রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

জগন্নাথপুরে রাজনৈতিক উত্তাপ বাড়ছে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৬৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::
জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময়ক্ষণ ঠিক না হলেও সুনামগঞ্জ-৩ জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জে রাজনৈতিক উত্তাপ বাড়ছে। ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে কোন্দল গ্রুপিং এখন আবারও প্রকাশ্য রূপলাভ করছে।
মনোনয়ন নিয়ে শুধু আওয়ামী লীগ নয় বিরোধীদল বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে হিসেব নিকেশ শুরু হয়ে গেছে। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকা নিয়ে বর্তমান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান জয়লাভ করেন। বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলেও আওয়ামী লীগ ঘরনার প্রার্থী জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ তনয় আজিজুস সামাদ ডন ফুটবল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন।
নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়ে নির্বাচনী এলাকার উন্নয়নে কাজ চালিয়ে গেলে পরাজিত প্রার্থী আজিজুস সামাদ ডন অনুসারীরা মাঠ ছেড়ে নীরব হয়ে যান। বিগত পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে আজিজুস সামাদ ডন অনুসারীরা আবারও জগন্নাথপুরের রাজনৈতিক মাঠে সক্রিয় হতে শুরু করেন। আগষ্ট মাসে ডন অনুসারীরা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে পৃথকভাবে তৃণমুল আওয়ামী লীগের ব্যানারে কর্মসূচি পালন করেন। অপরদিকে আওয়ামী লীগের মূলধারা স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান অনুসারীরাও সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।
দলের নেতাকর্মীরা জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির সহ-সভাপতি পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন মাষ্টার, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সূত্রধর বীরেন্দ্রসহ বেশ কয়েকজন পদদারী আজিজুস সামাদ ডন বলয়ে থাকলেও অধিকাংশ নেতাকর্মীরা স্থানীয় সংসদ সদস্য এমএ মান্নানের রাজনৈতিক অনুসারী সিদ্দিক আহমদের নেতৃত্বে রয়েছেন। ক্ষমতাসীন দলের এ বিরোধের প্রভাব পৌরসভার পাশাপাশি উপজেলার আটটি ইউনিয়ন লেগেছে। গত ৩১ আগষ্ট আজিজুস সামাদ ডন অনুসারীরা ব্যাপক শোডাউনের মাধ্যমে শোকবন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। তারা অচিরেই ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান করবেন বলে প্রচারণা চলছে।
আজিজুস সামাদ ডন অনুসারী হিসেবে পরিচিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র বলেন,‘রাজনৈতিক মাঠে আমরা সব সময় সক্রিয় আছি। তৃণমুলের ব্যানারে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নে আজিজুস সামাদ ডনের নেতৃত্বে দলীয় কার্যক্রম চলছে। কিন্তুু দুঃখের বিষয় ইতিমধ্যে আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে রাজনৈতিক হয়রানীর শিকার হয়ে জেল খাটতে হয়েছে। রবিবারও আমাদের সক্রিয় কর্মী সিদ্দিকুর রহমানকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় জেলে যেতে হয়েছে।
তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন,‘আমরা কোন প্রতিহিংসার রাজনীতি করি না। আমরা বর্তমান সরকারের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নে স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে এ উপজেলার আওয়ামী লীগ রাজনীতির অভিভাবক সিদ্দিক আহমদের পরামর্শে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।’
অপরদিকে বিএনপি এবার ধানের শীষ নিয়ে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করতে মরিয়া। যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম রশীদ, জেলা বিএনপির সাবেক নেতা লে.কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ ও জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় নেতা এমএ মালেক খান দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করতে মাঠে ও কেন্দ্রে প্রচারণায় রয়েছেন। অপরদিকে জোটের অন্যতম শরিকদল জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় নেতা শাহিনুর পাশা চৌধুরী মাঠে রয়েছেন। এ অবস্থায় জোটের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। জোটের নেতাকর্মীরা মনে করেন, এবার ধানের শীষ নিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম রশিদ (যিনি তারেক রহমানের ঘনিষ্টজন) নির্বাচন করবেন। অন্যদিকে জোটের শরিক জমিয়ত নেতা ধানের শীষ প্রতীক না পেলেও খেজুর গাছ প্রতীকে নির্বাচন করবেন বলে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।
উল্লেখ্য জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-৩ নির্বাচনী এলাকার দীর্ঘদিনের সংসদ সদস্য ছিলেন জাতীয় নেতা সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ। ২০০৪ সালে বার্ধ্যকজনিত কারণে সামাদ আজাদের মৃত্যু হলে এ আসনে উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে পান পাতা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন সাবেক যুগ্ম সচিব এমএ মান্নান। নির্বাচনে চারদীয় জোট প্রার্থী জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে ৪২ হাজার ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ মান্নান ৩৮ হাজার ভোট পেয়ে একটা অবস্থান তৈরী করে নেন। এসময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলামও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। উপ-নির্বাচনে পরাজয়ের পর এম এ মান্নান আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। যোগদানের পর থেকে তিনি নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেন। বিগত ২০০৮ এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। নির্বাচনে ভোটাররা তাকে একজন তারকা প্রার্থী মনে করে বিপুল ভোটে জয়ী করেন। পরবর্তীতে তিনি আবারও দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। দলীয় মনোনয়ন পেলে আবারও তিনি নির্বাচন করবেন বলে তাঁর ঘনিষ্টজনরা জানিয়েছেন।
অপরদিকে মনোনয়ন পেতে মরিয়া হয়ে মাঠে কাজ করছেন আজিজুস সামাদ ডন। আওয়ামী লীগের দুর্গ বলে খ্যাত এ আসনটি ধরে রাখতে দলীয় কোন্দল নিরসনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ত্যাগী নেতাকর্মীরা। অপরদিকে আওয়ামী লীগের সাথে মহাজোটে না থাকলে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য নজরুল ইসলাম নির্বাচন করতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। সময় যত ঘনিয়ে আসছে রাজনৈতিক উত্তাপ ততই বাড়ছে এ উপজেলায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24