বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব

ছাত্রী ধর্ষণ মামলার দুই নম্বর আসামির দুই নম্বরি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১১ মে, ২০১৭
  • ৩৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: রাজধানীর বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণ মামলার দুই নম্বর আসামি নাঈম আশরাফ নিজের নাম-পরিচয় গোপন রেখে নানা ধরনের দুই নম্বরি করেছেন বলে অভিযোগ আছে।

এ ব্যাপারে বুধবার দুপুরে বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুল মতিন প্রথম আলোকে বলেন, আসামি নাঈম আশরাফের বাড়ি সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার গান্দাইল ইউনিয়নে। তাঁর বাবার নাম আমজাদ হোসেন।

ওই এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নাঈম আশরাফের প্রকৃত নাম আবদুল হালিম। গান্দাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফ আলীর ছোট ছেলে নাঈম আশরাফের নাম ভাঙিয়ে ঢাকায় চলতেন। নাঈম আশরাফ পরিচয় দানকারী আবদুল হালিম অসচ্ছল পরিবারের সন্তান। এলাকায়ও তিনি দুই নম্বরির জন্য পরিচিত।

জানতে চাইলে গান্দাইল ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফ আলী বলেন, তিনি একটা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। নাঈম আশরাফ পরিচয় দানকারী আবদুল হালিমকে চেনেন কি না, জানতে চাইলে গান্দাইল ইউপির চেয়ারম্যান আশরাফ আলী মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘ও শুধু সিরাজগঞ্জের ছেলেই নয়, আমরা একই উপজেলার একই ইউনিয়নের একই গ্রামের মানুষ। ওর গোটা পরিবারকেই আমি চিনি। আমার ছেলের নাম ব্যবহার করে সে ঢাকায় মানুষ ঠকিয়ে বেড়াচ্ছে।’

আশরাফ আলীর ভাষ্য, ‘আবদুল হালিম দশম শ্রেণিতে টেস্ট পরীক্ষার সময় প্রশ্নপত্র ফাঁস করেছিল। এই দিয়েই ঠগবাজির শুরু। এসএসসি পাস করার পর বাড়িতে তার নিয়মিত যাতায়াত ছিল না। তবে বগুড়ার এক নারীকে একবার নিয়ে এসে মেয়র সাহেবের বাড়ি দেখিয়ে বলেছিল, ওটা তার বাড়ি। মেয়েটির পরিবার পরে তা জানতে পেরে আবদুল হালিমকে বেদম মারধর করে।’ তিনি ঢাকায় কী করছেন, সে সম্পর্কে এই ইউপি চেয়ারম্যানের ভালো ধারণা ছিল না। তবে একটি ঘটনার পর তিনি তাঁর ব্যাপারে জানতে পারেন। তিনি বলেন, গত বছর তিনি ঢাকার একটি থানা থেকে ফোন পান। একজন উপপরিদর্শক তাঁকে বলেন যে একজন যুবক পুরান ঢাকার এক ধনাঢ্য শিল্পপতির মেয়েকে তুলে নিয়ে গেছেন। ওই যুবক নিজেকে তাঁর আত্মীয় বলে পরিচয় দিচ্ছেন। তিনি পরে থানায় গিয়ে আবদুল হালিমকে শনাক্ত করেছিলেন বলে জানান।

এর সঙ্গে আশরাফ আলী যোগ করেন, পরে আবদুল হালিম ওই মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর ওই মেয়ে সিরাজগঞ্জের গান্দাইল গ্রামে বেড়াতে গিয়ে দেখেন, তাঁকে যা বলা হয়েছিল, তা সত্য নয়। মিথ্যা বলে স্বামী ঠকিয়েছেন—এমন অভিযোগে বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটান ওই নারী। বনানীতে দুই ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় নাম ও ছবি প্রকাশ পাওয়ার পর এই চেয়ারম্যান তাঁর আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে কথা বলেছেন। যেখান থেকে হোক তাঁকে খুঁজে বের করে দিতে বলেছেন।

এসব বিষয়ে নাঈম আশরাফ পরিচয়ধারী আবদুল হালিমের সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

ঢাকায় গুলশান অঞ্চলের এক ঊর্ধ্বতন পুলিশ সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্মের মালিক পরিচয়ে নাঈম আশরাফ নারীদের প্রলুব্ধ করতেন এবং মামলার প্রধান আসামি শাফাত আহমেদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতেন বলে তাঁরা খবর পাচ্ছেন।

২৮ মার্চ ধর্ষণের ঘটনা ঘটার পর ৬ মে এ ব্যাপারে বনানী থানায় মামলা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী। এই ধর্ষণ মামলার পাঁচ আসামি হলেন শাফাত আহমেদ, নাঈম আশরাফ, সাদমান সাকিফ, শাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষী আবুল কালাম আজাদ। শাফাতের বাবা আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক দিলদার আহমেদ। সুত্র-প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24