মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০২:২০ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে ইটাখলা নদীর ভাঙ্গনে উলুকান্দি মসজিদ,স্কুল হুমকির মুখে আতঙ্কে এলাকাবাসী

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৭৬ Time View

গোবিন্দ দেব/আজহারুল হক ভূঁইয়া শিশু ও আজিজুর রহমান :: জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ইটাখলা নদীর ভাঙ্গনে তীরবর্তী গ্রামগুলো হুমকির মুখে পড়েছে। ইতিমধ্যে নদীর তীরবর্তী উলুকান্দি জামে মসজিদ ভাঙ্গনের কবলে পড়ছে। শিক্ষা নিয়ে শংকায় পড়ছে তীরবর্তী খাশিয়াপাড়া সামছু মিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টির কোমলতী ২ শতাধিক শিক্ষার্থী। সর্বনাশা নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে প্রায় শতাধিক পরিবার গৃহহারা হওয়ার আশংকার মধ্যে নিঘুম রাত কাটাচ্ছেন।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ইটাখলা নদীর তীরবর্তী কুবাজপুর,খাশিয়াপাড়া,উলুকান্দি,খালিশাপাড়াসহ ১০টি গ্রামের প্রায় শতাধিক হেক্টর ফসলি জমি নদীর ভাঙ্গনে ইতিমধ্যে বিলিন হয়েছে। গ্রামগুলোর একমাত্র মসজিদটি নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ছে। ফলে নামাজ প্রেমী মুসুল্লিরা বিপাকে পড়েছে। যে কোন মুহুর্তে মসজিদটি নদীর অতল গহীনে তলিয়ে যেতে পারে। এ দিকে অত্র এলাকার কোমলমতী শিশুদের একমাত্র প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ভাঙ্গনের কবলে পড়ার শঙ্কায় ছাত্র-ছাত্রী ও অভিবাকদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে। বর্ষা মৌসুমে ভাঙ্গন কম থাকলেও হেমন্ত মৌসুমে নদী ভাঙ্গন ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করে। এখনো নদী ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। নদীর করাল গ্রাসে হারিয়ে গেছে অনেক ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা। নদী ভাঙ্গনে সব কিছু হারিয়ে অনেকে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।

এলাকার মুরুব্বি মাহমুদ মিয়া,তরুণ সমাজকর্মী ফিরোজ রানাসহ আরো অনেকেই জানান, ইটাখলা নদীর তীরবর্তী বাড়ির মানুষ গুলো অন্যত্র চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সর্বনাশা ভাঙ্গনে আমাদের আশেপাশের প্রায় শতাধিক হেক্টর আবাদ জমি নদীর গর্ভে চলে গেছে। ফলে এলাকায় খাদ্যসহ অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে রাক্ষুসে নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ে হুমকির মুখে রয়েছে অসংখ্য বাড়িঘরসহ অন্যান্য স্থাপনা। তা যে কোন সময় ভেঙে নদী গর্ভে তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী।
উলুকান্দি জামে মসজিদ মোতাওয়াল্লি জালাল উদ্দিন জানান, আমাদের আশে পাশের প্রায় ১০টি গ্রামের একমাত্র মসজিদ এটি। ইতিমধ্যে মসজিদের একাংশ নদী ভাঙ্গনের কবলে ভেঙ্গে গেছে। ফলে নানা শঙ্কায় মুসুল্লিরা নামাজ আদায় করতে হচ্ছে। সরকার যদি শীঘ্রই নদী ভাঙ্গন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করে, আমাদের মসজিদটাকে রক্ষা করা যাবে।
বিদ্যালয় ম্যনেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ দবির মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, খাশিয়াপাড়া সামছু মিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিষ্টা লগ্ন থেকে এ অঞ্চলের ছাত্রী-ছাত্রীরা শিক্ষা গ্রহন করে আসছে। কিন্তু স্কুলটি ভাঙ্গনের কবলে পরার কারনে অনেক অভিভাক তাদের ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুলে আসা বন্ধ করে দিয়েছে। বর্তমান সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার। তাই সংশ্রিষ্ট কতৃপক্ষ কাছে স্কুলটি নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধ করে শিক্ষা গ্রহনের সুযোগ অব্যাহত রাখতে সুদৃষ্টি কামনা করছি।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, ইটাখলা নদীর ভাঙ্গনরোধে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24