শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ আমি স্বাধীনতা বিরুধী পরিবারের সন্তান নই- চেয়ারম্যান আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুরে বাংলা মিরর সম্পাদক আব্দুল করিম গনি সংবর্ধিত জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন

জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে শেষ হয়েছে ধান কাটা চলছে ধান শুকানো ও সংরক্ষনের কাজ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ মে, ২০১৫
  • ২৬১ Time View

অমিত দেব:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে শেষ হয়েছে ধান কাটা। এখন চলছে ধান শুকানো ও গোলায় তুলার কাজ। কৃষকদের পাশাপাশি কৃষানীরা ব্যস্ত ও কর্মচাঞ্চল হয়ে পড়েছেন। হাওর এলাকার ঘরে ঘরে চলছে গোলায় ধান সংরক্ষনের কাজ। কৃষকরা জানান, একমাত্র বোরো ফসলের ওপর এ উপজেলার কৃষকরা নির্ভরশীল এবার নানা প্রতিকূলতার মাধ্যমে তাদেরকে ধান তুলতে হয়েছে। ফলে আয় ব্যয়ের হিসাব মিলাতে হিমশিম খাচ্ছেন। কৃষকরা জানান, উপজেলার অন্যতম হাওর নলুয়া ও মইয়াসহ ছোট বড় সবকটি হাওরে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। যথাসময়ে ধান পাকতেও শুরু করে। কিন্তুু বৈশাখের শুরুতেই কাল বৈশাখী ঝড় ও শীলা বৃষ্টি দেখা দেয়। এতে এ উপজেলার হাওরগুলোতে যৎসামান্য ক্ষতি হয়। শুরু হয় ধান কাটার মহোৎসব। কিন্তুু শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকরা বিপাকে পড়েন। পাকা ধান গোলায় তুলতে সমস্যায় পড়েন এবস্থায় আবারো শুরু টানা বৃষ্টি। সমস্ত হাওর হয়ে পড়ে জলমগ্ন। বৃষ্টির কারণে ধান কাটা মাড়াই দেয়া ও শুকানোর কাজ ব্যহত হয়। হঠাৎ করে মইয়ার হাওরের বড় ডহর বেড়িবাঁধ রাতের আধারে কেটে দেয় একদল দুর্বৃত্ত। শুরু হয় কৃষককের মধ্যে আবারও ফসল তলিয়ে যাওয়ার আতংক। সামান্য ক্ষয়ক্ষতি হলেও বড় ধরনের ক্ষয় ক্ষতি থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্উাবো কর্মকর্তার স্থানীয় কৃষকদের সহায়তায় সেই বেড়ি বাঁধ মেরামতের প্রচেষ্ঠা চালিয়ে রক্ষা করেন এ সুযোগে কৃষকরা শেষ করে ধান কাটার কাজ।
২১ কিলোমিটার লম্বা খলা:: ধান শুকানোর জায়গাকে কৃষক কৃষানীদের ভাষায় খলা বলা হয়ে থাকে। বৃষ্টি ও রৌদের খেলায় কৃষকরা এবার ধান শুকাতে হিমশিন খাচ্ছেন। ধান কেটে মাড়াই দিয়ে বাড়িতে আনা হলেও ধান শুকানো নিয়ে বেকায়দায় পড়েছেন কৃষকরা। গত দুই দিন ধরে প্রচন্ড রৌদের দেখা পাওয়ায় কৃষক কৃষানীরা ধান শুকাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। বাড়ি আঙ্গিনায় খলা তৈরী করে ধান শুকানোর পাশাপাশি কৃষকরা কম সময়ে বেশী ধান শুকানোর জন্য রাস্তায় ধান শুকানোর কাজ করতে দেখা যায়। সরেজমিনে জগন্নাথপুরের আলখানা থেকে পাগলা আব্দুর রইছ চত্বর পর্যন্ত ২১ কিলোমিটার সড়ক জুড়ে ধান শুকানোর দৃশ্য দেখা গেছে। ধানের পাশাপাশি গবাদিপশুর খাবার জোগাড়ের জন্য খড় শুকানোর ও চলছে। খাশিলা গ্রামের কৃষক ময়না মিয়া রাস্তায় ধান শুকানো প্রসঙ্গে বলেন,রাস্তায় ধান শুকাতে গেলে কম সময়ে বেশী ধান শুকানো যায়। পাকা রাস্তার গরমে ধান তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়। কলকলিয়ার কৃষক আবুল খয়ের জানান, প্রকৃতির রৌদ বৃষ্টির খেলায় ধান শুকানো কষ্টকর হয়ে পড়েছে। ভালো ভাবে ধান শুকিয়ে সংরক্ষন না করলে চাল ভাল হবে না।

দক্ষিন সুনামগঞ্জের ছয়হারা এলাকার কৃষক সুনীল বৈদ্য বলেন, সড়কের পাশে বাড়ি থাকায় অনেক সুবিধা হচ্ছে ধান ও খড় শুকাতে। তিনি জানান ধানের পাশাপাশি গবাদি পশুর খাবারের জন্য খড় শুকিয়ে বাড়িতে নিয়ে রাখা হচ্ছে কারণ বর্ষা মৌসুমে গরু বাছুরের জন্য খড়ই খাবারের একমাত্র অবলম্বন। উক্ত সড়কের বাস চালক মজিদ মিয়া বলেন, সড়কজুড়ে এখন শুধু ধান আর খড়। তাই আমাদের গাড়ি চালাতে কষ্ট হয়। তারপরও আমরা খুশি কৃষকরা ধান ঠিকমতো গোলায় তুলতে পারলে আমরাও শান্তিতে বাঁচতে পারব।

চিন্তিত কৃষক:: সরকারিভাবে ধান চাল ক্রয় ও ধানের নায্য মূল্য পাওয়া না পাওয়ার হিসাব মিলাতে গিয়ে কৃষকরা চিন্তিত।কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, হাওরগুলোতে বাম্পার ফলন হলেও ঝড় শীলা বৃষ্টি ও বড়ডহর বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি প্রবেশ করায় জলমগ্ন জমিতে ধান কাটতে গিয়ে কৃষকরা সব ধান তুলতে পারেননি। আবার ধান কাটা ও পরিবহনে অতিরিক্ত খরচ হওয়ায় কৃষকরা আয় ব্যয়ের হিসাব মিলাতে পারছেন না। যে কারণে বাম্পার ফলন হওয়ার পরও কৃষকদের মুখে হাসি নেই।

নলুয়ার হাওরের কৃষক ফরুক মিয়া বলেন, বড় ডহর বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি ঢুকায় ১৪ কেদার জমির মধ্যে তিন কেদার জমির ফসল পানিতে তলিতে যাওয়ায় ধান কাটতে পারিনি। এছাড়াও বৃষ্টির পানিতে হাওর জলমগ্ন সব মিলিয়ে লাভবান নই।

চিলাউড়া গ্রামের কৃষক সুনু মিয়া বলেন, সঠিকভাবে ধান তুলতে পারলে এবার কৃষকরা লাভবান হতেন। কিন্তুু ঝড় বৃষ্টি ও জলমগ্ন তার কারণে কেদার প্রতি যে ধান পেয়েছি তাতে সব হিসাব মিলিয়ে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশী দেখা গিছে। তাঁর মতে সরকার কৃষকদেরকে বাঁচাতে হলে ধানের নায্য দান নিশ্চিত করতে হবে।

কৃষক নেতা শহিদুল ইসলাম বলেন, কৃষকরা সরকারী গুদামে ধান দিতে পারে না। সরকার কৃষকদের নায্য দামে ধান বিক্রির সুব্যবস্থা না করলে কৃষিকাজ থেকে কৃষকরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, জগন্নাথপুরে এবার ২১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরা আবাদ হয়েছে। এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ১৭ হাজার মেট্রিক টন । প্রাকৃতিক নানা অসুবিধায় ২০০০ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বাম্পার ফলন হওয়ায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ব্যহৃত হয়নি বলে তিনি দাবী করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24