সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সদস‌্যদের ফ্রি চিকিৎসা-ঔষধ বিতরণ জগন্নাথপুরে হাওরের বেড়িবাঁধের কাজ শুরু জগন্নাথপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সংবর্ধনা প্রদান বিজয় উৎসবে জগন্নাথপুরে ৪০ জন মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে স্মার্টকার্ড বিতরণ জগন্নাথপুরে ১৪৫ ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্কুল ব্যাগ বিতরণ বিজয় দিবসে জগন্নাথপুরে বিএনপির উদ‌্যোগে বিজয় র‌্যালি, শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত বিজয় দিবসে জগন্নাথপুরে আ.লীগের বিভিন্ন কর্মসুচী পালন স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও সম্মানী ভাতা পাচ্ছেন না জগন্নাথপুরের ছয় মুক্তিযোদ্ধার পরিবার নবী-রাসুলদের দেশাত্মবোধ আজ মুক্তির দিন

জগন্নাথপুরে বোরো মৌসুমে ৬ দিনে ৩টি সংঘর্ষের ঘটনায় ফসল উঠনোর কাজ ব্যাহত হওয়ায় শঙ্কা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৬৭ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: প্রবাসী অধ্যষিত অঞ্চল হিসেবে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা খ্যাতি পেলেও মূলত এ উপজেলার মানুষ কৃষিকাজের সঙ্গেই অত:প্রতভাবে জড়িত। বর্তমান সময়ে বোরো ফসল গোলায় তোলার কাজে কৃষক পরিবারের লোকজন ব্যস্ত রয়েছেন। এরই মধ্যে চলতি সপ্তাহের ৬দিনের মধ্যে তিনটি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে একজন কৃষকের প্রাণহানি ঘটে। এছাড়া সংঘর্ষের ঘটনায় অন্ত:সত্ত্বা নারীসহ ৬৪জন ব্যক্তি আহত হন। ঘন ঘন সংঘাত-সংঘর্ষের ঘটনায় উপজেলাবাসীর মধ্যে উদ্বেগ উৎকষ্টার পাশাপাশি আতংক বিরাজ করছে। সংঘর্ষের জড়িত অধিকাংশে ব্যক্তি কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে।
অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ৪ এপ্রিল (বুধবার) উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের গর্ন্ধবপুর গ্রামের চাঁন মিয়া ও ওই এলাকার রুহেল মিয়ার লোকজনের মধ্যে পূর্ববিরোধের জের ধরে রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষে নারীসহ ৪০ জন আহত হন। স্থায়ীরা জানিয়েছেন উভয়পক্ষের লোকজনই কৃষিকাজের সঙ্গে সস্পৃক্ত।
৮ এপ্রিল (রোববার) একই ইউনিয়নের কুবাজপুর (নতুনপাড়া) গ্রামের কৃষক নুরুল হকের সঙ্গে নিকটবর্তী পাইলগাঁও ইউনিয়নের শহীদ মিয়া, সুভাস করগংদের লোকজন সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে কৃষক নুরুল হক ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ ঘটনাায় নিহত নুরুল হক পক্ষের ৪জন আহত হন। নুরুল হকের পাকা বোরোক্ষেত্রের ধান প্রতিপক্ষের লোকজন গরু দিয়ে খাওয়ানোর জের ধরে এ সংঘর্ষের সুত্রপাত ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ৮জনকে আটক করে সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠিয়েছে। এব্যাপারে জগন্নাথপুর থানায় ৯জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১৫ জনকে মামলায় আসামী করা হয়েছে। গ্রেফতারি ভয়ে শহীদ মিয়ার বাড়ির লোকজন ও কর সম্প্রদায়ের মানুষজন পালিয়ে বেরাচ্ছে। এঘটনার পরের দিন অর্থাৎ ৯ এপ্রিল (সোমবার) সন্ধ্যায় নলুয়া হাওর বেষ্টিত চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের দাসনাগাঁও গ্রামের কৃষক টুনু মিয়া ও মজনু মিয়ার পক্ষের লোকজনের মধ্যে পূর্ববিরোধের জেরে সংঘর্ষের ঘটনায় অন্ত:সত্ত্বানারীসহ ২০জন আহত হয়েছে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ টুটু মিয়াসহ ৮জনকে আটককে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। এরাও শতভাগ কৃষির ওপর নির্ভরশীল বলে স্থানীয় ইউপি সদস্য রনধীর কান্ত দাস নান্টু জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, গত দুই বছর ফসলহারানো কৃষকরা এখন চলতি বোরো ফসলের পাকা ধান কাটা ও গোলায় তুলতে ব্যস্ত। সংঘর্ষের কারনে ফসল ঘরে তোলতে চরম বিঘিœত হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্য শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন বলেন, প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে আমাদের উপজেলা পরিচিত হলেও দেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের আত্মীয় স্বজনরা কৃষি পেশায় নিয়োজিত। গত ৬দিনের মধ্যে তিন সংঘর্ষের ঘটনায় কৃষক পরিবারের লোকজনই বেশি সম্পূক্ত। এতে আমরা উদ্বিগ ও শঙ্কিত হয়েছি। এলাকার আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন আরও কঠোরতার সঙ্গে কাজ করার জন্য তিনি আহবান জানিয়েছেন। হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাচাঁও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির আহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, টানা দুইবছর ফসল হারিয়ে কৃষকরা যখন ফসল তুলতে ব্যস্ত তখন কৃষক পরিবারের লোকজন সংঘাতে জড়িয়ে পড়ছে। এটি খুবই দুঃখজনক। পর পর তিনটি সংঘর্ষের ঘটনায় আমরা চরমভাবে উদ্বিগ্ন।
জগন্নাথপুর থানার ওসি (তদন্ত) আশরাফুল ইসলাম বলেন, তিনটি সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষতিকভাবে ঘটনাস্থলে পুলিশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। গ্রেফতার করা হয়েছে ১৬জন। এলাকার আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24