শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয় জগন্নাথপুরে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার বাসুদেব মন্দিরে শ্রী অদ্বৈত গীতা সংঘের উদ্যাগে অষ্টপ্রহর ব্যাপী নাম সংকীর্তন শুরু

জগন্নাথপুরে বোরো ফসলের উপকরণ তেরপাল বিক্রির ধুম

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৪ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৪১৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে তেপাল বিক্রির ধুম পড়েছে। বুধবার পৌরশহরের জগন্নাথপুর সদর বাজারের থানা রোডস্থ ইকড়ছই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে সকাল থেকেই সন্ধ্যার আগ মূর্হুতে তেরপাল বেচাকেনায় কৃষকদের ব্যস্ততা দেখা গেছে। ব্যস্ত তেরপাল ব্যবসায়ীরাও। এছাড়া ইকড়ছই জামে মসজিদ সংলগ্নস্থানেও তেরপাল বিক্রির ভীর দেখা গেছে।
তেরপাল ক্রয় করতে আসা নলুয়া হাওরপারের কৃষক বদরুজ্জামানজগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তিন চার দিনের মধ্যে আমার বোরো জমিনের ধান কাটা শুরু হবে। ধান মাড়াইয়ের কাজে তেরপাল উপরিহার্য। তাই তেরপাল কিনতে বাজারে এসেছি। সাতশত টাকা দিয়ে একটি মাঝারি সাইজের তেরপাল কিনেছি ।
আরেক কৃষক সুলতান মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ধানের মাড়াই ও ধান শুকানোর কাজে তেলপাল লাগে। এ জন্য আজকে (গতকাল) দুইটি বড় তেরপাল কিনেছি। এ সপ্তাহে ধান কেটে গোলায় তোলব ইন্নাশাআল্লাহ।
পৌরশহরের থানা রোডস্থ তেরপাল ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, গত বছর ফসলডুবির কারনে তেরপাল বিক্রি ছিল নিতান্তই কম। এবার এ পর্যন্ত প্রকৃতি অনুকুলে থাকায় হাওরের কিছু কিছু উচু এলাকায় ধান কাটা শুরু হয়েছে। ধান মাড়াই শুকানোর জন্য তেরপাল কৃষকদের প্রয়োজন। তিনি জানিয়েছেন এবার তেরপাল বিক্রি বেড়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বছর ফসল হারানোর পর বুকভরা স্বপ্ন নিয়ে কৃষকরা আবারও ফসলের মাঠে চাষাবাদ করেন। উপজেলার সব ক’টি হাওরে এখন আধা-পাকা ধানের মৌ গন্ধ। বিচ্ছিন্নভাবে কিছু কিছু হাওরের গত তিন/চারদিন ধরে ধান কাটা শুরু হয়েছে। এখনও ফসল কাটার ধুম পড়েনি এখনও। কষ্ঠার্জিত ফসল গোলায় তুলতে প্রয়োজনীয় সকল উপকরণ সংগ্রহে প্রস্তুুতি গ্রহনে ব্যস্ত কৃষকরা।
হাওর বাচাঁও সুনামগঞ্জ বাচাঁও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বোরো ফসলের ওপর জগন্নাথপুর উপজেলাবাসী নির্ভরশীল। তাই ফসল উত্তোলন করতে পারলেই কৃষকদের অভাব অনটন থাকে না। আর অভাব অনটন না থাকলে এলাকার শান্তি শৃঙ্খলাও
বজায় থাকে।
তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, হাওরপাড়ের প্রতিটি কৃষক পরিবারে কৃষকের পাশাপাশি তাদের স্ত্রী সন্তানরাও কর্মব্যস্ত।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে কোন ধরনের বিপর্যয় না হলে এক মাস সময় পেলে কৃষকরা ধান গোলায় তুলতে পারবেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ধান পাকার পর যাতে তাড়াতাড়ি কেটে মাড়াই দিয়ে বস্তাবন্ধি করা যায় সেজন্য হাওরে আমরা একসাথে ধানকাটা, মাড়াই ও বস্তা বন্ধি করার হারব্রেষ্টার মেশিন এনেছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24