সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন জ জগন্নাথপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার সম্পন্ন, ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত জগন্নাথপুরে প্রবাসি সংগঠনের উদ্যেগে দরিদ্র মানুষের মধ‌্যে ত্রাণ বিতরণ দিরাইয়ে সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১, গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০ ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উদ্যাগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল জগন্নাথপুরে একদিনে ১১ জন ডাক্তারের যোগদান

জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে মাছ ধরার অভিয়োগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৮
  • ১০৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরের বেড়িবাঁধ মাছ আরোহন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার হাওরপাড়ের কৃষকরা জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, উপজেলার নলুয়া হাওরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের ভুরাখালী গ্রামের নিকটবর্তী রাখাল গাঁছ ও শালিকা নামক স্থানে দুইটি বেড়িবাঁধ ভেঙে ভুরাখালী গ্রামের মৃত আব্দুল মুকিতের ছেলে নিজামুল হাসান রাজু ও একই গ্রামের মৃত নুরুল হকের ছেলে জহিরুল ইসলাম মাছ আরোহন করছে। এতে স্থায়ীরা তাদেরকে মাছ না ধরার জন্য বাঁধা প্রদান করলে তারা জানায়, ইউএনও’র নিকট থেকে লিজ নিয়েছে কিন্তু কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।
২০১৭ সালে অকাল বন্যায় নলুয়া হাওরের রাখাল গাছ ও শালিকার বাঁধ ভেঙে গর্ত সৃষ্টি হলেও ওই সময় এলাকাবাসী স্থানীয় মসজিদ উন্নয়নে মাছ ধরার জন্য উদ্যোগ নিলে তৎসময়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাছুম বিল্লাহ তাদেরকে নিষেধ প্রদান করলে স্থানীয়রা তখন আর মাছ আরোহন করেননি। এবছর ওই দুইটি বাঁধ অক্ষত থাকলেও মাছ ধরার জন্য গর্ত সৃষ্টি করা হয়েছে। কৃষকরা আশঙ্কা করছেন, যদি দ্রুত এ বিষয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করা হয়, তাহলেও বাঁধ ভরাটে মাটি সংকট দেখা দিবে। বিষয়টি জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুমের নিকট লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে জহিরুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ইউএনও’র কার্যালয় থেকে লিজ নিয়ে আমরা মাছ ধরছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম অভিযোগপত্র পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে
বলেন, আমরা কাউকে মাছ ধরার জন্য কোন ধরনের লিজ দেইনি। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24