মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০২:১৯ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে সাত ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ১১ নং ওয়ার্ডে ত্রিমুখি লড়াই জমে উঠেছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ১১৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ১১ নং ওয়ার্ডের সদস্য পদে নির্বাচন শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধী তিন প্রার্থীই মরিয়া হয়ে উঠেছেন জয়ের জন্য। প্রার্থীরা নানা কৌশলে ভোট আদায়ে গভীর রাত পর্যন্ত চালাচ্ছেন প্রচারনা।প্রার্থী সমর্থকদের প্রচার প্রচারনায় নির্বাচনী আমেজ এখন অজোপাড়া গায়ের চায়ের দোকানে গিয়েও ঢেউ লেগেছে। জেলা পরিষদ নির্বাচন দপ্তর সূত্র জানায়,জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী,মীরপুর, চিলাউড়া-হলদিপুর,রানীগঞ্জ,সৈয়দপুর-শাহারপাড়া,আশারকান্দি ও পাইলগাঁও ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ১১ নং ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডে সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছেন তিন আওয়ামীলীগ নেতা। তাঁরা হলেন,জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বিশিষ্ট ক্রীড়াব্যক্তিত্ব কৃতি ফুটবলার সৈয়দপুর গ্রামের বাসিন্দা সৈয়দ ছাবির মিয়া ছাব্বির। তিনি তালা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। একই ইউনিয়নের শাহারপাড়া গ্রামের বাসিন্দা জগন্নাথপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক যুবনেতা আবুল হোসেন লালন।তার প্রতীক টিউবওয়েল। অপর প্রার্থী রানীগঞ্জ ইউনিয়নের রৌয়াইল গ্রামের বাসিন্দা আওয়ামীলীগ নেতা শাহজাহান সিরাজী ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। নির্বাচনের দিনক্ষন যতই ঘনিয়ে আসছে তিন প্রার্থীই তাদের সমর্থকদের নিয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। নানা কৌশলে সমর্থন আদায়ের চেষ্ঠা করছেন। আওয়ামীলীগ ঘরনার এই তিন প্রার্থীকে নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা অনেকটা বিপাকে পড়েছেন। যদিও দলীয়ভাবে কোন প্রার্থীকেই সমর্থন জানানো হয়নি। তারপরও প্রার্থীরা নিজেদের দলীয় পরিচয় কাজে লাগিয়ে দল সমর্থিত জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে ভোট আদায়ে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। প্রার্থীরা গভীর রাত পর্যন্ত মেম্বার,সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার ও চেয়ারম্যানদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট ভিক্ষা চাইছেন। এ ওয়ার্ডে মোট ভোটার রয়েছেন ৮৯ জন। তন্মেধ্যে ৩জন বর্তমানে প্রবাসে রয়েছেন তবে গুরুত্বপূর্ণ এই ওয়ার্ডে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকমল হোসেন ও ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা ভোট দিবেন। যদিও উপজেলার এই ‍দুই জনপ্রতিনিধি সদস্যপদে কারো জন্য প্রকাশ্যে ভোট প্রার্থনা না করলেও যুবলীগ নেতা আবুল হোসেন লালন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকমল হোসেনের ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত থাকায় তিনি অনেকটা বাড়তি সুবিধা পাচ্ছেন। অপরদিকে শাহাজাহান সিরাজী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তার গ্রামের বাসিন্দা হওয়ায় প্রচারনায় তিনিও নানা সুবিধা আদায় করছেন। অপরপ্রার্থী সৈয়দ ছাবির মিয়া ছাবির এই দুই প্রার্থীর চেয়ে সিনিয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বে থাকায় নির্বাচনী মাঠে তিনিও সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ১১নং ওয়ার্ডে মুলত ত্রিমুখি লড়াই হবে। এখন পর্যন্ত তিন জনই রয়েছেন আলোচনায়।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সদস্যপদে দলীয় কোন মনোনয়ন দেয়া হয়নি। ১১ নং ওয়ার্ডে যারা প্রার্থী হয়েছেন সবাই আমাদের দলের লোক। তাই যিনি বিজয়ী হবেন তিনিইতো আমাদের প্রতিনিধি হবেন ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24