ-ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া।

রোববার ১২টার দিকে ছাত্রলীগের অবরোধে পুলিশ ‍এই হামলা শুরু করে।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮ টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্ট অবরোধ করে প্রধান ফটক বন্ধ করে ছাত্রলীগ। চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে ট্রেনের হোস পাইপ কেটে দেয় আন্দোলনকারীরা। এসময় এক লোকো মাস্টারকে আটক করার অভিযোগ পাওয়া যায়। এই ধর্মঘটে বন্ধ র‍াখা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন, বাস, সিএনজি, রিক্সা এবং জোবাইকসহ ক্যাম্পাসের অধিকাংশ দোকানপাট। ‍এতে বিভিন্ন বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষাও বন্ধ রয়েছে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, শাটল ট্রেনের একজন লোকো মাস্টারকে তুলে নিয়ে যাওয়ার খবর শুনেছি৷ তাকে উদ্ধারে আমরা চেষ্টা করছি। হোস পাইপ কেটে দেয়ার বিষয়টি মৌখিকভাবে জেনেছি। আর স্টেশনে ঢোকার আগে রেলওয়ে নিরপত্তা বাহিনীর আওতাধীন থাকে ট্রেনটি। তারা আমাদেরকে অবহিত করলে আমরা নিরাপত্তা দিয়ে স্টেশনে আসতে সহযোগিতা করতাম।

এদিকে আন্দোলনকারীদের বাধার মুখে সকাল থেকে শহরগামী কোন শিক্ষক বাস ক্যাম্পাস ছেড়ে যেতে পারেনি। সকাল পৌনে ৮ টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন। এ বিষয়ে চবি ছাত্রলীগের জাহাঙ্গীর জীবন বলেন, চার দফা দাবিতে শান্তিপূর্ণ ছাত্র ধর্মঘট চলছে। দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

হাটহাজারী থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহংগীর বলেন, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের বারবার সংঘর্ষের কারণে জড়িত ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ঘটনায় তারা অবরোধের ডাক দেয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি দেখবেন বলেছেন। এরপরও তারা অবরোধ করেছে। আমরা তাদের শান্ত রাখার চেষ্টা করছি।

আটককৃতরা হলেন, বিজয় গ্রুপের ইংরেজি বিভাগের বেলাল উদ্দিন, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ইয়াছিন আরাফাত কায়সার, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের অমিত রায়, সিএফসি গ্রুপের আইন বিভাগের খালেদ মাসুদ ও সাকিব হাসান এবং সমাজত্ত্ব বিভাগের সিফাত উল্ল্যাহ সরকার।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি অস্ত্র মামলায় কারাগারে থাকা ছয় ছাত্রলীগ কর্মীর মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহার, ২০১৫ সাল থেকে সকল রাজনৈতিক মামলা প্রত্যাহার, হাটহাজারী থানার ওসির প্রত্যাহার ও প্রক্টরের পদত্যাগের দাবিতে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়।

সুত্র-আমার বাংলা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» পরীক্ষা কেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আটক-১

» দলকে না জানিয়ে এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

» ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কা হামলার সম্পর্কের প্রমাণ নেই’

» ক্লাসে শিক্ষকদের সিগারেট-পান নিষিদ্ধ

» জগন্নাথপুরে এক সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

» জগন্নাথপুরে নিসচা’র উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ

» জগন্নাথপুরের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে আনহার মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» জগন্নাথপুরে সু-সেবা নেটওয়ার্ক কমিটির ত্রিমাসিক পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসি গীতিকার আক্কাছ মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» হবিগঞ্জে প্রেমিক হত্যার পর খাটের নিচে মাটিতে পুতে রাখে প্রেমিকা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

ছাত্রলীগের অবরোধে পুলিশের লাঠিচার্জ-টিয়ারশেল নিক্ষেপ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের ছয় কর্মীকে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দেয়ার অভিযোগে ডাকা অবরোধে পুলিশের হামলা, জল কামান ব্যবহার ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করছে। চলছে পুলিশ-ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া।

রোববার ১২টার দিকে ছাত্রলীগের অবরোধে পুলিশ ‍এই হামলা শুরু করে।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮ টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্ট অবরোধ করে প্রধান ফটক বন্ধ করে ছাত্রলীগ। চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে ট্রেনের হোস পাইপ কেটে দেয় আন্দোলনকারীরা। এসময় এক লোকো মাস্টারকে আটক করার অভিযোগ পাওয়া যায়। এই ধর্মঘটে বন্ধ র‍াখা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন, বাস, সিএনজি, রিক্সা এবং জোবাইকসহ ক্যাম্পাসের অধিকাংশ দোকানপাট। ‍এতে বিভিন্ন বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষাও বন্ধ রয়েছে।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, শাটল ট্রেনের একজন লোকো মাস্টারকে তুলে নিয়ে যাওয়ার খবর শুনেছি৷ তাকে উদ্ধারে আমরা চেষ্টা করছি। হোস পাইপ কেটে দেয়ার বিষয়টি মৌখিকভাবে জেনেছি। আর স্টেশনে ঢোকার আগে রেলওয়ে নিরপত্তা বাহিনীর আওতাধীন থাকে ট্রেনটি। তারা আমাদেরকে অবহিত করলে আমরা নিরাপত্তা দিয়ে স্টেশনে আসতে সহযোগিতা করতাম।

এদিকে আন্দোলনকারীদের বাধার মুখে সকাল থেকে শহরগামী কোন শিক্ষক বাস ক্যাম্পাস ছেড়ে যেতে পারেনি। সকাল পৌনে ৮ টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন। এ বিষয়ে চবি ছাত্রলীগের জাহাঙ্গীর জীবন বলেন, চার দফা দাবিতে শান্তিপূর্ণ ছাত্র ধর্মঘট চলছে। দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

হাটহাজারী থানার ওসি বেলাল উদ্দিন জাহংগীর বলেন, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের বারবার সংঘর্ষের কারণে জড়িত ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ঘটনায় তারা অবরোধের ডাক দেয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি দেখবেন বলেছেন। এরপরও তারা অবরোধ করেছে। আমরা তাদের শান্ত রাখার চেষ্টা করছি।

আটককৃতরা হলেন, বিজয় গ্রুপের ইংরেজি বিভাগের বেলাল উদ্দিন, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ইয়াছিন আরাফাত কায়সার, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের অমিত রায়, সিএফসি গ্রুপের আইন বিভাগের খালেদ মাসুদ ও সাকিব হাসান এবং সমাজত্ত্ব বিভাগের সিফাত উল্ল্যাহ সরকার।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি অস্ত্র মামলায় কারাগারে থাকা ছয় ছাত্রলীগ কর্মীর মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহার, ২০১৫ সাল থেকে সকল রাজনৈতিক মামলা প্রত্যাহার, হাটহাজারী থানার ওসির প্রত্যাহার ও প্রক্টরের পদত্যাগের দাবিতে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়।

সুত্র-আমার বাংলা

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।