মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে সংস্কার কাজ বছর যেতে না যেতে সড়কে বিশাল গর্ত, অর্থ লুটপাটের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৮ জুন, ২০১৮
  • ২৩৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-সড়কে সংস্কার কাজের বছর যেথে না যেতে বিশাল গর্ত আর খানাখন্দ দেখা সৃষ্টি হওয়ায় জনদূর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসী। এ সড়ক নির্মানের দেড় মাসের মাথায় কিছু কিছু স্থানে ভাঙন ও গর্ত দেখা দেয়। এ সংক্রান্ত জাতীয় ও স্থানীয় এবং অনলাইন পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি।
অভিযোগ উঠেছে ওই সড়কে সংস্কারের যতসামান্য নিন্মমানের কাজ করে সরকারী অর্থ লুটপাট করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের পৌর শহরের হাসপাতাল সংলগ্ন স্থানে দু’টি বিশাল গর্ত দেখা যায়। এর মধ্যে হামজা কমিউনিটি সেন্টারের সামনের গর্তে একটি মালবাহী ট্রাক আটককে যানবাহন চলাচলে মারাত্মক বিঘিœত ঘটে। দিনভরযাত্রী আটককে থাকার পর লোহার রড বোঝাইকৃত ট্রাকটি সরানো হয়েছে। এছাড়াও এই সড়কের বটেরতল ও মীরপুর এলাকায় কয়েকটি স্থানে ভাঙা-চুরা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে প্রতিনিয়ত চরম দূর্ভোগের শিকার হচ্ছেন জনসাধারন।
এলাকাবাসী জানান, সিলেট বিভাগীয় শহরের সঙ্গে উপজেলাবাসীর যোগাযোগের একমাত্র সড়ক জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের জগন্নাথপুর অংশের ১৩ কিলোমিটার সড়কে র্দীঘদিন সংস্কারহীন থাকার পর প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে গত বছরের এপ্রিলের মাসের দিকে সড়কের সংস্কার কাজ শুরু হয়। সংস্কার কাজ শুরু হওয়ার দেড় মাসের মাথায় সড়কের একাধিকস্থানে গর্ত ও খানাখন্দ তৈরী হয়। অনেকদিন ধরেই অভিযোগ রয়েছে সংস্কারের নামে নামমাত্র কাজ করে অর্থ লোপাট করা হয়েছে।
ওই সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী তোফাজ্জল হক সুমন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমকে বলেন, দীর্ঘদিন সংস্কারহীন থাকা অবস্থায় গত বছর সড়কের সংস্কার নামে নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করে সংস্কার কাজ করায় সকড়ের বেশ কিছু স্থানে ভাঙন ও গর্ত তৈরী হয়েছে। জনদূর্ভোগ লাঘবের জন্য সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হলেও জনদূর্ভোগ আর শেষ হলো না আমাদের।
আরেক যাত্রী বকুল গোপ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমকে বলেন, জনসাধারনের যাতায়াতের সুবির্দাথে সরকার অর্থ বরাদ্দ দেয়। আর সেই অর্থ সংস্কারের নাম করে লুটপাট করে নেয় দূর্নীতিবাজরা। তাদের দুর্নীতির কারনে সড়কে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে উপজেলাবাসীকে। আমরা এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দুদকের সুদৃষ্টি কামনা করছি।
স্থানীয় সরকারী প্রকৌশলী জগন্নাথপুরের এলজিইডি কার্যালয় সুত্র জানায়, জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের ১৩ কিলোমিটার সংস্কার কাজের জন্য সাড়ে তিনকোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয় ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে। কাজ পান ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নুরা এন্টারপ্রাইজ। ২০১৭ সালের মার্চ মাসের দিকে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করলেও সামান্য কিছু কাজ করে তারা কাজ বন্ধ করে দেয়। পরে স্থানীয় জগন্নাথপুরের এলজিইডি কার্যালয় থেকে তৎকালিক প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে কাজ করা হয়। ওই সময় কাজের মান নিয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে ওই সব ভাঙা এবং গর্তে ইট ও সুড়কি দিয়ে কোনভাবে ভরাট করে। সম্প্রতি অব্যাহত বৃষ্টিপাতে সড়কে সৃষ্ট গর্তগুলো পুকুরের ন্যায় পরিনত হয়। জগন্নাথপুরের এলজিইডি কর্মকর্তা গোলাম সারোয়ান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমকে জানান, জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের গর্তগুলো দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24