সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে

জগন্নাথপুরে প্রথমবারের মতো বালিয়া ওয়ান আবাদ, বাম্পার ফলনে খুশি শিক্ষক ফররুখ আহমদ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৯৫ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে প্রথমবারের মতো বালিয়া ওয়ান জাতের বোরো ফসলের বাম্পার ফলনে হাসছেন কৃষক ফবরুখ আহমদ। তিনি মূলত শিক্ষকতা পেশায় জড়িত থাকলেও বাপ-দাদার বুনিয়াদি পেশা কৃষির সঙ্গে অত:পুতভাবে সম্পক্ত রয়েছেন। প্রতি বছর বোরো মৌসুমে পূর্ব পুরুষের রেখে যাওয়া জমি চাষাবাদ করছেন অন্যান্য কৃষকদের মতো।

মঙ্গলবার জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ নলুয়ার হাওরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষক ফররুখ আহমদ কৃষি শ্রমিকদের দিয়ে নিজের জমির ধান তোলার কাজ করছেন। শ্রমিকদের পাশাপাশি তিনি নিজেও তদারকি করছেন। ফররুখ আহমদ জগন্নাথপুর উপজেলার কেশবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বরত রয়েছেন। তিনি নলুয়া হাওর বেষ্টিত চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের বেরী গ্রামের বাসিন্দা।

কাজের ফাঁকে ফররুখ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, তিনি এবার ২৮ কেদার জমিতে (৩০ শতকে এক কেদার) বোরো আবাদ করেছেন। গত দুই বছর পূর্বপুরুষের রেখে যাওয়া তিন হাল (১২ কেদারে এক হাল) জমিতে আবাদ করে অকাল বণ্যার কারণে এক ছটাক ধান তুলতে পারেননি। লোকসানে পড়তে হয় অন্য কৃষকদের মতো তাকেও। কেউ কেউ তাকে কৃষি আবাদ বাদ দেয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু বাপদাদার বুনিয়াদি পেশা কৃষির প্রতি ভালোবাসা তাকে কৃষির নেশায় মুগ্ধ করে রাখে। তাই এবার ২৮ কেদার জমি আবাদ করেন।
তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রতি বছর তিনি একটি নতুন জাতের ধান আবাদের চেষ্ঠা করেন। এবারও তিনি নতুন জাতের বালিয়া ওয়ান চাষাবাদ করেছন। ৫ কেদার জমিতে উচ্চ ফলনশীল ওই জাতের ধান চাষাবাদ করেন। নলুয়ার হাওরে তিনিই প্রথম এজাতের ধান আবাদ করেছেন। কেদার প্রতি তিনি ধান পেয়েছেন ৩০ মণ। প্রতি কেদারে ব্যয় হয়েছে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা।
এছাড়াও হাওরে অন্য কৃষকদের মতো ব্রি-২৮ ও ব্রি-২৯ জাতের ধান আবাদ করেন। তাঁর মতে ব্রি-২৮ জাতের মতো আগাম ও উচ্চফলনশীল ধান বালিয়া ওয়ান। এ জাতের ধান নলুয়ার হাওরে চাষাবাদ করলে কৃষকরা উপকৃত হবেন। তিনি এবার সাড়ে ৫শ থেকে ছয়শত মণ ধান তুলবেন বলে আশা প্রকাশ করে বলেন,সারা বছরের খাবার খেয়েও অনেক ধান এবার বিক্রি করতে পারব।

ফররুখ আহমদ আরও জানান, জগন্নাথপুর উপজেলা মুলত কৃষি নির্ভর উপজেলা। এছাড়াও উপজেলার সবচেয়ে বড় হাওর নলুয়ার হাওর পাড়ের বাসিন্দা হিসেবে আমরা প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে আছি। তাঁর মতে, হাওরপাড়ের মানুষ ধান তুলতে পারলে সাবলম্বী আর না তুলতে পারলে নি:স্ব। তারপরও প্রতি বছর কৃষকদের কষ্টার্জিত ফসল নিয়ে ব্যবসা করেন একটি মহল। ফসল রক্ষা বাঁধের নামে প্রতি বছর চলতো লুটপাট। আবার ধানের নায্য দাম নিয়েও থাকে শঙ্কা। তিনি সরকারীভাবে ধায্যদামে যাতে কৃষকরা ধান বিক্রি করতে পারেন এব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার পাশাপাশি ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে এবারের মতো প্রকৃত কৃষকদেরকে সম্পৃক্ত রাখার দাবি জানান।

চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,শিক্ষক ফররুখ আহমদ এর মতো কৃষকরাই হাওরের প্রাণ। প্রতি বছর হাওর পাড়ের খেটে খাওয়া মানুষের পাশে কৃষক হিসেবে হাজির হয়ে হাওরের চাষাবাদকে উৎসাহিত করছেন। তিনি বলেন,শিক্ষক ফররুখ আহমদ একজন আর্দশ কৃষক হিসেবে সুপরিচিতি লাভ করেছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা তপন চন্দ্র শীল জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ফররুখ আহমদ শুধু একজন শিক্ষকই নন আর্দশ কৃষক হিসেবে আমাদের নিকট পরিচিত। প্রতিবছর তিনি উচ্চ ফলনশীলসহ বিভিন্ন জাতের ধান আবাদ করে থাকেন। এবার তিনি এ উপজেলায় উচ্চফলনশীলও আগাম জাতের ধান বালিয়া ওয়ান রোপন করে সফল হয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয়সহ নানা কারণে জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে আগাম ও উচ্চ ফলনশীল হিসেবে ব্রি-২৮ ও ব্রি-২৯ জাতের ধান বেশী আবাদ হয়। অন্যান্য জাতের ধান বিলম্বিত হওয়ায় কৃষকরা ঝুঁকি নিতে চান না। ফররুখ আহমদ নতুন নতুন জাতের ধান আবাদ করে অভিজ্ঞতা অর্জন করছেন। যা কৃষকদের জন্য ভাল লক্ষণ।
তিনি বলেন,সুনামগঞ্জের হাওরগুলোতে প্রকৃতির বিপর্যয়ের কথা বিবেচনা করে নতুন ধানের জাত আবিস্কারের চেষ্ঠা চলছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24