মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

জগন্নাথপুরে দুই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সুযোগ পেলেও অর্থাভাবে দুশ্চিতায়

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : বুধবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১২৬৯ Time View

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের দরিদ্র পরিবারের দুই মেধাবী শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেলেও দারিদ্রতার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও পড়ালেখার খরচ জোগানোর দুশ্চিন্তায় ভেঙে পড়েছেন। পরিবারের সদস্যরা উচ্চ শিক্ষার ব্যয়ভার নিয়ে শংকায় ভূগছেন।

জানা গেছে, উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের শাহজালাল মহাবিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পাশ করে কলকলিয়া ইউনিয়নের কালিটেকি গ্রামের দোকান কর্মচারী প্রনেশ দেবনাথের ছেলে প্রবেশ দেবনাথ ও একই ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামের সাবু মিয়ার ছেলে শায়েক মিয়া সিলেট, ঢাকা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির আবেদন করেন। তাদের মধ্যে প্রবেশ দেবনাথ সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হন। অপরদিকে শায়েক আহমেদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধা তালিকায় ভর্তির সুযোগ পান।
প্রবেশ দেবনাথ জানান, দুই ভাই এক বোনসহ তাদের ছয় সদস্যর পরিবারের একমাত্র আয়ের মানুষ তাঁর বাবা কলকলিয়া বাজারে এক মুদি দোকানের কর্মচারী। বাবার অল্প আয় দিয়ে সংসার চালানোর পাশাপাশি তিন ভাই বোনের পড়ালেখার খরচ চালানো দুরূহ। ফলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেলেও ভর্তির টাকা ও থাকা খাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।
একই ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামের শিক্ষার্থী শায়েক মিয়া বলেন, ৪ ভাই ১ বোনসহ ১০ সদস্যর পরিবারের একমাত্র উপার্জনকৃত ব্যক্তি তারা বাবা একজন বর্গাচাষি হিসেবে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। এ অবস্থায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির সুযোগ পেলেও অর্থ সংকটের কারণে খুব দুশ্চিন্তায় পড়েছি।
দোকান কর্মচারী প্রনেশ দেবনাথ বলেন, অনেক কষ্ট করে অভাব অনটনের সাথে সংগ্রাম করে ছেলে প্রবেশ দেবনাথ এসএসসি, এইচএসসিতে ভাল ফলাফল করে এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। এরচেয়ে আনন্দ আর কি হতে পারে। কিন্তু পড়ালেখার খরচ জোগানোর দুশ্চিন্তায় রাতের ঘুম শেষ হয়ে গেছে।
কৃষক সাবু মিয়া বলেন, ছোট বেলা থেকে ছেলে পড়ালেখায় ভালো হওয়ায় তাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন ছিল। এখন ছেলেকে চট্টগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয়ে কীভাবে পড়াব বুঝে উঠতে পারছি না। অর্থাভাবে আমার স্বপ্ন ও ছেলের উচ্চ শিক্ষা থেমে যেথে পারে এ চিন্তায় ভূগছি।

শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এম এ মতিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমার কলেজের দুই শিক্ষার্থী প্রনেশ দেবনাথ ও শায়েক মিয়া দরিদ্র পরিবারের মেধাবী শিক্ষার্থী। তারা উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পাওয়ার আমরা আনন্দিত। সমাজের শিক্ষানুরাগী বিত্তবান ও ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের নেতৃবৃন্দ তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসলে এই শিক্ষার্থীরা একদিন সমাজকে আলোকিত করবে বলে আমি দৃঢ় আশাবাদী।

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দরিদ্র পরিবারের মেধাবী এই দুই শিক্ষার্থীর বিষয়টি জেনেছি তাদের সহযোগিতায় উপজেলা পরিষদ থেকে ভূমিকা রাখার চেষ্টা করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24