জগন্নাথপুরে ধসে যাওয়া সেই অ্যাপ্রোচে ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বেইলি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার::
জগন্নাথপুরের নলজুর সেতুর ধসে যাওয়া অ্যাপ্রোচে ৯ মাস পর সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘ ভোগান্তির পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে সংস্কার কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ ভোগান্তির পর সংষ্কার কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার লোকজন উপস্থিত থেকে কাজ দেখছেন। এসময় কথা হয় ঘোষগাঁও গ্রামের রমজান আলীর ছানার সঙ্গে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দীর্ঘ ৯ মাস ধরে অ্যাপ্রোচ সড়ক ধসে যাওয়ায় সড়ক দিয়ে পাঁয়ে হাঁটা ছাড়া যানচলাচল বন্ধ ছিল। এখন কাজ শুরু হওয়ায় আমরা খুশি।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমকে বলেন, ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি ২০১৩ সালে উদ্বোধন করা হয়। কিন্তুু সেতুর একপাশে অ্যাপ্রোচ সড়ক আজো হয়নি। আরেকপাশের অ্যাপ্রোচ সড়ক ৯ মাস ধরে ধসে গেছে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করেছি একাধিকার।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয় সূত্র জানায়, নলজুর নদীর ঘোষগাঁও নামকস্থাণে ৩৯.১৫ মিটার গার্ডার সেতুটি ২০১৩ সালে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়।
সেতুর পূর্বপাশে অ্যাপ্রোচ সড়কের জায়গা নিয়ে বিরোধ থাকায় বিকল্প অ্যাপ্রোচে সেতুটি চালু করে সেতুর মুল নকশা অনুযায়ী অ্যাপ্রোচ সড়কের জায়গার ভুমি অধিগ্রহনের উদ্যোগ নেয়া হয়।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয়ের প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ক্ষতিগ্রস্থ সংযোগ সড়কে বেইলিসেতু নির্মাণ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সুনামগঞ্জের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মের্সাস নুরুল ইসলাম ট্রের্ডাসএ কাজ করছে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েটিফোর ডটকমকে বলেন,সেতুর অপরপ্রান্তের অ্যাপ্রোচ সড়কে ভুমি অধিগ্রহনের কাজ চলছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নলজুর সেতুটি উপজেলা সদরের সাথে তিন ইউনিয়নের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম। সেতুটির একপাশে সেতুর মুল নকশা অনুযায়ী অ্যাপ্রোচ সড়ক না থাকা ও অপরাংশের অ্যাপ্রোচ সড়কে ৯ মাস ধরে কাজ না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছে। বিষয়টি আমি সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের নজরে এনেছি।
এ প্রসঙ্গে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহাদ জগন্নাথপুর টুয়ে›িন্টফোর ডটকমকে বলেন, আমি এ জেলায় নতুন এসেছি। খোঁজ নিয়ে নলজুর সেতুর ভুমি অধিগ্রহনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিব।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ৬ ডিসেম্বর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ঘোষগাঁও নামকস্থানে নলজুর সেতুর অপ্রোচ ধসে পড়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বেড়ে যায় সামীহীন জনদূর্ভোগ। এ সংক্রান্ত সংবাদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমে একাধিকবার প্রকাশিত হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» সুনামগঞ্জ -৩ আসনে মনোনয়নযুদ্ধে এক ডজন ‘লন্ডনী’

» জগন্নাথপুরের পাটলীতে নির্বাচনী প্রস্তুতিসভা

» নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর ৭ খুন মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ

» সাবেক ১০ সেনা কর্মকর্তা যোনদান করলেন গণফোরামে

» এসএসসির ফরম পূরণ অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর

» তারেকের কার্যক্রম আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে পড়ে না : ইসি সচিব

» ঐক্যের ডাক দিলেন জগন্নাথপুরের আ.লীগ পরিবারের অভিভাবক সিদ্দিক আহমদ

» সাভারে নারীসহ তিনজনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

» কাল থেকে দলীয় চড়ান্ত প্রার্থীদের চিঠি দেবে আ.লীগ

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে হ্যাট্রিক নৌকার মাঝি এম এ মান্নান

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে ধসে যাওয়া সেই অ্যাপ্রোচে ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বেইলি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার::
জগন্নাথপুরের নলজুর সেতুর ধসে যাওয়া অ্যাপ্রোচে ৯ মাস পর সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘ ভোগান্তির পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে সংস্কার কাজ শুরু হয়। দীর্ঘ ভোগান্তির পর সংষ্কার কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার লোকজন উপস্থিত থেকে কাজ দেখছেন। এসময় কথা হয় ঘোষগাঁও গ্রামের রমজান আলীর ছানার সঙ্গে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দীর্ঘ ৯ মাস ধরে অ্যাপ্রোচ সড়ক ধসে যাওয়ায় সড়ক দিয়ে পাঁয়ে হাঁটা ছাড়া যানচলাচল বন্ধ ছিল। এখন কাজ শুরু হওয়ায় আমরা খুশি।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমকে বলেন, ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি ২০১৩ সালে উদ্বোধন করা হয়। কিন্তুু সেতুর একপাশে অ্যাপ্রোচ সড়ক আজো হয়নি। আরেকপাশের অ্যাপ্রোচ সড়ক ৯ মাস ধরে ধসে গেছে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করেছি একাধিকার।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয় সূত্র জানায়, নলজুর নদীর ঘোষগাঁও নামকস্থাণে ৩৯.১৫ মিটার গার্ডার সেতুটি ২০১৩ সালে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়।
সেতুর পূর্বপাশে অ্যাপ্রোচ সড়কের জায়গা নিয়ে বিরোধ থাকায় বিকল্প অ্যাপ্রোচে সেতুটি চালু করে সেতুর মুল নকশা অনুযায়ী অ্যাপ্রোচ সড়কের জায়গার ভুমি অধিগ্রহনের উদ্যোগ নেয়া হয়।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয়ের প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ক্ষতিগ্রস্থ সংযোগ সড়কে বেইলিসেতু নির্মাণ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সুনামগঞ্জের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মের্সাস নুরুল ইসলাম ট্রের্ডাসএ কাজ করছে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েটিফোর ডটকমকে বলেন,সেতুর অপরপ্রান্তের অ্যাপ্রোচ সড়কে ভুমি অধিগ্রহনের কাজ চলছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নলজুর সেতুটি উপজেলা সদরের সাথে তিন ইউনিয়নের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম। সেতুটির একপাশে সেতুর মুল নকশা অনুযায়ী অ্যাপ্রোচ সড়ক না থাকা ও অপরাংশের অ্যাপ্রোচ সড়কে ৯ মাস ধরে কাজ না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছে। বিষয়টি আমি সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের নজরে এনেছি।
এ প্রসঙ্গে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহাদ জগন্নাথপুর টুয়ে›িন্টফোর ডটকমকে বলেন, আমি এ জেলায় নতুন এসেছি। খোঁজ নিয়ে নলজুর সেতুর ভুমি অধিগ্রহনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিব।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ৬ ডিসেম্বর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ঘোষগাঁও নামকস্থানে নলজুর সেতুর অপ্রোচ ধসে পড়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বেড়ে যায় সামীহীন জনদূর্ভোগ। এ সংক্রান্ত সংবাদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমে একাধিকবার প্রকাশিত হয়েছে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।