বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:৫৪ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বন্যায় সহস্রাধিক কাঁচা-বাড়ি ঘর বিধ্বস্ত

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ জুন, ২০১৮
  • ১০৫ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বন্যায় ঘর-বাড়ি ও রাস্তা-ঘাট বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার একাংশে সহ¯্রাধিক কাঁচা-ঘর-বাড়ির মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া দুইটি দু’টি সড়কে গত ১৫দিন ধরে সরাসরি যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এছাড়াও একাধিক গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট বন্যায় তলিয়ে গেছে।
এলাকাবাসী জানান, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে ও উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়ায় কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১৪/১৫ দিন পূর্বে উপজেরার আশারকান্দি ইউনিয়নের উত্তর কালনিচর, শুকলাম্বরপুর, মিলিক, দাওরাই, কাকবলী, পাঠকুরা, জয়দা, শেওরা, মিঠাভরাং, ঐয়ারকোণা, ফেচি, নোয়াগাঁও,বুরাইয়া, সম্ভপুর,তাজপুর, শ্রীকৃষ্ণপুর, হবিপুর, জামালপুর, রুপসপুর, সুরতনপুর, ফেচিশেওরা, পাইলগাঁই ইউনিয়নের নতুন কসবা, জালালপুর, পূর্ব কাতিয়া, কাতিয়া, বড় ফেচিবাজার, রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রানীগঞ্জ বাজার ও পৌরএলাকার একাংশসহ প্রায় ৪৫/৫০টি গ্রামের মানুষ পানি বন্ধ হয়ে পড়েছে। বন্যায় ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-গোয়ালাবাজারের সড়ক ও জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়ক পানিতে ডুবে যাওযায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।
এছাড়াও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষে পানি প্রবেশ করায় ৩২টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে রানীগঞ্জ বাজার, বড়ফেচিবাজারসহ কয়েকটি গ্রামীন হাটবাজার।
বন্যায় বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আশারকান্দি, পাইলগাঁও ও রানীগঞ্জ ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী এলাকার কাঁচা-ঘর বাড়ি বিপর্যন্ত হয়ে পড়েছে। ওই সব বসতবাড়ি থেকে পানি নেমে গেলেও মারাত্মক আকারের ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বেড়ে গেছে জনদূর্ভোগ।
পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান শাহান আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, এখনও বাড়ি-ঘরের আঙ্গিনায় বন্যার পানি রয়েছে। কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী হওয়ায় পানি নামছে ধীরে ধীরে। তিনি বলেন, বন্যায় পাঁছ থেকে ছয়শত কাঁচা বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে রমাপতিপুর, কাতিয়া, সাতা-আলাগদিসহ ইউনিয়নের প্রায় সব’কটি গ্রামীণ রাস্তাÑঘাট। এসব যাতায়াতের রাস্তাগুলো পানিতে ডুবে যাওয়ায় দূর্ভোগের পড়েছেন এলাকাবাসী।
আশারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বকুল দাশ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, দুই শতাধিক কাচাঁঘর বাড়ির ক্ষতি হয়েছে। এরমধ্যেই আমার ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরী করেছে। তিনি বলেন, বন্যায় বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছ রাস্তা-ঘাটের।
রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম রানা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ইউনিয়নের প্রধান হাট রানীগঞ্জ বাজার- গ্রামীণ যাতায়াতের সড়কসহ শতাধিক বসতবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী এলজিইডি গোলাম সারোয়ার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, উপজেলার ৫টি সড়ক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এসব সড়কগুলোতে সরাসরি যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। আমরা ক্ষতিগ্রস্থ সড়কগুলো সংস্কারের জন্য তালিকা প্রনয়ন করেছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষ পানি প্রবেশ করেছে। এছাড়াও ও অনেক বিদ্যালয়ে বন্যা কবলিত হয়ে পড়ায় আমরা ৩২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সামরিকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছি। এর মধ্যে ১০টি বিদ্যালয়ের শ্রেনীকক্ষে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে খবর পেয়েছি।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার তালিকা তৈরীর জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
# .

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24