সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নে ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন যুক্তরাষ্ট্রে দুই পুলিশ সদস্যকে গুলি করে হত্যা থানা হেফাজতে আত্মহত্যার দায় পুলিশ এড়াতে পারে না: ডিএমপি কমিশনার ’সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ১৩ হাজার পদ শূন্য’ জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন আজ জগন্নাথপুরের লহরী গ্রামে শীতবস্ত্র বিতরণ আদালতের আদেশে জগন্নাথপুরের বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উৎসব আবারো স্থগিত মিরপুরে বর্নিল সাজে দুইদিন ব্যাপি প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন মৌলভীবাজারে স্ত্রী-মাসহ ৪ জনকে হত্যার পর আত্মহত্যা জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন আ,লীগের সম্মেলন সফল করার লক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত

জগন্নাথপুরে ‘জ্বীনের বাদশা’ পরিচয়ে সাড়ে তিনকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ গ্রেফতার-১

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ মে, ২০১৯
  • ১২৭৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে জ্বীনের বাদশা পরিচয় দিয়ে এক ব্যবসায়ীর নিকট থেকে ১৫শত কোটি টাকা দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় গত শুক্রবার রাতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের এক নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের বাসিন্দা।
শনিবার তাকে সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এরপূর্বে এ ঘটনায় আরো তিনজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠিয়েছে।
জগন্নাথপুর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলা সদরের হোটেল ও স্যানিটারি মালামাল বিক্রেতা উপজেলার মক্রমপুর গ্রামের বাসিন্দা মাওলানা এমরান আহমদের সঙ্গে সৈয়দপুর গ্রামের জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মাওলানা এনামুল হকের মাধ্যমে গত বছর নেত্রকোনার বারহাট্টা গ্রামের হাফিজ কামরুল ইসলামের পরিচয় হয়। কামরুল ইসলাম সৈয়দপুর গ্রামের লন্ডন প্রবাসি রহমত আলীর বাড়ীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করত।
পরিচয়ের সুবাদে হাফিজ কামরুল, মাওলানা এমরানকে জানায়, জ্বীনের সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্ক রয়েছে। জ্বীনের কাছে যা তিনি চান জ্বীন তাকে তাই দেন। এক পর্যায়ে তিনি মাওলানাকে বলেন, আপনি আপনার বাড়িতে ৬টি ড্রাম কিনে নিয়ে তালাবদ্ধ করে রাখবেন। আর চাবি থাকবে আমার কাছে। এক সময় ওই ৬ ড্রামে ১৫শত কোটি টাকা আপনি পেয়ে যাবেন। তবে ওই কোটি টাকা পেতে হলে জ্বীনের জন্য শিরনির খরচ হিসেবে সাড়ে তিন কোটি টাকা দিতে হবে। এমরান তখন ফাঁদে পা দিয়ে কয়েক দফায় তিনি তিন কোটি টাকা দেন। সবশের্ষ গত মার্চ মাসে তিনি আরো ৫০ টাকা টাকা দেন। মোট সাড়ে তিন কোটি টাকা অভিযুক্ত কামরুলকে দিয়ে দেন। টাকাগুলো নিয়ে পালিয়ে যায় কামরুল। একপর্যায়ে ভুল বুঝতে পেরে তিনি জগন্নাথপুর থানায় মামলা করেন। পুলিশ মামলার প্রেক্ষিতে গত ২৫ এপ্রিল রাতে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার কুট বটতল গ্রামে অভিযান চালিয়ে হাফিজ কামরুল ইসলাম তাঁর বাবা আব্দুল কাদির ও মা রেনু বেগমকে গ্রেপ্তার করে। হাফিজ কামরুল ইসলাম ও তার মা রেনু বেগম ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মাওলানা এনামুল হকের নির্দেশনায় তারা এটি করেছেন। জগন্নাথপুরের এএসপির সার্কেল মাহমুদুল হাসান চৌধুরীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ শুক্রবার রাতে এনামুল হককে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে।
তবে মাওলানা এনামুল হকের পরিবার এ ঘটনায় মাওলানা এনামুল হককে অন্যায়ভাবে জড়ানো হয়েছে বলে দাবী করেছেন।
জগন্নাথপুর থানার ওসি (তদন্ত) নব গোপাল দাস বলেন, গ্রেপ্তারকৃতের ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ব্যবসায়ীর সাড়ে তিনকোটি টাকা আত্মসাতের মূল তোহা জ্বীনের বাদশা পরিচয়কারী মাওলানা এনামুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24