জগন্নাথপুরে আ.লীগে বিরোধ নিরসনের প্রচেষ্ঠা, বিএনপিতে নিরবতা

আলী আহমদ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে র্দীঘদিন ধরে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে গৃহদাহ চলছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ দলীয় বিরোধ নিস্পতির লক্ষ্যে ঐক্যের ডাক দিয়েছে। সেলক্ষ্যে গত দুইদিন ধরে বিবাদমান দুই পক্ষের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করার জন্য  আওয়ামী লীগ দলের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব অবসানের প্রক্রিয়া শুরু করলেও বিএনপির কোন্দল নিরসনে নেই কোন উদ্যোগ।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুই মনোনন প্রত্যাশি সাবেক যুগ্ম সচিব এমএ মান্নান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ ডনকে ঘিরে  উপজেলা আওয়ামী লীগ দুইভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতিকে নির্বাচনে অংশ নেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান। তাঁর সাথে ছিলেন জগন্নাথপুরের আওয়ামী লীগ পরিবারের অভিভাবক হিসেবে পরিচিত বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ সুনামগজ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ,অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত আজিজুস সামাদ ডন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন। তাঁর সাথে ছিলেন সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস হাসিমসহ আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা।
এ নির্বাচনে আজিজুস সামাদ ডন বর্তমান সংসদ সদস্য ও অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের নিকট পরাজিত হন। এরপর থেকেই প্রকাশ্যে বিরোধে রূপ নেয় আওয়ামী লীগে। জাতীয় বিভিন্ন দিবসসহ সকল সাংগঠনিক কার্যক্রম পৃথক পৃথকভাবে পালন করে আসছে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপ।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ও পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দুভাবে বিভক্ত ছিল।
একাদশ জাতীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, আজিজুস সামাদ ডনসহ ছয়সাত জন আওয়ামী লীগ নেতা। দলীয় প্রার্থীর চুড়ান্ত তালিকায় এমএ মান্নানের মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর নির্বাচনী মাঠে জোরেশোরে গুঞ্জন চলছে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হলে আজিজুস সামাদ ডন ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন করতে পারেন। এমতাবস্থায় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের পক্ষের লোক হিসেবে পরিচিত জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদ। গত দুইদিন ধরে মুঠোফোনে আওয়ামী লীগের বিভক্ত নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু মিয়া বলেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমাদের রাজনীতির অভিভাবক সিদ্দিক আহমদ ইতিমধ্যে ঐক্যের ডাক দিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন। নৌকার স্বার্থে সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবেন এমন আশ্বাস মিলছে। দলীর বৃহৎ স্বার্থে শিগ্ররিই অভ্যন্তরীন বিরোধ অবসান হবে।  অপর দিকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক আজিজুস সামাদ ডন বলয়ের সমর্থক উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মনাফ বলেন, নৌকার বিজয়ের জন্য দলের কোন্দল নিরসল করা খুবই অপরিহার্য। এরই মধ্যে ঐক্যের জন্য আমাদের বর্ষিযান রাজনীতিবিদ সিদ্দিক আহমদ আমাকে ফোন করে জানিয়েছেন সকল ভেবাভেদ ভুলে নৌকার পক্ষে ঐক্যে গড়ে তুলতে। আমরা যারা মুজিব আর্দশের সৈনিক তারা কখনও দলের দুর্রদিনে দূরে থাকবনা। আশা করছি অচিরেই বিরোধের অবসান ঘটবে।

জগন্নাথপুরের আওয়ামী লীগ পরিবারের অভিভাবক সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার পক্ষের একমাত্র বৃহৎ রাজনৈতিক দল। বড় ঘরে মান-অভিমান থাককেই পারে। তবে দলের প্রয়োজনে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয়ে একমিছিলে অংশ নেবে। ইতিমধ্যে দলের অনেক নেতাকর্মীর সাথে আলাপ আলোচনা করেছি। প্রতিশ্রতিও মিলছে সমাধানের। আশা করছি দ্রুত বিরোধের অবসান হবে।

এদিকে উপজেলা বিএনপির দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে অভ্যন্তরীন কোন্দলে দুইভাগে বিভক্ত হয়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। উপজেলা বিএনপির এক গ্রুপের নেতৃত্বে দিচ্ছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার ও সাধারণ সম্পাদক কবির আহমদ। অন্যদিকে উপজেলা বিএনপির অপর গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন।

২০০৮ সালে উপজেলা বিএনপির সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিএনপির ঘরে বিরোধ দেখা দেয়। সম্মেলনে আক্তার হোসেনকে সভাপতি ও লুৎফুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির বিরোধিতা করে উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার ও উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি কবির আহমদ। ওই কমিটি প্রত্যাখান করে আবু হুরারা ও কবির আহমদের নেতৃত্বে উপজেলা বিএনপির একাংশের নেতাকর্মীরা সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে।
২০১৪ সালে বিএনপি নেতা কর্নেল সৈয়দ আলী আহমদকে আহবায়ক করে উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটির গঠন করা হয়। এ কমিটি মেনে নেয়নি উপজেলা বিএনরি সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেন পক্ষের নেতাকর্মীরা। এনিয়ে দু’পক্ষের নেতাকর্মীরা প্রকাশ্য রাজপথে মুখামুখি অবস্থান নেয়। সর্বশেষ ২০১৭ সালে আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টারকে সভাপতি ও কবির আহমদকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠন হয়। এ কমিটির প্রত্যাখান করে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেনের পক্ষের নেতাকর্মীরা রাজপথে মিছিল-মিটিং সভা সমাবেশ করে। সেই থেকে দলীয় বিরোধ আরও ত্বরান্তিত হয়।
আগামী জাতীয় নির্বাচন নির্বাচনে বিএনপির থেকে সাত/ আটজন মনোনয়ন প্রত্যাশিত হলেও দলের ভেরতের আগুন নেভানোর কোন প্রচেষ্ঠা নেই বিএনপির। নেতৃমূল বিএনপির নেতাকর্মীরা বলছেন, দলের বিরোধ মিট না হলে সংসদ নির্বাচনে প্রভাব পড়তে পারে।

এবিষয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমক বলেন, আমার মা খালেদা জিয়ার মুক্তির মিছিলে সকল জিয়ার সৈনিক ঐক্যবদ্ধ। অভ্যন্তরিক বিরোধ সমাধানে কোন না থাকলেও নির্বাচনে প্রভাব করবেনা । কারণ ধানের শীর্ষ প্রতিকই হচ্ছে ঐক্য। 
এব্যাপারে জানতে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মেয়র আক্তার হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া য়ায়নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘ড. কামালের ওপর হামলা দুঃখজনক, ফৌজদারি অপরাধ’

» ভোটকক্ষে সাংবাদিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

» বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ

» বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরে দাড়াতে দুই দিনের আল্টিমেটাম আ.লীগের

» জগন্নাথপুরে বিএনপির সভায় পাশা- সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে নৌকার পোষ্টার ছেঁড়ে ফেলায় যুবদল নেতা গ্রেফতার

» উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দিন- এম এ মান্নান

» জগন্নাথপুরে ডা: মাসুম খানের মৃত্যুতে শোকসভা

» নৌকা সমর্থনে পাটলী ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মীসভা

» জগন্নাথপুরে সুজনের আয়োজনে জনগনের মুখোমুখি তিন প্রার্থী

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে আ.লীগে বিরোধ নিরসনের প্রচেষ্ঠা, বিএনপিতে নিরবতা

আলী আহমদ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে র্দীঘদিন ধরে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে গৃহদাহ চলছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ দলীয় বিরোধ নিস্পতির লক্ষ্যে ঐক্যের ডাক দিয়েছে। সেলক্ষ্যে গত দুইদিন ধরে বিবাদমান দুই পক্ষের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ চলছে। নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করার জন্য  আওয়ামী লীগ দলের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব অবসানের প্রক্রিয়া শুরু করলেও বিএনপির কোন্দল নিরসনে নেই কোন উদ্যোগ।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুই মনোনন প্রত্যাশি সাবেক যুগ্ম সচিব এমএ মান্নান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ ডনকে ঘিরে  উপজেলা আওয়ামী লীগ দুইভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতিকে নির্বাচনে অংশ নেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান। তাঁর সাথে ছিলেন জগন্নাথপুরের আওয়ামী লীগ পরিবারের অভিভাবক হিসেবে পরিচিত বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ সুনামগজ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ,অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত আজিজুস সামাদ ডন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন। তাঁর সাথে ছিলেন সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস হাসিমসহ আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মীরা।
এ নির্বাচনে আজিজুস সামাদ ডন বর্তমান সংসদ সদস্য ও অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের নিকট পরাজিত হন। এরপর থেকেই প্রকাশ্যে বিরোধে রূপ নেয় আওয়ামী লীগে। জাতীয় বিভিন্ন দিবসসহ সকল সাংগঠনিক কার্যক্রম পৃথক পৃথকভাবে পালন করে আসছে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপ।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ও পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দুভাবে বিভক্ত ছিল।
একাদশ জাতীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, আজিজুস সামাদ ডনসহ ছয়সাত জন আওয়ামী লীগ নেতা। দলীয় প্রার্থীর চুড়ান্ত তালিকায় এমএ মান্নানের মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর নির্বাচনী মাঠে জোরেশোরে গুঞ্জন চলছে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হলে আজিজুস সামাদ ডন ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন করতে পারেন। এমতাবস্থায় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের পক্ষের লোক হিসেবে পরিচিত জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের অভিভাবক সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদ। গত দুইদিন ধরে মুঠোফোনে আওয়ামী লীগের বিভক্ত নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু মিয়া বলেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমাদের রাজনীতির অভিভাবক সিদ্দিক আহমদ ইতিমধ্যে ঐক্যের ডাক দিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন। নৌকার স্বার্থে সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবেন এমন আশ্বাস মিলছে। দলীর বৃহৎ স্বার্থে শিগ্ররিই অভ্যন্তরীন বিরোধ অবসান হবে।  অপর দিকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক আজিজুস সামাদ ডন বলয়ের সমর্থক উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মনাফ বলেন, নৌকার বিজয়ের জন্য দলের কোন্দল নিরসল করা খুবই অপরিহার্য। এরই মধ্যে ঐক্যের জন্য আমাদের বর্ষিযান রাজনীতিবিদ সিদ্দিক আহমদ আমাকে ফোন করে জানিয়েছেন সকল ভেবাভেদ ভুলে নৌকার পক্ষে ঐক্যে গড়ে তুলতে। আমরা যারা মুজিব আর্দশের সৈনিক তারা কখনও দলের দুর্রদিনে দূরে থাকবনা। আশা করছি অচিরেই বিরোধের অবসান ঘটবে।

জগন্নাথপুরের আওয়ামী লীগ পরিবারের অভিভাবক সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিদ্দিক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার পক্ষের একমাত্র বৃহৎ রাজনৈতিক দল। বড় ঘরে মান-অভিমান থাককেই পারে। তবে দলের প্রয়োজনে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয়ে একমিছিলে অংশ নেবে। ইতিমধ্যে দলের অনেক নেতাকর্মীর সাথে আলাপ আলোচনা করেছি। প্রতিশ্রতিও মিলছে সমাধানের। আশা করছি দ্রুত বিরোধের অবসান হবে।

এদিকে উপজেলা বিএনপির দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে অভ্যন্তরীন কোন্দলে দুইভাগে বিভক্ত হয়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। উপজেলা বিএনপির এক গ্রুপের নেতৃত্বে দিচ্ছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার ও সাধারণ সম্পাদক কবির আহমদ। অন্যদিকে উপজেলা বিএনপির অপর গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন।

২০০৮ সালে উপজেলা বিএনপির সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিএনপির ঘরে বিরোধ দেখা দেয়। সম্মেলনে আক্তার হোসেনকে সভাপতি ও লুৎফুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির বিরোধিতা করে উপজেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার ও উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি কবির আহমদ। ওই কমিটি প্রত্যাখান করে আবু হুরারা ও কবির আহমদের নেতৃত্বে উপজেলা বিএনপির একাংশের নেতাকর্মীরা সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে।
২০১৪ সালে বিএনপি নেতা কর্নেল সৈয়দ আলী আহমদকে আহবায়ক করে উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটির গঠন করা হয়। এ কমিটি মেনে নেয়নি উপজেলা বিএনরি সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেন পক্ষের নেতাকর্মীরা। এনিয়ে দু’পক্ষের নেতাকর্মীরা প্রকাশ্য রাজপথে মুখামুখি অবস্থান নেয়। সর্বশেষ ২০১৭ সালে আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টারকে সভাপতি ও কবির আহমদকে সাধারণ সম্পাদক করে উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি গঠন হয়। এ কমিটির প্রত্যাখান করে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেনের পক্ষের নেতাকর্মীরা রাজপথে মিছিল-মিটিং সভা সমাবেশ করে। সেই থেকে দলীয় বিরোধ আরও ত্বরান্তিত হয়।
আগামী জাতীয় নির্বাচন নির্বাচনে বিএনপির থেকে সাত/ আটজন মনোনয়ন প্রত্যাশিত হলেও দলের ভেরতের আগুন নেভানোর কোন প্রচেষ্ঠা নেই বিএনপির। নেতৃমূল বিএনপির নেতাকর্মীরা বলছেন, দলের বিরোধ মিট না হলে সংসদ নির্বাচনে প্রভাব পড়তে পারে।

এবিষয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাষ্টার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমক বলেন, আমার মা খালেদা জিয়ার মুক্তির মিছিলে সকল জিয়ার সৈনিক ঐক্যবদ্ধ। অভ্যন্তরিক বিরোধ সমাধানে কোন না থাকলেও নির্বাচনে প্রভাব করবেনা । কারণ ধানের শীর্ষ প্রতিকই হচ্ছে ঐক্য। 
এব্যাপারে জানতে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মেয়র আক্তার হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া য়ায়নি।
© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।