জগন্নাথপুরের দৃষ্টিহীন এসএসসি পরীক্ষার্থী চয়ন অন্ধত্ব জয় করতে চায়

বিশেষ প্রতিনিধি ::
চয়ন তালুকদার। চোখে দেখে না সে। দুই চোখেই তার অন্ধ। এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী সে। শিক্ষা সংগ্রামী এ শিক্ষার্থী সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।
শনিবার বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা শেষে জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরীক্ষা কেন্দ্রে থেকে বের হওয়ার সময় চয়ন এ প্রতিবেদককে জানায়, ছোট বেলা থেকেই পড়াশুনার প্রতি তার প্রচন্ড আগ্রহ। তাই বাবা-মা-ভাই বোন ও শিক্ষকদের সহযোগিতায় লেখাপড়া শুরু করে সে। চয়ন আরো জানায়, মুখে পড়া মুখস্থ করে সে। আর অন্যকে দিয়ে খাতায় লিখানো হয়। একাজে তাকে বেশি সহযোগিতা করে আসছে তার ছোট বোন মৌসুমী তালুকদার। সেও এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। এবারের পরীক্ষায় তাকে লেখায় সহযোগিতা করছে তাদের বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র মাজহারুল ইসলাম। প্রথম বাংলা পরীক্ষা ভালো হয়েছে। তার বিশ্বাস সে পরীক্ষার ফলাফল ভালো করবে। লেখাপাড়ার মাধ্যমে অন্ধত্বকে জয় করে বাবা মাকে সংসারে সহযোগিতা করতে চায় বলে জানিয়েছে চয়ন তালুকদার।
জানা যায়, জগন্নাথপুর পৌরশহরের পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের কৃষক নিতাই তালুকদারের ছেলে চয়ন তালুকদার ও তার ছোট বোন মৌসুমী তালুকদার এবার শহরের আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে চয়নের অবস্থান তিনে। জন্ম থেকেই সে অন্ধ। কিন্তুু পড়াশুনায় তার আগ্রহ প্রচন্ড। পরিবারের লোকজনের সহযোগিতায় লেখাপড়ায় চালিয়ে যাচ্ছে সে। একাজে তাকে বেশি সহযোহিতা করছে তারই সহপাঠী আপন বোন মৌসুমী তালুকদার।
চয়নের বোন মৌসুমী তালুকদার জানান, আমরা ভাই-বোন একই বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা দিচ্ছি মানবিক বিভাগ থেকে। চয়ন আমার বড়। তার চোখের আলো না থাকলেও তার মুখস্ত বিদ্যা খুবই ভালো। লেখা-পড়ায় আমি তাকে বেশি সহযোগিতা করে আসছি। সে মুখস্থ করে মুখে বলে দেয় আমি এবং বিদ্যালয়ের অন্যশিক্ষার্থীরা তাকে লেখায় সাহায্য করেছি। আমার বিশ্বাস পরীক্ষায় সে ভালো ফলাফল অর্জন করবে।
চয়নকে এবারের পরীক্ষায় তারই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র মাজহারুল ইসলাম খাতায় লিখে দিচ্ছে।
মাহজারুল জানায়, চয়ন তালুকদার অন্ধ হলেও পড়াশুনায় তার আগ্রহ বেশি। তাই আমি তাকে শুধু সাহায্য করছি লেখার মাধ্যমে। চয়ন প্রশ্নপত্রের উত্তর আমাকে মুখে বলে দেয়, আর আমি তা লিখে দেই। আশা করছি, সে পরীক্ষা ভালো ফলাফল করবে।
চয়নের বাবা নিতাই তালুকদার বলেন, জন্ম থেকেই সে অন্ধ। দু’চোখেই সে দেখে না। কিন্তুু পড়াশুনায় অদ্যম ইচ্ছা। তার শিক্ষকদের পরার্মশক্রমে লেখাপড়ার ব্যবস্থা করে দেই। তাকে সকল সময় তার বোন সহযোগিতা করছে।
আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিৎ দাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর টকমকে বলেন, ইচ্ছাশক্তির কাছে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা কিছু নেই। দৃষ্টি প্রতিবন্ন্ধী হওয়ার পরও চয়ন এগিয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে। বোর্ডের অনুমতিক্রমে সে পরীক্ষা দিচ্ছে।
জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের সহকারী সচিব আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শ্রুতি লেখক পদ্ধতিতে বোর্ডের নির্দেশনা অনুয়ায়ী মাজহারুল ইসলাম মাধ্যকে পরীক্ষা দিচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরে প্রবাসিদের সঙ্গে আইডিয়াল ভিলেজ ফোরামের মতবিনিময় সভা

» নিউজিল্যান্ডের সংসদে পবিত্র আল কোরআন তিলাওয়াত!

» প্রাথমিক শিক্ষক পদে এপ্রিলে পরীক্ষা

» বিশ্বনাথে দুই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৯ জনের জামাত বাজেয়াপ্ত

» স্যান্ডেলের ভেতর ১০ হাজার ডলার!

» আবারও নিরাপদ সড়ক’র দাবীতে আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা

» গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি- রডের পরিবর্তে বাঁশ দেবেন না

» জগন্নাথপুরে গাঁজাসহ গ্রেফতার-১

» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরের দৃষ্টিহীন এসএসসি পরীক্ষার্থী চয়ন অন্ধত্ব জয় করতে চায়

বিশেষ প্রতিনিধি ::
চয়ন তালুকদার। চোখে দেখে না সে। দুই চোখেই তার অন্ধ। এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী সে। শিক্ষা সংগ্রামী এ শিক্ষার্থী সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।
শনিবার বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা শেষে জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরীক্ষা কেন্দ্রে থেকে বের হওয়ার সময় চয়ন এ প্রতিবেদককে জানায়, ছোট বেলা থেকেই পড়াশুনার প্রতি তার প্রচন্ড আগ্রহ। তাই বাবা-মা-ভাই বোন ও শিক্ষকদের সহযোগিতায় লেখাপড়া শুরু করে সে। চয়ন আরো জানায়, মুখে পড়া মুখস্থ করে সে। আর অন্যকে দিয়ে খাতায় লিখানো হয়। একাজে তাকে বেশি সহযোগিতা করে আসছে তার ছোট বোন মৌসুমী তালুকদার। সেও এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। এবারের পরীক্ষায় তাকে লেখায় সহযোগিতা করছে তাদের বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র মাজহারুল ইসলাম। প্রথম বাংলা পরীক্ষা ভালো হয়েছে। তার বিশ্বাস সে পরীক্ষার ফলাফল ভালো করবে। লেখাপাড়ার মাধ্যমে অন্ধত্বকে জয় করে বাবা মাকে সংসারে সহযোগিতা করতে চায় বলে জানিয়েছে চয়ন তালুকদার।
জানা যায়, জগন্নাথপুর পৌরশহরের পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের কৃষক নিতাই তালুকদারের ছেলে চয়ন তালুকদার ও তার ছোট বোন মৌসুমী তালুকদার এবার শহরের আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে চয়নের অবস্থান তিনে। জন্ম থেকেই সে অন্ধ। কিন্তুু পড়াশুনায় তার আগ্রহ প্রচন্ড। পরিবারের লোকজনের সহযোগিতায় লেখাপড়ায় চালিয়ে যাচ্ছে সে। একাজে তাকে বেশি সহযোহিতা করছে তারই সহপাঠী আপন বোন মৌসুমী তালুকদার।
চয়নের বোন মৌসুমী তালুকদার জানান, আমরা ভাই-বোন একই বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা দিচ্ছি মানবিক বিভাগ থেকে। চয়ন আমার বড়। তার চোখের আলো না থাকলেও তার মুখস্ত বিদ্যা খুবই ভালো। লেখা-পড়ায় আমি তাকে বেশি সহযোগিতা করে আসছি। সে মুখস্থ করে মুখে বলে দেয় আমি এবং বিদ্যালয়ের অন্যশিক্ষার্থীরা তাকে লেখায় সাহায্য করেছি। আমার বিশ্বাস পরীক্ষায় সে ভালো ফলাফল অর্জন করবে।
চয়নকে এবারের পরীক্ষায় তারই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র মাজহারুল ইসলাম খাতায় লিখে দিচ্ছে।
মাহজারুল জানায়, চয়ন তালুকদার অন্ধ হলেও পড়াশুনায় তার আগ্রহ বেশি। তাই আমি তাকে শুধু সাহায্য করছি লেখার মাধ্যমে। চয়ন প্রশ্নপত্রের উত্তর আমাকে মুখে বলে দেয়, আর আমি তা লিখে দেই। আশা করছি, সে পরীক্ষা ভালো ফলাফল করবে।
চয়নের বাবা নিতাই তালুকদার বলেন, জন্ম থেকেই সে অন্ধ। দু’চোখেই সে দেখে না। কিন্তুু পড়াশুনায় অদ্যম ইচ্ছা। তার শিক্ষকদের পরার্মশক্রমে লেখাপড়ার ব্যবস্থা করে দেই। তাকে সকল সময় তার বোন সহযোগিতা করছে।
আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিৎ দাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর টকমকে বলেন, ইচ্ছাশক্তির কাছে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা কিছু নেই। দৃষ্টি প্রতিবন্ন্ধী হওয়ার পরও চয়ন এগিয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে। বোর্ডের অনুমতিক্রমে সে পরীক্ষা দিচ্ছে।
জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের সহকারী সচিব আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শ্রুতি লেখক পদ্ধতিতে বোর্ডের নির্দেশনা অনুয়ায়ী মাজহারুল ইসলাম মাধ্যকে পরীক্ষা দিচ্ছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।