মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

ছাত্রীদের কমনরুমে ভিডিও ধারণের দায়ে ছাত্র বহিষ্কার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৭৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
রাজশাহীতে একটি হাইস্কুলে ছাত্রীদের কমনরুমে ভিডিও ধারণের অভিযোগে পারভেজ আহম্মেদ নামের এক ছাত্রকে স্কুলটি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বাঘা উপজেলার চণ্ডিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনায় অভিযুক্ত ওই ছাত্রের চাচা (অভিভাবক) বজলুর রহমানকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বুধবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উভয়কে ডেকে এই নির্দেশ দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিদুল ইসলাম।

জানা যায়, মোবাইল ফোনে ছাত্রীদের ছবি ধারণের জন্য গোপনে ছাত্রীদের কমনরুমের জানালার র‌্যাকের ওপর মোবাইলফোনটি চালু করে রেখে যায় একই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র পারভেজ আহম্মেদ।

বিদ্যালয় ছুটির পর কমনরুমের কক্ষ বন্ধ করার সময় প্রতিষ্ঠানের আয়া জরিনা বেগম মোবাইল ফোনটি দেখতে পেয়ে বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক আবদুল কুদ্দুসের কাছে জমা দেন। পরে বিষয়টি প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলামকে জানান আবদুল কুদ্দুস।

প্রধান শিক্ষক ফোনটি স্কুল গভর্নিং কমিটির সভাপতি ও বাজুবাঘা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমানের কাছে জমা দেয়ার জন্য বলেন।

প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে মোবাইল ফোনটি সভাপতির কাছে ধর্মীয় শিক্ষক আবদুল কুদ্দুস জমা দিতে যাওয়ার সময় অভিযুক্ত শিক্ষার্থী পারভেজ আহম্মেদ ও তার চাচা বাজুবাঘা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি বজলুর রহমান বিদ্যালয়ে এসে ফোন চায়। ফোন দিতে না চাইলে উভয়ে মিলে বাঁশের লাঠি দিয়ে ওই ধর্ম শিক্ষককে মারধর করে। স্থানীয়রা এগিয়ে গিয়ে শিক্ষককে উদ্ধার করে।

ধর্ম শিক্ষক কুদ্দুস জানান, আমার কাছে এসে তারা ফোন চেয়েছে। দিতে না চাইলে তারা আমাকে মারধর শুরু করে। বর্তমানে আমি স্থানীয় চিকিৎসকের মাধ্যমে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছি।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, তাৎক্ষণিক আমি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানিয়েছিলাম। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে কাজ করেছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুল ইসলাম বলেন, উভয়কে বুধবার আমার কার্যালয়ে ডাকা হয়েছিল। ওই শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের নির্দেশ দিয়েছি। এছাড়া তার অভিভাবক চাচাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24